সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৫১ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

স্বপ্ন-শঙ্কা নিয়ে সৌদিমুখী নারীরা

27প্রবাস ডেস্ক :: ঢাকার লালবাগের বাসিন্দা সালমা। স্বামী নেই। একটিমাত্র মেয়েকে অবলম্বন করে বাঁচছেন। ‘বাঁচা’র মতো করে ‘বাঁচতে’ আর্থিক স্বচ্ছলতার আশায় পাড়ি দিচ্ছেন সৌদি আরবে, গৃহকর্মীর কাজ নিয়ে।

সালমার চোখেমুখে একইসঙ্গে স্বপ্নের ঝিলিক, কপালে শঙ্কার রেখা। যে ‘স্বচ্ছলতা’ খুঁজতে তিনি হাজার মাইল দূরের দেশে পাড়ি দিচ্ছেন মেয়েকে ছেড়ে, সেই ‘স্বচ্ছলতা’ ফিরবে তো? নাকি পত্র-পত্রিকায় ‘সৌদিতে গৃহকর্মী নিপীড়নে’র যে খবর শোনেন তার শিকার একদিন নিজেও হবেন?

সোমবার (৪ এপ্রিল) দুপুরে পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্সের একটি ফ্লাইটে সৌদি আরব যাচ্ছেন তিনি। তাদের ফ্লাইট যাত্রাবিরতি করবে ইসলামাবাদ এয়ারপোর্টে।

সালমা জানান, স্বামী নেই বলে দারিদ্র্যের কষাঘাতে দিন কাটছিল। সুদিন ফেরাতে তাই সৌদি পাড়ি দিচ্ছেন আদরের মেয়েকে ছেড়ে। ইমারজেন্সি পাসপোর্ট করতে ৬ হাজার টাকা ছাড়া আর কোনো খরচ হয়নি তার। ফ্লাইট থেকে শুরু করে যাবতীয় সব খরচ করে তাকে নিয়ে যাচ্ছেন সৌদির নিয়োগকর্তা। মাত্র ৩ মাসের মধ্যে যাবতীয় প্রক্রিয়া শেষ করে উড়াল দিচ্ছেন সালমা।

তিনি বলছিলেন, অনেক কষ্টে দিন যাচ্ছে। সে কারণে সৌদি যাচ্ছি। ভালো কাজ, ভালো বেতনে যদি সুদিন ফেরে।

সালমার মতো ‘সুদিনের’ আশায় সৌদি পাড়ি দিচ্ছেন শরীয়তপুরের শেফালীও। তবে শুরুতেই ধাক্কা খেতে হয়েছে তাকে। দুই ছেলে এক মেয়ের এ জননী সৌদি যাওয়‍ার প্রস্তাব পেয়ে ‘পাশের বাড়ির ভাইদের’ ৩০ হাজার টাকা দিয়েছেন, যেখানে পাসপোর্ট বাবদ কয়েক হাজার টাকা ছাড়া কোনো খরচই লাগার কথা নয়। তার ‘পাশের বাড়ির ওই ভাইরা’ কাজ করেন ‘সানশাইন ওভারসিজ’ নামে একটি প্রতিষ্ঠানের হয়ে।

শেফালী বলেন, স্বামী কাঠমিস্ত্রী। কিন্তু দিনভর ঘুরে বেড়ায়। সংসারের কোনো আয়-উন্নতি নেই। ছেলে-মেয়েদের স্কুলে পাঠানোরও কোনো আগ্রহ নেই তার। তাই আমিই বিদেশে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। কিন্তু যাদের কাছ থেকে প্রস্তাব পেয়েছি তারা আমার কাছ থেকে টাকা হাতিয়ে নিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আমাকে অনেক খরচের কথা বলে তারা ৩০ হাজার টাকা নিয়েছে। অথচ এখানে এসে জানলাম নারী গৃহকর্মীদের সৌদি যেতে কোনো খরচই লাগে না। প্রথমেই এভাবে ধাক্কা খেলাম। তবে এখন একটা ভালো কাজের আশা করছি।

বিদেশে নিপীড়ন-নির্যাতনের খবরের ব্যাপারে শেফালী বলেন, জগতে ভালো লোকের পাশাপাশি খারাপ লোকও আছে। এখন আশা করি ভালো একটা কাজ পাবো। সংসারে আয়-রোজগার হবে।

শেফালী-সালমারা জানান, সৌদিতে যাওয়ার প্রক্রিয়ায় তারা ২১ দিনের সরকারি প্রশিক্ষণ নিয়েছেন। এই প্রশিক্ষণ বিদেশের মাটিতে কাজ করার ক্ষেত্রে কাজে লাগবে বলে প্রত্যাশা করেন তারা।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: