সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

তাহিরপুরে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে কিশোরী অপহরণের পর ধর্ষণ

downloadতাহিরপুর প্রতিনিধি::
তাহিরপুরে অসুস্থ এক কিশোরীকে সুস্থতার নামে ঘুমের ঔষধ খাইয়ে অপহরণ করছে এক লম্পট। অপহরণের পর দীর্ঘ এক মাস আটকে রেখে কিশোরীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ করেছে ধর্ষিতা নিজে। এমন ঘটনার বিবরণ দিয়ে শনিবার তাহিরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ বরাবর একটি লিখিত অভিযোগ করেছেন বড়ছড়া গ্রামের বাসিন্দা নির্যাতিত কিশোরীর মা।

লিখিত অভিযোগে জানা যায়, গত ২৪ ফেব্রুয়ারী বুধবার সন্ধ্যা ৬ ঘটিকায় উপজেলার উত্তর শ্রীপুর ইউনিয়নে বড়ছড়া গ্রামে আত্মীয়তার সুত্রে বেড়াতে আসে পাশ্ববর্তী বড়দল উত্তর ইউনিয়নের সীমান্তে রজনী লাইন গ্রামে কাউসার মিয়া (৩৫)। জ্বরে অসুস্থ ছিল বড়ছড়া গ্রামের কিশোরী (১৩)। তাকে দ্রুত সুস্থ হওয়ার কথা বলে ঘুমের ওষধ খাইয়ে দেয় কাউসার। ঘুমের ওষধ খাওয়ানোর পর কিশোরী অজ্ঞান হলে সে কিশোরীকে ডাক্তারদের কাছে চিকিৎসার কথা বলে কৌশলে অপহরণ করে।

অভিযোগকারী ও তার স্বামী কয়লা শ্রমিক। ঘটনার দিনও তারা দুজন যাদুকাটা নদীতে কয়লা কুড়াতে গিয়েছিলেন। রাতে বাড়ি ফিরে দেখেন তার অসুস্থ কন্যা ঘরে নেই। তার অপর মেয়েকে বড় মেয়ের কথা জিজ্ঞেস করলে সে বলে কাউসার ভাই এসেছিল, থাকে চিকিৎসার কথা বলে ডাক্তারের কাছে নিয়ে গেছে। পরবর্তীতে তিনি অনেক খুঁজাখুজি করে মেয়ের কোন সন্ধান পাননি।

ঘটনার একমাস পর সম্প্রতি কয়েকদিন পূর্বে উত্তর বড়দল ইউনিয়নের রজনীলাইন গ্রামের ২ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সাত্তার মিয়ার বাড়িতে মেয়ের সন্ধান পান। সন্ধানের পর মেয়েকে তার বাবা মা নিজ বাড়িতে নিয়ে আসেন। পরবর্তীতে নির্যাতিত কিশোরী তার বাবা মা ও পাড়া প্রতিবেশীকে ঘুমের ঔষুধ খাইয়ে অপহরণ ও ধর্ষনের কথা খুলে বলে। অপহৃত কিশোরী বিচারের আশায় স্থানীয় ট্যাকেরঘাট পুলিশক্যাম্পে যোগাযোগ করলে ক্যাম্প ইনচার্জ এএসআই তপন কুমার দাস নিয়ে যান টাঙ্গুয়ার হাওরের দায়িত্বরত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের কাছে।

পরে সেখান থেকে শনিবার তাহিরপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দিয়ে ওই কিশোরী ও তার মা স্বশরীরে গতকাল শনিবার দুপুরে তাহিরপুর উপজেলা প্রেসক্লাবে হাজির হয়ে উপস্থিত সাংবাদিকদের কাছে ঘটনার পূর্নবিবরণ প্রকাশ করেন। ঘটনার পর থেকে এখন পর্যন্ত অভিযুক্ত কাউসার মিয়া ঘা ঢাকা দিয়ে রয়েছে।

এ বিষয়ে উত্তর বড়দল ইউপি সদস্য আব্দুস সাত্তার বলেন, কাউসার মিয়া মেয়েটিকে আমার বাড়িতে রেখে যায়, আমি তার মাকে খবর দিয়ে এনে তাকে তার মায়ের কাছে দিয়ে দেই।

উত্তরবড়দল ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন বলেন, ঘটনার পর নির্যাতিতার মা বাবা আমাকে বিষয়টি অবহিত করেছে এবং আমি তাদের আইনের আশ্রয় নেয়ার পরামর্শ দিয়েছি।

তাহিরপুর থানা অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ শহীদুল্লাহ বলেন, ম্যাজিস্ট্রেট’র মাধ্যমে নিষ্পত্তি না হলে আমি অভিযুক্ত ব্যাক্তির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: