সর্বশেষ আপডেট : ২৩ মিনিট ১৮ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

তনুকে একটা চিঠি লেখার চেষ্টা করলাম

tonni dailysylhetমারুফ হাসান ::

তনু আপ্পি, তুই মরে গিয়ে বেঁচে গেছিস। তোকে অন্তত এখনকার কষ্টগুলো সইতে হচ্ছে না। তুই জানিস সারা দেশের শিক্ষার্থীরা তো বটেই সর্বস্তরের মানুষেরা চাচ্ছে তোর হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটন হউক। দোষীরা শাস্তি পাক।
প্রতিদিন শিক্ষার্থীরা একবুক আশা নিয়ে মানববন্ধন, অবরোধ আর বিক্ষোভ করছে অপরাধীদের শাস্তির দাবিতে। সন্ধ্যায় বাড়ি ফিরছে পরের দিনের কর্মসূচি সাজিয়ে। আপাত দৃষ্টিতে তাই মনে হচ্ছে তারা তোর মৃত্যুর রহস্য উদঘাটন করেই ছাড়বে।

তবে তুই তো জানিস আমাদের সোনার বাংলার সব মানুষ কিন্তু সোনার না, তাদের মধ্যে কেউ কেউ রোপা, তামা, দস্তা কিংবা সিসার মতো কঠিন ধাতু দিয়ে মোড়ানো রয়েছেন। তাইতো তোর হত্যাকাণ্ডটিকে ধাপা-চাপা দেয়ার পায়তারা শুরু হয়েছে। তুইও হয়তো সাগর-রুনির মতো তলিয়ে যাবি।

জানিস? গত সোমবার তোর ময়না তদন্তের প্রথম প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে। সেখানে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক বলেছেন তোকে হত্যা করা হয়েছে এমন আলামত পাওয়া যায়নি। আবার ধর্ষণেরও কোন আলামত নেই। কি হয়েছিলো তুই-ই ভালো জানিস।
সঠিকটা আমরা হয়তো কোনদিনই জানতে পারবো না।

জানিস আপ্পি, আরেকটি বিষয়ে আমি খুবই অবাক হয়েছি, যে ডাক্তার তোর ময়না তদন্ত করেছেন তিনি নাকি তেমন দক্ষ নন। কুমিল্লা মেডিকেল কলেজের অন্য একজন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নাম প্রকাশ না করার শর্ত দিয়ে দৈনিক প্রথম আলোকে এ কথা বলেছেন। ৫ এপ্রিল মঙ্গলবার দৈনিক প্রথম আলো “মৃত্যুর কারণ উল্লেখ নেই, ধর্ষণেরও আলামত মিলেনি” শিরোনামে প্রথম পাতায় তোকে নিয়ে একটি খবর প্রকাশ করেছে। সেখানেই পড়লাম।

তোকে কবর থেকে তোলা হলো কেন জানিস? সেই অনবিজ্ঞ চিকিৎসককে দিয়ে তোর লাশটাকে কাটা-ছেড়া করবে বলে। কেননা তাকেই প্রধান করে তিন সদস্যের মেডিকেল টিম গঠন করা হয়েছে। ভাবছিস শুরুতেই যে চিকিৎসক তোর মৃতদেহে নেড়েচেড়ে বলতে পারলোনা সে ৯দিন পর কবর থেকে তোলা তোর লাশটা থেকে কি বের করে আনবে?

তোর মতো আমরাও তাই ভাবছি। কিন্তু এই দেশে এটিই প্রথম নয় বেশির ভাগ হত্যাকাণ্ডের ক্ষেত্রে এমনটাই ঘটছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট বদলে দেয়া হয় অর্থের বিনিময়ে কিংবা প্রভাব খাটিয়ে। তোর ক্ষেত্রে কি চলছে আমরা এখনো সে বিষয়ে অন্ধকার থেকে গেলাম। সরি আপ্পি, তোকে কিছু জানানো সম্ভব হচ্ছে না।

শুরুতেই তোকে বলেছি “ তুই মরে গিয়ে বেঁচে গেছিস”। কেননা তোর বাবা প্রতিদিন এখন মরছেন। তোর পরিবারের সকল সদস্যের জীবনে রঙগুলো অনন্তকালের জন্য লুকিয়ে গেছে লোকান্তরে। আজ সারা দেশের বাবাদের কপালে দুশ্চিন্তার ছাপ পড়েছে। তারা তাদের কন্যা সন্তানদের উপর অনাগত থাবার আগাম সংবাদ পেয়ে গেছেন।

রাক্ষসদের অনাগত থাবার হাত থেকে প্রিয় কন্যাটিকে রক্ষা করতে হলে তাদের আর ঘরে বসে থাকার সময় নেই….

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: