সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বিশ্বনাথে আ’লীগ-বিএনপির দলীয় মনোনয়ন বাণিজ্যের অভিযোগ

01.-daily-sylhet-UP-ect11বিশ্বনাথ প্রতিনিধি:
আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে সামনে রেখে সিলেটের বিশ্বনাথ উপজেলার সর্বত্র বইছে নির্বাচনী হাওয়া। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতিকে নির্বাচন হওয়ায় এবারের নির্বাচন যতোটা উৎসব মুখর হওয়ার কথা ছিলো, দিন-ক্ষণ ঘনিয়ে আসার সঙ্গে সঙ্গে নানা আশংকায় ভূগছেন সাধারণ ভোটার ও তৃণমূলের নেতাকর্মীরা।

রাত-দিন উপেক্ষা করে ভেটারদের মন জয় করতে বিরামহীন প্রচারণা চালালেও দলীয় প্রার্থী নির্বাচনে বিতর্ক থাকায় অনেকটা সমালোচনার মুখে বিব্রতকর অবস্থায় রয়েছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ-বিএনপির দলীয় প্রার্থী ও নেতারা। এতে করে সুবিধাজনক অবস্থানে থেকে বিরামহীন প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন দু’দলের বিদ্রোহীরা। আওয়ামী-লীগ, বিএনপির নেতাদের বিরুদ্ধে অর্থের বিনিময়ে দলীয় মনোনয়ন দেয়ার অভিযোগ তুলছেন উভয় দলের নেতাকর্মীরা। তারা বলছেনÑকোনো দিন দলীয় কর্মকান্ডে অংশ না নিলেও টাকার জোরে উড়ে এসে জুড়ে বসেছেন আওয়ামী লীগ, বিএনপির একাধিক প্রার্থী।

অভিযোগ রয়েছে তৃণমূলের মতামত উপেক্ষা করে স্থানীয় সিনিয়র নেতারা মোটা অংকের টাকা নিয়ে জন-বিচ্ছিন্ন ও বিভিন্ন কারণে বিতর্কিত প্রার্থীদের মনোনয়ন দিয়েছেন। এতে বঞ্চিত হয়েছেন দীর্ঘদিনের রাজপথের পরীক্ষিত ত্যাগী ও নির্যাতিত নেতারা। মনোনয়ন বঞ্চিত নেতাদের কর্মী সমর্থকদের মধ্যে চাপা ক্ষোভ আর অসন্তুষ বিরাজ করছে।
উপজেলার রামপাশা ও অলংকারি ইউনিয়নে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন অর্থের বিনিময়ে বিক্রি করা হয়েছে বলে দলের একাধিক নেতা জানান। তবে ওই দুই ইউপিতে বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী রয়েছেন। বিদ্রোহী প্রাথীদের অভিযোগ, অর্থের মাধ্যমে ত্যাগী নেতাদের মুল্যয়ান না করে উড়ে এসে জুড়ে বসা নেতাদের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। যাদের দলে কোনো পদ-পদবি নেই।

এদিকে, উপজেলার বিশ্বনাথ সদর ইউপি, রামপাশা ইউপি ও দেওকলস ইউপিতে আওয়ামী লীগের দলীয় মনোননয়ন বিরাট অংকের টাকার বিনিময়ে বিক্রি করা হয়েছে বলে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীরা অভিযোগ করেন। তারা বলেন, দলের সিনিয়র নেতারা মোটা অংকের টাকা দিয়ে দলের মনোনয়ন বিক্রি করে দিয়েছেন। অর্থের কাছে হেরে গেছেন দলের ত্যাগী নেতারা।

এদিকে, বর্তমানে বেশ সুবিধাজনক অবস্থানে রয়েছেন উভয় দলের কয়েকজন বিদ্রোহী প্রার্থীরা। তাদের কারো ব্যক্তি ইমেজ, পারিবারিক ঐতিহ্য এবং নিজ নিজ ইউনিয়নে ব্যাপক পরিচিতি ও দীর্ঘদিন দলীয় রাজনীতির অগ্রভাগে থেকে নেতৃত্ব দেয়ার পাশাপাশি সামাজিক কর্মকান্ডে জড়িত থাকায় নির্বাচনী মাঠে সহজেই সাধারণ মানুষের আস্তা অর্জন করতে সক্ষম হচ্ছেন। আওয়ামী লীগ-বিএনপি সাধারণ ভোটারদের চাহিদার বিপরীতে কতিপয় বিতর্কিত প্রার্থীদের দলীয় মনোনয়ন দেয়ায় নির্বাচনী ফলাফল নিয়ে শংক্ষিত রয়েছেন অনেকেই।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সহ-সভাপতি ও বিশ্বনাথ সদর ইউপির আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী শাহ-আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, তৃণমূল নেতাদের ভোটে আমি জয়ী হই। কিন্তু পরে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে দলীয় মনোনয়ন বিক্রি করা হয়। এতে দলের নেতাকর্মীর মধ্যে চাপা-ক্ষোভ বিরাজ করছে। তিনি আশাবাদি এবারের নির্বাচনে জয়ী হবেন।

উপজেলা বিএনপির যুগ্ম-সম্পাদক ও রামপাশা ইউপির বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী বশির আহমদ বলেন, দলের তৃণমূল নেতাকর্মীর মতামত না নিয়ে আ.লীগের এজেন্ট কে দলের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। যাকে দলের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে সে ছাত্রদল নেতা আনু হত্যা মামলার এজাহার নামীয় আসামি তিনি জানান।
উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক লিলু মিয়া বলেন, দলের তূণমূল নেতাকর্মীর মতামতের ভিত্তিতে উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের প্রার্থী বাছাই করা হয়েছে। টাকা দিয়ে বিএনপির মনোনয়ন ক্রয় করার সম্ভব নয়। কারণ এটা ইলিয়াস আলী এলাকা। ইলিয়াস আলীর আদর্শের রাজনীতি যারা করে তারা কখনও টাকার কাছে মাথা নত করবেনা। ইলিয়াসপত্নী তাহসিনা রুশদি লুনা ও উপজেলা চেয়ারম্যান সুহেল আহমদ চৌধুরীর নেতৃত্বে দলীয় প্রার্থীদের পক্ষে ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার জন্য দলের নেতাকর্মীর প্রতি আহবান জানান তিনি।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বাবুল আখতার বলেন, আওয়ামী লীগ টাকার রাজনীতিতে বিশ্বাসী নয়। দলের স্বার্থে,প্রার্থীদের বিজয় নিশ্চিত, তৃণমূল নেতাকর্মীর ভোটের মাধ্যমে প্রার্থী বাছাই করা হয়েছে। যারা টাকা দিয়ে মনোনয়ন বিক্রির অভিযোগ করছেন তারা বিএনপি-জামায়াতের এজেন্ট বলে তিনি জানান। এরা দলের কখনও মঙ্গল চায়নি বলে তিনি দাবি করেন।

প্রসঙ্গত, আগামী ৭ই মে উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪১জন প্রার্থী মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। গত সোমবার নির্বাচন অফিস কর্তৃক মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই সম্পুর্ণ হয়েছে। এতে সোমবার। যাচাই-বাছাইকালে কোন প্রার্থীর মনোনয়নপত্র বাতিল হওয়ার খবর পাওয়া যায় নি। প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ দিন আগামী ১৮ই এপ্রিল এবং প্রতিক বরাদ্ধ ১৯ এপ্রিল।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: