সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ১১ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ইউপি নির্বাচন : বড়লেখার শাহবাজপুরে জেল থেকে নির্বাচন করে নির্বাচিত মেম্বার হারলেন ক্ষমতার কাছে

01. daily sylhet UP ectবড়লেখা প্রতিনিধি::
জেল থেকে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিয়ে বিজয়ী হয়েও শেষ পর্যন্ত আওয়ামী লীগের ক্ষমতার কাছে হারলেন বিএনপি নেতা আব্দুল হালিম। সারাদেশে চলমান ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনের অংশ হিসেবে গত ৩১ মার্চ মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার দশটি ইউনিয়নের নির্বাচন সম্পন্ন হয়। উক্ত নির্বাচনে উপজেলার ৪নং উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক মেম্বার ও ইউনিয়ন বিএনপির প্রভাবশালী নেতা আব্দুল হালিম রাজনৈতিক প্রতিহিংসার স্বীকার হয়ে প্রায় ২ বছর থেকে জেলে অবস্থান করলেও এই নির্বাচনে অংশ গ্রহণ করেন। নির্বাচনে আব্দুল হালিম তালা মার্কা নিয়ে তার গত নির্বাচনের প্রতিপক্ষ বদরুল আহমদের ঘুড়ি মার্কার সাথে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেন।

বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশনের আইনে কোন মামলায় অভিযুক্ত আসামী আদালতের রায়ের মাধ্যমে অপরাধী হিসাবে সাজাপ্রাপ্ত হওয়ার আগে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার সুযোগকে কাজে লাগাতে চান আব্দুল হালিমের পরিবার। মূলত এক সময়ের প্রবল জনপ্রিয় এই মেম্বারকে জনগণের রায়ের মাধ্যমে নির্বাচিত করে মিথ্যা মামলা থেকে রক্ষার আশা নিয়ে তাঁর মুক্তিযোদ্ধা বাবা আয়মুছ আলী আব্দুল হালিমকে এই নির্বাচনে প্রার্থী করেন। বয়োঃবৃদ্ধ এই মুক্তিযোদ্ধা কারান্তরীন ছেলেকে নির্দোষ প্রমাণের আশা নিয়ে ভোটারের ঘরে ঘরে গিয়ে ভোট প্রার্থনা করেন। শাহবাজপুর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ভোটাররাও এই মুক্তিযোদ্ধা বাবার আকুল আহবানে সাড়া দিয়ে ৩১ মার্চের নির্বাচনে আব্দুল হালিমের তালা মার্কায় বিপুল ভাবে ভোট দিয়ে তাকে নির্বাচিত করেন।

৩১ মার্চ সন্ধ্যা ৬টায় করমপুর হাফিজিয়া মাদ্রাসা সেন্টারে ভোট গণনা শেষে কেন্দ্রের প্রিসাইডিং অফিসার হালিমকে নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বদরুল আহমদের চেয়ে ৭৫ ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত ঘোষণা করেন। তখন আব্দুল হালিমের তালা মার্কা ৪১১ এবং বদরুল আহমদের ঘুড়ি মার্কা ২৭৩ ভোট পেয়েছে বলে ঘোষণা করা হয়। কিন্তু মাত্র এক ঘন্টার ব্যবধানে বড়লেখা উপজেলা নির্বাচনি কার্যালয়ে পৌছে তার বক্তব্য বদলে ফেলেন। তিনি বলেন করমপুর হাফিজিয়া মাদ্রাসা কেন্দ্রে ভুল করে তালা মার্কাকে নির্বাচিত ঘোষণা করা হয়েছে। আসলে সেখানে বদরুল ইসলামের ঘুড়ি মার্কা ১২ ভোট বেশি পেয়ে নির্বাচিত হয়েছে। তিনি সরকারি ভাবে ঘোষণা করেন বদরুল আহমদের ঘুড়ি মার্কা ৩৪৮ ভোট পেয়ে ৯নং ওয়ার্ডের মেম্বার নির্বাচিত হয়েছেন, তাঁর নিকটতম প্রার্থী আব্দুল হালিমের তালা মার্কা পেয়েছে ৩৩৬ ভোট।

আব্দুল হালিমের সমর্থকরা যখন বিজয় মিছিল নিয়ে ব্যস্ত, তার পরিবার যখন অনেক নির্যাতন নিপীড়নের পর সামান্য সুসংবাদের আনন্দে ভাসছিল তখনই খবর আসল ক্ষমতার অপব্যবহারে নির্বাচনের রায় বদলে দিয়ে আব্দুল হালিমকে পরাজিত করার খবর। মুক্তিযোদ্ধা আয়মুছ আলী এই প্রতিবেদককে বলেন, কেবল বিএনপির রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত থাকার কারণে তাঁর পরিবারটিকে পরিকল্পিত ভাবে ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। তার ছেলে আব্দুল হালিম কোন অপরাধ না করে আজ এতোদিন থেকে জেলে, অপর ছেলে আনোয়ার হোসেন লেখাপড়া শেষ না করতে পেরেই মামলা ও মৃত্যু ভয়ে আজ পলাতক। এই বাংলাদেশের জন্যই কি আমরা দেশ স্বাধীন করেছিলাম।

আব্দুল হালিমের ফলাফল জঠিলতা নিয়ে কথা বলতে নারাজ বড়লেখা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) এস এম আব্দুল্লাহ আল মামুন। এ বিষয়ে সেন্টার প্রিসাইডিং কর্মকর্তা বিধান চন্দ্র রায় বলেন, ভোটে কোন কারচুপি হয়নি, গননায় ভুলের কারণে এই ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয়েছিলো।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, বদরুল আহমদ আওয়ামী লীগের ইউনিয়ন পর্যায়ের একজন নেতা, তাই আব্দুল হালিমের ভাই আনোয়ার হোসেনসহ পরিবারের আরো অনেক সদস্যের বিরুদ্ধে করা অনেক মামলার বাদী বদরুল আহমদ, আব্দুল হালিমের বাড়িতে বিভিন্ন সময়ে আক্রমণসহ ঘর পুড়িয়ে দেবার মতো গুরুতর অপরাধের সাথে বদরুল আহমদের নাম জড়িত সেহেতু এলাকার মানুষের এটা বুঝতে অসুবিধা হচ্ছেনা কেন এবং কার ক্ষমতার জুরে আব্দুল হালিমের বিজয় ছিনিয়ে নিয়ে বদরুল আহমদকে নির্বাচিত ঘোষনা করা হয়েছে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: