সর্বশেষ আপডেট : ৩২ মিনিট ৫৫ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাতকে ভোটের রাজনীতিতে পরাস্ত এমপি মানিক ও উপজেলা চেয়ারম্যান বকুল!

1. daily sylhet chhatak mp manik bokul newsছাতক প্রতিনিধিঃ
ছাতকে ইউনিয়ন নির্বাচনে ভোটের রাজনীতিতে হেরে গেলেন এমপি মুহিবুর রহমান মানিক ও উপজেলা চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল। এখানে আ.লীগের বিবদমান এমপি মানিক ও মেয়র আবুল কালাম চৌধুরী পক্ষদ্বয়ের মধ্যে মনোনয়ন কাড়াকাড়িতে এমপি মুহিবুর রহমান মানিক বিজয়ী হলেও ভোটের রাজনীতে তিনি হয়েছেন পরাস্ত। পৌরসভার গন্ডি পেড়িয়ে বর্তমানে উপজেলায়ও এমপি মানিকের অংশে একটি বড় রকমের ভাগ বসিয়েছেন মেয়র কালাম। ফলে এমপি মানিকের বর্তমান জনপ্রিয়তা নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন।

ইউনিয়ন নির্বাচনে ১৩ ইউনিয়নের মধ্যে ১০ মনোনয়ন নিজের পক্ষে এনে দলের মধ্যে তার গ্রহন যোগ্যতার স্বাক্ষর রাখতে সমর্থ হয়েছিলেন। পক্ষান্তরে ৯টি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন প্রার্থনা করে মাত্র ৩টি নিয়েই সন্তোষ্ট থাকতে হয়েছে মেয়র কালামকে। কিন্তু প্রাপ্ত মনোনয়ন ছাড়াও উভয় পক্ষের একাধিক বিদ্রোহী নির্বাচনে অংশ নেয়। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে উভয় বলয়ের নেতারাই বিদ্রোহী প্রার্থী পক্ষ নিয়ে কেউ জয়ী ও কেউ পরাজিত হয়েছেন। ইউনিয়ন নির্বাচন বিবেচনায় ভোটের পাল্লায় বহুদুর এগিয়ে গেছেন কালাম-শামীম পক্ষ। নাম প্রকাশে আ.লীগের এক সিনিয়র নেতা জানান, জননেত্রী শেখ হাসিনা এমপি মানিককে দিলেন ১০টি নৌকা, তিনি উপহার দিলেন ৭টি।

পক্ষান্তরে মেয়র কালামকে দিলেন ৩টি, তিনি উপহার দিলেন ৫টি। একইভাবে ছাতক পৌরসভা নির্বাচনেও ভোটের রাজনীতিতে বার-বার এমপি মানিককে পরাস্থ করে আসছেন মেয়র কালাম। এদিকে ইউনিয়ন নির্বাচনে এমপি মানিক ও উপজেলা চেয়াম্যান অলিউর রহমান চৌধুরীর বিরুদ্ধে নির্বাচনী আচরনবিধি লঙ্গনের অভিযোগ গন-মাধ্যমের কাছে তুলে ধরে ছিলেন সিয়চাপইড় ইউনিয়নের আ.লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী সাহাব উদ্দিন সাহেল। এসময় সাহেল বলে ছিলেন, নির্বাচনী এলাকায় অবস্থায় করে এমপি নৌকার বিরুদ্ধে প্রত্যক্ষভাবে কাজ করেছেন। বিভিন্ন উন্নয়নের প্রলোভন দেখিয়েও তিনি ভোটারদের আয়ত্ব করতে পারেননি। সব ষড়যন্ত্রকে উপেক্ষা করে তার ইউনিয়নের মানুষ উন্নয়নের নেত্রী শেখ হাসিনা ও বঙ্গবন্ধুর নৌকার প্রতি আস্তা রেখে স্বাধীনতার প্রতীক নৌকাকে বিজয়ী করেছে।

সদর ইউনিয়নের আ.লীগের নির্বাচিত চেয়ারম্যান সাইফুল ইসলাম জানান, এখানে নৌকা ডুবাতে মরিয়া হয়ে উঠেছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল ও ভাইস চেয়ারম্যান আবু সাদাত লাহিন। প্রচারনায় শেষ দিনে বাউসাবাজারে নির্বাচনী জনসভা করে এ উপজেলা চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান প্রকাশ্যে নৌকা প্রতীকের বিরোধিতা করেছেন। তারা নৌকা নয়- বিদ্রোহী প্রার্থীর ঘোড়া প্রতীকে ভোট দেয়ার জন্য আহবান করেছেন। কিন্তু তাদের মিষ্টি কথা এ ইউনিয়নের ভোটাররা সরাসরি প্রত্যাক্ষান করে নৌকার বিজয় নিশ্চিত করেছে। উপজেলা আ.লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক ছানাউর রহমান ছানা গ্র“পিং রাজনীতি বিশ্বাস করেন না উল্লেখ করে বলেন নেত্রী যাচাই-বাচাই করে মনোনয়ন দিয়েছেন। নৌকা নিয়ে যারা বিজয়ী হয়েছেন তাদের তিনি অভিনন্দন জানান। আর যারা দলের সীদ্ধান্তের বাইরে বিদ্রোহী হয়ে জয়ী বা বিজয়ী হয়েছেন তাদের ব্যপারে দল সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেবে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: