সর্বশেষ আপডেট : ১২ মিনিট ৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

প্রতীক পাওয়ার আগেই প্রার্থীদের প্রচারণায় সরব বিশ্বনাথ

01. daily sylhet UP ect1মোহাম্মদ আলী শিপন::
সিলেটের বিশ্বনাথে ৭টি ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে আগামী ৭ মে। গত বৃহস্পতিবার ৭টি ইউনিয়নে ৪০২জন পদপ্রার্থী মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। প্রথমবারের মতো দলীয় প্রতিকে ইউপি নির্বাচন হওয়ায় প্রতীক বরাদ্দ পাওয়ার আগেই প্রার্থী ও সমর্থকরা প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। একই সঙ্গে নির্বাচনী প্রতীক বরাদ্দ পেতে অধীর আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষায় আছেন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী ও ইউপি সদস্যরা। উপজেলার লামাকাজি, খাজাঞ্চি, অলংকারি, রামপাশা, দৌলতপুর, বিশ্বনাথ ও দেওকলস ইউনিয়নে দলীয় প্রতীকে আগামী ৭ মে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্টিত হবে।

বিপুল উৎসাহ-উদ্দিপনার মধ্য দিয়ে বৃহস্পতিবার বিকেলে শেষ হয়েছে উপজেলার ৭ ইউনিয়ন পরিষদের মনোনয়নপত্র গ্রহন। ৭ মে ৪র্থ দফায় অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করার জন্য ৭ ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৪১ জন, ৬৩টি ওয়ার্ডে সদস্য (মেম্বার) পদে ২৯৬ জন ও ২১টি ওয়ার্ডে সংরক্ষিত (মহিলা) সদস্য পদে ৬৫ জন প্রার্থী নিজ নিজ মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। চেয়ারম্যান পদে উপজেলার ৭টি ইউনিয়নে মনোনয়পত্র দাখিলকারীদের মধ্যে আওয়ামী লীগ মনোনীত ও বিদ্রোহীসহ ১৩ জন, বিএনপি মনোনীত ও বিদ্রোহীসহ ১০ জন, জাতীয় পার্টি মনোনীত ৫ জন, জামায়াত সমর্থিত ৩ জন, খেলাফত মজলিস সমর্থিত ১ জন ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ৯ জন প্রার্থী। চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টির মনোনীত প্রার্থীদের পাশাপাশি একাধিক স্বতন্ত্র এবং আওয়ামী লীগ-বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীরা মনোনয়নপত্র দাখিল করেছেন। তবে মোট প্রার্থীদের সংখ্যা কমতে পারে। আগামীকাল সোমবার প্রার্থী যাচাই-বাছাইয়ের শেষ দিন। আগামী ১৮ এপ্রিল মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের সুযোগ রয়েছে। এ সময়ের মধ্যে এসব প্রার্থীদের কেউ কেউ মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করতে পারেন।

এদিকে, আগামী ১৯ এপ্রিল ইউপি নির্বাচনের প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক বরাদ্দ করা হবে। তবে রাজনৈতিক দলের প্রার্থীদের প্রতীক নিশ্চিত থাকায় আগে-ভাগেই তারা পোস্টার লিফলেট ছাপিয়ে বাসায় রেখে দিয়েছেন। ১৯ এপ্রিল তারা প্রতিক নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রচারণা শুরু করবেন।

যারা স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী ও সদস্যরা প্রতিকের জন্য এখন অপেক্ষায় আছেন। প্রতিক বরাদ্দ পাওয়ার পরপরই নির্বাচনী পোস্টার ছাপানোর জন্য তাদের ব্যস্ততা বেড়ে যাবে। বর্তমানে নীরব প্রচারণায় ব্যস্ত প্রার্থীরা প্রতিক বরাদ্দ পাওয়ার পর নামবেন আনুষ্ঠানিক প্রচারণায়। তবে প্রার্থীদের মধ্যে চলছে উঠান বৈঠক প্রতিযোগিতা। প্রতিদিন উপজেলার ৭টি ইউনিয়নের কোথাও কোথাও প্রার্থীদের উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। উঠান বৈঠকের ফাঁকে ফাঁকে চলে চায়ের আড্ডা।

কিন্তু এসব প্রার্থীরা প্রতিকের আশায় বসে নেই। নির্বাচনী তফশিল অনুযায়ী এখনও প্রতিক বরাদ্দ না হলেও সরব প্রচারনায় প্রার্থীদের আরামের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। প্রতিক ছাড়াই চলছে তাদের রাত-দিন বিরামহীন প্রচারণা। ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। প্রচারণা ভোর বেলা থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত চলছে তাদের প্রচারনা। ভোটারদের কাছে যাওয়ার সুযোগটি হাত ছাড়া করতে কোনো প্রার্থীই রাজি নয়। চেয়ারম্যান প্রাথীর পাশাপাশি মেম্বার প্রার্থীরাও ভোটারদের সাথে সার্বক্ষণিক তদারকি করে আসছেন। উপজেলার লামাকাজি, খাজাঞ্চি, অলংকারি, রামপাশা, দৌলতপুর, বিশ্বনাথ ও দেওকলস ইউনিয়নে দলীয় প্রতিকে আগামী ৭মে ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন অনুষ্টিত হবে। এতে ৭টি ইউনিয়নে ৪১জন চেয়ারম্যান প্রার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করবেন। জাতীয় পার্টি থেকে কোনো বিদ্রোহী প্রার্থী না থাকলেও বিদ্রোহী প্রার্থী নিয়ে কিছুটা বিপাকে পড়েছে আ’লীগ ও বিএনপি। তবে বিদ্রোহী প্রার্থীদের দাবি তারা স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন জমা দিয়েছেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: