সর্বশেষ আপডেট : ২০ মিনিট ১৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জন্মান্ধ থেকে জীবনজয়ী এক যোদ্ধার অসাধারণ সাফল্যের গল্প

full_1791340526_1460549550আরিফ মাহমুদ:
বাবা-মা এতো দরিদ্র ছিলেন চাননি তাদের ছয়জনের সংসারে নতুন শিশু আসুক। হায়দরাবাদের গ্রামের এক অখ্যাত গ্রামে জন্মনিলো এক অপুষ্ট প্রিম্যাচিউরড শিশু। শুধু অপুষ্টই না একেবারে জন্মান্ধ। এই সন্তানকে দিয়ে কি হবে! শিশুটি যতই বড় হতে লাগলো-চোখ দিয়ে দেখতে না পারলেও হৃদয় দিয়ে অনুধাবন করতে পারলো-সে এই সমাজের জন্য একেবারে আনফিট, দমে গেলে যমে নেয়ার আগে মানুষেই তাকে থামিয়ে দেবে। হাতের স্পর্শে বই পড়ে শুরু হলো তার অক্লান্ত পরিশ্রম।

প্রতিটি ক্লাসে অসাধারণ সাফল্যের পর ক্লাস টেনে ৯০% মার্কস পাওয়ার পরও শুধুমাত্র অন্ধ বলেই কর্তৃপক্ষ তাকে সায়েন্স নিয়ে অধ্যয়ন করতে অনুমতি দিলোনা। অদম্য শ্রীকান্ত স্কুলবোর্ডকে কাকুতি মিনতি করার পরও রাজী না হলে সে বাধ্য হলো আইনের শরনাপন্ন হতে।

সুদীর্ঘ ছয়মাস পর কোর্ট থেকে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী শ্রীকান্ত বোলা’র পক্ষে রায় দিলো। কিন্তু স্কুলে তখন সে ছয়মাস পিছিয়ে পড়েছে সিলেবাস থেকে। তাতে কি? বিস্ময়কর মেধাবী শ্রীকান্ত স্কুলের অতীতের সমস্ত রেকর্ড ভেঙ্গে উচ্চমাধ্যমিকে ৯৮% নাম্বার নিয়ে পুরো শিক্ষাবোর্ডে দারুন এক চমক সৃষ্টি করলো। এতো ভালো রেজাল্ট করার পরও সে ভারতের বিখ্যাত প্রতিষ্ঠান আইআইটিতে লিখিত পরীক্ষার প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণে অনুমতি না পেয়ে বিদেশের বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন করে এবং একসাথে পৃথিবীর সেরা চারটি বিশ্ববিদ্যালয়- MIT, Stanford, Berkeley, and Carnegie Mellon বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির যোগ্যতা লাভ করে এবং MIT এর first International blind student হিসেবে ভর্তি হয়।

প্রতিটি পরীক্ষায় অভাবনীয় সাফল্যের ধারা অব্যাহত রেখে দারুন কৃতিত্বের সাথে গ্রাজুয়েশন শেষ করে ২০১২ সালে ভারতে ফিরে শুরু করে তার নিজের প্রতিষ্ঠান Bollant Industries। যার আর্থিক মূল্য প্রায় ৫০০ মিলিয়ন ডলার । যেখানে আজ ৪৫০ জন কর্মকর্তা, কর্মচারী কাজ করে। যাদের ৮৫ ভাগই বিভিন্নভাবে শারীরিকভাবে অক্ষম, প্রতিবন্ধি। শ্রীকান্ত বোলা’র মতে- মানুষ বলেছিলো- আমি অক্ষম, আমি সমাজের বোঝা, আমার দ্বারা কিছুই হবেনা। কিন্তু আমি জানতাম- মানুষের অদম্য ইচ্ছার কাছে হবেনা, পারবোনা বলে এমন কিছুই নাই। আমি শুধু নিজেই যে পেরেছি তা না। আমি একজন দৃষ্টিপ্রতিবন্ধি মানুষ হিসাবে সমাজের আরো অক্ষম অথবা সক্ষম ,অুজহাতের কাছে বন্দী অথবা শারীরিক প্রতিবন্ধি এমন মানুষের জন্য অনুপ্রেরণার দৃষ্টান্ত প্রতিষ্ঠা করতে চাই।

শুধু দৃষ্টি না আরো নানা শারীরিক প্রতিবন্ধকতার পরও যদি আপনি পারেন- তাহলে আপনি অক্ষম না, আপনি সক্ষম।আর সবকিছু থাকার পরও আপনি যদি কিছুই না পারেন-তবে আপনি সক্ষম না আপনি অক্ষম, আপনি ইচ্ছার প্রতিবন্ধি।

Salute Mr. Srikanth Bolla আপনি কোটি মানুষকে অনুপ্রেরণা দানের এক মহৎ দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন। নানা রকমের গোঁজামিলে ভরপুর অখ্যাত মানুষদের হিরো না বানিয়ে আসুন এইসব সত্যিকারের জীবনজয়ী মানুষগুলোকেই হিরো বানাই।

লেখক: ছোট গল্পকার, আটলান্টা, যুক্তরাষ্ট্র ।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: