সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

গোলাপগঞ্জে বুদুর মিয়া হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে এলাকাবাসীর মানববন্ধন

e7810526-d5f3-475a-9069-044e35f431afগোলাপগঞ্জ প্রতিনিধি:
গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাঘায় দিনমজুর বুদুর মিয়ার হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। রোববার বিকাল সাড়ে ৫টায় বাঘার পরগনা বাজারে এলাকাবাসীর উদ্যোগে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।

বাঘা ৭নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সভাপতি সওকত আলীর সভাপতিত্বে ও মুমিনুজ্জামান মুমিনের পরিচালনা মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, পরগনা বাজার বনিক সমিতির সভাপতি রেহান উদ্দিন, ইউনিয়ন বঙ্গবন্ধু পরিষদের সভাপতি শিব্বির আহমদ, সাধারণ সম্পদক হাবিবুর রহমান,সিলেট তরুনলীগের সহ- সভাতি ও সাংবাদিক কামরান আহমদ,৮নং ওয়ার্ডের কয়েছ আহমদ মেম্বার, ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি কলিম উদ্দিন,সাধারণ সম্পাদক সেলিম আহমদ, ইউনিয়ন সেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি সায়েম আহমদ, জাহাঙ্গীর আলম টিপু, পংকি মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা উস্তার আলী ও এনাম উদ্দিন, লিটন আহমদ, বাবুল আহমদ,লায়েক আহমদ ও মঞ্জুর আহমদ প্রমুখ।

এছাড়া নিহতের সন্তানরাও মানববন্ধনে অংশ নেয়। তারা হলেন, নিহতের বড় ছেলে সাজেদুল ইসলাম সুমন (২৭),লাকি আক্তার (১৪), খালেদা আক্তার পপি (১২) ও মুন্নি বেগম (৯)।

মানববন্ধনে বক্তারা অবিলম্বে ঘাতক লয়লুসহ তার সহযোগী সকল আসামীকে ফাঁসির জোর দাবি জানান।

উল্লেখ্য যে,গোলাপগঞ্জ উপজেলার বাঘা ইউনিয়নের উত্তর গোলাপনগর গ্রামে মৃত কুটু মিয়ার পুত্র বুদুর মিয়া(৫৫) ও তারই নিকটাত্মীয় মৃত সিকন্দর আলীর পুত্র লয়লু মিয়া(৩৪)’র সঙ্গে ভূমি সংক্রান্ত বিষয়ে বিরোধ সৃষ্টি হলে তা নিরসনের লক্ষে গত ৩১ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা রাতে ঐ এলাকার বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের উপস্থিতিতে এক সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে উভয়পক্ষ বিরোধীয় ভূমি নিজ নিজ পক্ষ দখলে রাখতে চাইলে বিষয়টি সালিশ বৈঠকে নিরসন করা সম্ভব হয়নি। একপর্যায়ে উভয় পক্ষ বিতর্কে জড়িয়ে বৈঠক ত্যাগ করেন।

পরবর্তীতে বৈঠক থেকে উঠে ঐ ভূমি উভয়ই দখল করতে চাইলে দু’পক্ষের লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষের সৃষ্টি হয়। এতে প্রতিপক্ষের হামলায় বুদুর মিয়া গুরুতর জখম প্রাপ্ত হন। তার মাথায় গুরুতর আঘাত লাগলে তিনি ঘটনাস্থলেই জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। পরে তাকে দ্রুত চিকিৎসার জন্য সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মধ্যরাতে তিনি মারা যান।

এ সময় প্রতিপক্ষের লয়লু মিয়া চিকিৎসার জন্য ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হলে সেখানে পুলিশ তাকে আটক করে।এ ঘটনায় উভয় পক্ষের কমপক্ষে ৫ জন আহত হয়েছেন বলে জানা যায়। পরবর্তীতে পুলিশ বিভিন্ন ভাবে ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে ঐ এলাকার হাবিব আলীর পুত্র রুবেল আহমদ(২৭), জুনেদ আহমদ(২৬), আজমল আলীর পুত্র আহমদ হোসেন(২৫) কে আটক করে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: