সর্বশেষ আপডেট : ১০ মিনিট ১৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

এক ঝড়ে দু’দিন বিদ্যুতহীন সিলেট : মোমের আলোয় এইচএসসি ইংরেজী পরীক্ষার প্রস্তুতি

1. daily sylhet NEWSনিজস্ব প্রতিবেদক ::
হঠাৎ করে প্রকৃতির রুদ্ররূপ। ঝড়, বিজলী, বজ্রপাত আর প্রচন্ড বৃষ্টি। অনেকটা অপ্রস্তুতও ছিল সিলেট। কিন্তু এরই মধ্যে লন্ডবন্ড হয়ে গেছে পুরো সিলেট বিভাগ।
মঙ্গলবারই বৃষ্টি আর ঝড় থেমে গেছে। কিন্তু ভোগান্তি বুধবার রাত পর্যন্ত কমেনি। বিশেষ করে চলমান এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা রয়েছে বেশ বিপাকে। সিলেট শহর ও প্রত্যন্ত অঞ্চলের বিস্তৃত এলাকা এখন বিদ্যুৎহীন রয়েছে।

এদিকে, বিদ্যুতের দাবিতে আজ বুধবার সন্ধ্যায় সিলেট-তামাবিল ও সিলেট-সুনামগঞ্জ সড়ক অবরোধ করেছে জনতা। রাস্তায় টায়ার জ্বালিয়ে বিদ্যুতের দাবি জানিয়ে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছেন তারা।

তবে, বিদ্যুত বিভাগ জানিয়েছে, ঝড়ের কারণে বিভিন্ন এলাকায় ১১ হাজার ভল্টের লাইনে বড় বড় গাছ পড়েছে। যে কারণে অনেক জায়গায় লাইন ছিঁড়ে গেছে। কোথাও বিদ্যুতের খুঁটি ভেঙ্গে পড়েছে। এ কারণে সব জায়গায় দ্রুত বিদ্যুত সংযোগ দেওয়া সম্ভব হচ্ছে না।

জানা গেছে, সোমবার রাতে ঝড় শুরু হওয়ায় পর বিদ্যুৎ গিয়েছিলো। এরপর মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত প্রচ- বেগে ঝড় ও মোষলধারে বৃষ্টি হয়। এতে বিভিন্ন জায়গায় গাছ উপড়ে পড়ে, অতি বৃষ্টিতে জলাবদ্ধতা দেখা দেয়, ফসলী জমি তলিয়ে যায়।

সিলেট-তামাবিল সড়কে অন্তত দেড় শতাধিক গাছ উপড়ে পড়েছে বলে জানা গেছে। এছাড়া বিভিন্ন পাড়া মহল্লায়, রাস্তার পাশে গাছ উপড়ে বাসাবাড়িতে, বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনে পড়ে যায়। এগুলো সরাতে এবং ক্ষতিগ্রহস্ত লাইন মেরামতে সময় লাগছে বলে জানিয়েছে বিদ্যুৎ বিভাগ।

তবে, দুই দিন পেরিয়ে গেলেও বিদ্যুৎ আসেনি। এতে দুর্ভোগে পড়েছেন সর্বস্তরের লোকজন। বিশেষ করে শহরের বাসিন্দারা পানি সংকটে রয়েছে। এইচএসসি পরীক্ষার্থীরা আলো সংকটে ইংরেজী পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে পারছে না। আগামীকাল ৭ এপ্রিল তাদের ইংরেজী ১ম পত্র পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তাই, মোমবাতি জ্বালিয়ে তারা পরীক্ষার প্রস্তুতি নিচ্ছে।

সিলেটের মেজরটিলা এলাকার বাসিন্দা কুতুব উদ্দিন জানিয়েছেন, তার মেয়ে এইচএসসি পরীক্ষা দিচ্ছে। বিদ্যুত না থাকায় পানি উঠানো যায়নি। আজ মেয়েটি গোসলও করতে পারেনি। আর সবসময় উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন আলোয় লেখাপড়া করেছে। এখন মোমবাতি জ্বালিয়ে পড়তে বসলেও মনোযোগ দিতে পারছে না।
এ অবস্থায় বিক্ষোব্ধ সাধারণ লোকজন বুধবার সন্ধ্যা ৬ থেকে সিলেট-তামাবিল সড়ক অবরোধ করে। বুধবার সন্ধ্যা ৬ টায় খাদিমপাড়া হিল ভিউ টাওয়ারের সামনে, দাসপাড়ার সামনে ও খাদিমপাড়া ইউপির সামনে বিক্ষুব্দ এলাকাবাসী সড়কে অবস্থান নিয়ে যান চলাচল বন্ধ করে দেয়। এসময় সড়কে টায়ার জ্বালিয়েও বিক্ষোভ করে তারা। বিদ্যুৎ বিভাগের বিরুদ্ধেও শ্লোগান দিতে থাকে তারা। এলাকার নারীরাও রাস্তায় নেমে বিক্ষোভ করছেন। তবে, পরে পুলিশের আশ্বাসে অবরোধ তুলে নেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে শাহপরান থানার ওসি মোহাম্মদ শাহজালাল মুন্সী বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। এলাকাবাসীকে বুঝিয়ে অবরোধ তুলে দেওয়ার চেষ্টা করছে।
একই দাবিতে শাবিপ্রবি গেইটে ঘন্টাব্যাপী সড়ক অবরোধ করে বিক্ষাভ করেছেন এলাকাবাসী। বুধবার রাত ৭টা খেতে ৮টা পর্যন্ত সব ধরনের যান চলাচল অবরোধ করে রাখলে সিলেট-সুনাম সড়কের দু’পাশে দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

খবর পেয়ে সিলেট জালালবাদ থানার সহকারী পুলিশ কমিশনার কামরুল ইসলাম একদল ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে উপন্থিত হয়ে শান্তিপুর্ণ আশ্বাস দিলে অবরোধ তুলে নেন এলাকাবাসী। গত ১ এপ্রিল থেকে লাখাউড়া, ইসলামপুর, নালিয়া, কালাইউড়া সহ বেশ কয়েকটি গ্রামে বিদ্যুত বিচ্ছিন্ন রয়েছে।

বিদ্যুত উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের প্রধান প্রকৌশলী রতন কুমার বিশ্বাস জানিয়েছেন, ঝড়ের কারণে বিভিন্ন জায়গায় ইন্সুলেটর পিন ফেটে গেছে। ১১ হাজার ভল্ট বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনে গাছ পড়েছে। এরফলে দ্রুততম সময়ে সবজায়গায় বিদ্যুৎ সরবরাহ করা সম্ভব হচ্ছে না। তবে, বুধবার অনেক জায়গায় বিদ্যুত সংযোগ দেওয়া হয়েছে বলে জানান এই কর্মকর্তা। মেজরটিলা থেকে শাহপরান পর্যন্ত বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সংযোগ দিতে দেরি হচ্ছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: