সর্বশেষ আপডেট : ৫ মিনিট ৩৮ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বাংলাদেশের সর্ব কালের সেরা একাদশ

full_1120798407_1460648776খেলাধুলা ডেস্ক: বাংলাদেশকে প্রথমবারের মতো ক্রিকেট বিশ্বকাপে খেলার সুযোগ এনে দেয়া অধিনায়ক আকরাম খানের নির্বাচন করা সেরা একাদশে বর্তমানের ছয়জন ক্রিকেটার স্থান পেয়েছেন।

ডয়চে ভেলের অনুরোধে বাংলাদেশের একদিনের ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা একাদশ (তার দৃষ্টিতে) নির্বাচন করেন আকরাম খান। এই তালিকায় ওপেনিংয়ে আছে তামিম আর শাহরিয়ার হোসেন বিদ্যুতের নাম। এরপর একে একে মাঠে নামবেন সাকিব, মুশফিক, নান্নু, পাইলট, রফিকুল আলম (সাবেক অলরাউন্ডার), রফিক (স্পিনার), মাশরাফি, মুস্তাফিজুর রহমান ও রুবেল হোসেন। সেরা একাদশের অধিনায়ক হিসেবে তিনি বেছে নিয়েছেন মাশরাফিকে। দ্বাদশ খেলোয়াড় হিসেবে তালিকায় রেখেছেন মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের নাম।

ইএসপিএনক্রিকইনফো ডটকম ওয়েবসাইটে আকরাম খানকে বাংলাদেশ ক্রিকেটের ‘প্রথম আসল নায়ক’ হিসেবে অভিহিত করা হয়েছে। তবে সেরা একাদশে নিজের নাম না থাকা প্রসঙ্গে আকরাম খান বলেন, ”তালিকা আমি করেছি, সেখানেতো আমার নাম রাখতে পারি না।”

বর্তমানে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের ক্রিকেট পরিচালনা বিভাগের প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন আকরাম খান। কবে বাংলাদেশ বিশ্বকাপ জিততে পারে, এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ”আইসিসির র‌্যাংকিং-এ চার-পাঁচ নম্বরে থাকলে বিশ্বকাপ জেতার আশা করা যায়। ক্রিকেটকে এগিয়ে নিতে এখন যেভাবে কাজ হচ্ছে তাতে খুব শিগগির র‌্যাংকিংয়ে বাংলাদেশের স্থান উপরে উঠবে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।”

উল্লেখ্য, একদিনের ক্রিকেটে বাংলাদেশের অবস্থান এখন সাত নম্বরে।

আকরাম খান বলেন, ১৯৯৭ সালে আইসিসি ট্রফি জেতার আগে বাংলাদেশে ফুটবল ছিল এক নম্বর খেলা। এরপর ক্রিকেট সেই স্থানটি দখল করে। ফলে ক্রিকেট এখন বেশ জনপ্রিয়। এই ব্যাপারটি ক্রিকেটের উন্নয়নে ভূমিকা রাখছে। গ্রামে-গঞ্জে সব জায়গায় ক্রিকেট খেলা হচ্ছে। পৃষ্ঠপোষকতাও আগের চেয়ে বেড়েছে।

আকরাম খান বলেন, ”বাংলাদেশে এখন বয়সভিত্তিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। সেখান থেকে খেলোয়াড় বাছাই করে তাদের জন্য উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।” এ প্রসঙ্গে তিনি বর্তমানে সারা দেশে অনুষ্ঠানরত অনূর্ধ্ব-১৫ ক্রিকেট প্রতিযোগিতার কথা উল্লেখ করেন।

আকরাম খান বলেন, ”বিদেশি কোচ ও বিদেশি ব্যবস্থাপনার তত্ত্বাবধানে অ্যাকাডেমি ও ‘এ’ টিমের ক্রিকেটারদের নিয়ে নানা কর্মসূচির আয়োজন করা হয়। এছাড়া বাংলাদেশে অনেকগুলো টুর্নামেন্ট হয়। যেমন দেশের আটটি বিভাগ নিয়ে ফার্স্ট ডিভিশনের খেলা হয় (চারদিনের ম্যাচ)। সেখানে যারা ভালো খেলে তাদের নিয়ে ফ্র্যাঞ্চাইজি করে আবার চারদিনের ম্যাচের টুর্নামেন্ট করা হয়।”

বাংলাদেশের ক্রিকেট সমর্থকদের আবেগ ক্রিকেটারদের জন্য ইতিবাচক বলেই মনে করেন আকরাম খান। তিনি বলেন, ”বাংলাদেশের মানুষের জন্য আসলে বিনোদনের খুব একটা উৎস নেই। বাংলাদেশের অর্জনের, বাংলাদেশিদের ভালো লাগার একটি বড় অংশ আসে ক্রিকেট থেকে। তাই ক্রিকেটকে ঘিরে এমন সমর্থন থাকবে। একজন ক্রিকেটারকে সেই চাপ নেবার ক্ষমতা থাকতে হবে।”

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: