সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বিদায় ১৪২২ বঙ্গাব্দ

45নিউজ ডেস্ক: প্রকৃতির চলমান নিয়মেই বিদায় নিচ্ছে আরও একটি বছর।

বিদায় নিচ্ছে বাংলা সন ১৪২২ বঙ্গাব্দ।

পুরোনো বছরে প্রত্যাশা এবং প্রাপ্তি যেমন ছিলো, ছিলো হারানোর বেদনাও।

পাওয়া-না পাওয়া, আনন্দ-বেদনার সাতকাহন জীবনকে যেমন সমৃদ্ধ করেছে, তেমনি কখনও বেদনায় নীল হয়েছে মন।

বিদায় মুহূর্তের আবেগে রবীন্দ্রনাথও আলাদা নন। রবীন্দ্রনাথের ভাষায়-

পুরাতন বৎসরের জীর্ণক্লান্ত রাত্রি
ওই কেটে গেল; ওরে যাত্রী।
তোমার পথের পরে তপ্ত রৌদ্র এনেছে আহ্বান
রুদ্রের ভৈরব গান।
দূর হতে দূরে
বাজে পথ শীর্ণ তীব্র দীর্ঘতান সুরে,
যেন পথহারা
কোন বৈরাগীর একতারা।

প্রাচীনকাল থেকেই পুরোনো বছরকে বিদায় এবং নতুন বছরকে স্বাগত জানানো মানুষের আবেগেরই বহিঃপ্রকাশ। অতীত থেকে অনাগত ভবিষ্যতের দিকে যে চলমান প্রবাহমানতা, তাকে মানুষ প্রহণ করেছে। মেনে নিয়েছে। আজ সেই বিদায়কে উৎসবে রূপ দিয়েছে। মানুষ বর্ষ বিদায়ের বেদনাময় অনুষ্ঠান যেমন রূপায়িত করতে চেয়েছে, তেমনি জীবনের শুভ কামনায় জগতের অনিবার্য নিয়মে নতুনকেও অভিনন্দিত করতে সে ভোলেনি।

সুপ্রাচীনকালে মেসোপটেমিয়ায় নববর্ষ অনুষ্ঠান পালন করতো সুখ-সমৃদ্ধি ও শান্তিপূর্ণ সুন্দর ভবিষ্যতের প্রত্যাশায়। প্রার্থনা জানাতেন দেবতার কাছে। পৃথিবীর অনেক দেশেই বর্ষ বিদায় এবং শুভ নববর্ষকে অভিনন্দিত করে অনুষ্ঠান পালনের রীতি চলে আসছে। কারণ মানুষের জীবনের সীমাবদ্ধতায় সভ্যতার প্রয়োজনে সূচিত হয়েছিলো আচার অনুষ্ঠানের।

বাংলা সনের শেষ মাসটির নামকরণ করা হয়েছে চৈত্রা নক্ষত্রের নামানুসারে। হিন্দু পুরাণমতে, সাতাশটি নক্ষত্র রয়েছে, যেগুলোর নামকরণ করা হয়েছে রাজা প্রজাপতি দক্ষের সুন্দরী কন্যাদের নামানুসারে। দক্ষ তার সুন্দরী কন্যাদের বিয়ে দিতে উৎকণ্ঠিত। এরপর বিধির বিধান অনুসারে চন্দ্রদেবের সঙ্গে বিয়ে হলো দক্ষের সাতাশ কন্যার। দক্ষের এক কন্যার নাম চিত্রা। তার নামানুসারে চিত্রানক্ষত্র আর চিত্রানক্ষত্র থেকে বাংলা সনের শেষ মাসটির নাম রাখা হয়েছে।

বর্ষ বিদায় এবং বর্ষ বরণের ঐতিহ্যও বাঙালির হাজার বছরের। সেই আদিকালের আচারাদির হাত ধরে এই বাংলায় চালু হয়েছেলো বর্ষ বিদায় ও বরণের আয়োজন। বছরের শেষ দিন অর্থাৎ চৈত্রের শেষ দিন ‘চৈত্র সংক্রান্তি’কে ঘিরে আবহমানকাল থেকে এই জনপদে নানা আয়োজন সাজানো হয়। কালে কালে, যুগে যুগে হৃদয় ব্যথিত করে বছর চলে গেছে। সেই কষ্ট বাঙালি ভুলেছে নতুন বছরকে স্বাগত জানিয়ে। কবি নজরুল বলেছেন-

‘আমরা চলিব পশ্চাতে ফেলি পচা অতীত
গিরিগুহা ছাড়ি খোলা প্রান্তরে গাহিব গীত
সৃজিব নূতন ভবিষ্যৎ।’

তাই সুরে সুর মিলিয়ে, তালে তাল মিলিয়ে আমরাও বলবো, নতুন ভবিষ্যৎ গড়ার প্রেরণা নিয়ে আসুক ১৪২৩ বঙ্গাব্দ। বিদায় পুরনো বছর ১৪২২ বঙ্গাব্দ।

শেষ করবো রবীন্দ্রনাথের বাণী দিয়ে-

ঈশানের পুঞ্জমেঘ অন্ধবেগে ধেয়ে চলে আসে
বাধাবন্ধহারা
গ্রামান্তরে বেণুকুঞ্জে নীলাঞ্জনছায়া সঞ্চারিয়া
হানি দীর্ঘধারা।
বর্ষ হয়ে আসে শেষ, দিন হয়ে এল সমাপন,
চৈত্র অবসান—
গাহিতে চাহিছে হিয়া পুরাতন ক্লান্ত বরষের
সর্বশেষ গান।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: