সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ১১ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১১ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

হবিগঞ্জে ৪ শিশু হত্যা: পুলিশের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় দ্রুত সময়ে অভিযোগপত্র প্রদান করা সম্ভব হয়েছে —ডিআইজি মিজানুর রহমান

bc80a542-6396-4afd-ae44-4b1be073a6b9স্টাফ রিপোর্টার ::
পুলিশের ঐকান্তিক প্রচেষ্টার কারণেই এত অল্প সময়ে একটি গুরুত্বপূর্ণ মামলা তদন্ত করে অভিযোগপত্র প্রদান করা সম্ভব হয়েছে। মামলার বিষয়ে প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার ব্যাপক প্রচারণার কারণে দেশে শিশুদের অধিকার রক্ষা ও শিশু হত্যা বন্ধে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে এমনটা আশা করছি। কথাগুলো বলেছেন সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মোঃ মিজানুর রহমান পিপিএম। তিনি মঙ্গলবার দুপুর ১২টায় সিলেট জেলা পুলিশ আয়োজিত হবিগঞ্জের বাহুবলে বহুল আলোচিত চার শিশু হত্যা মামলায় চার্জশীট দাখিল সংক্রান্ত প্রেস বিফ্রিং -এ প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখছিলেন।

প্রধান অতিথি আরো বলেন, এই মামলা রুজু হওয়ার পর সর্বাধিক গুরুত্বদিয়ে মামলাটি তদন্তকাজ সম্পন্ন করা হয়। মামলা তদন্তে সহায়তার জন্য তিনি সিলেট জেলার পুলিশ সুপার নুরেআলম মিনা ধন্যবাদ পাবার যোগ্য।

ডিআইজি মিজানুর রহমান মামলাটি দ্রুতবিচার ট্রাইবুন্যালের মাধ্যমে বিচারকার্য সম্পন্ন করে দোষীদের যথাযথ শাস্তি প্রদান প্রদান ও নিহত শিশুদের পরিবারকে ন্যায়বিচার পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সভায় উপস্থিত ছিলেন হবিগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার জয়দেব কুমার ভদ্র, সিলেট জেলার পুলিশ সুপার নুরেআলম মিনা পিপিএম, সিলেট রেঞ্জ ও সিলেটের উর্ধ্বতন অফিসারগণসহ প্রিন্ট এবং ইলেকট্রনিক মিডিয়ার বিশিষ্ট সাংবাদিকবৃন্দ।

উল্লেখ্য, গত ১২ ফেব্রুয়ারী হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল থানার সুন্দ্রাটিকি গ্রামের জনৈক আব্দাল মিয়ার শিশুপূত্র মনির মিয়া (৭)সহ তার তিন ভাতিজা ইসমাঈল (১০), জাকারিয়া (৮), সাদেক (১০)গণ নিখোঁজ হয়। পরবর্তীতে নিখোঁজ শিশুদের মৃতদেহ পাওয়া গেলে উক্ত মামলা নিয়ে জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বিষয়টি নিয়ে ব্যপক আলোচনার সৃষ্টি হয়। পুলিশ উক্ত বিষয়ে মামলা গ্রহণ করিয়া মামলার মূল আসামী বাচ্চু মিয়াকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়।

পরবর্তীতে গ্রেফতারকৃত আসামী রুবেল মিয়া, জুয়েল মিয়া, হাবিবুর রহমান ও সাহেদ হত্যাকান্ডের বিষয়ে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী প্রদান করেন। আসামীদের প্রদত্তত জবানবন্দী ও মামলার তদন্তে পুলিশ সাড়াশী অভিযান চালিয়ে অত্র মামলার ৯জন আসামীকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়। মামলার অন্যতম আসামী বাচ্চু মিয়া গত ২৫ ফেব্রুয়ারী চুনারুঘাট থানা এলাকায় র‌্যাব ৯ এর সাথে বন্দুক যুদ্ধে নিহত হয়।

মামলাটির তদন্তকারী অফিসার হবিগঞ্জ জেলা গোয়েন্দা শাখার অফিসার ইনচার্জ জনাব মোঃ মোশারফ হোসেন মামলাটি তদন্তক্রমে গ্রেফতারকৃত ০৯ জন আসামীসহ মোট ১২জন আসামীর বিরুদ্ধে অফিযোগপত্র দাখিল করেন। এই মামলা রুজু হওয়ার পর মাত্র ৫২ দিনের মধ্যে অভিযোগপত্র দাখিল করাসহ মামলা সংশ্লিষ্ট ১৮টি বিভিন্ন ধরনের আলামত জব্দ করা হয়।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: