সর্বশেষ আপডেট : ৬ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শমশেরনগর রেলওয়ে ষ্টেশনসহ বিভিন্ন স্থানে কৃষি বন্দোবস্তকৃত ভূমিতে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান নির্মাণের হিড়িক

1. daily sylhet kamalganj newsপিন্টু দেবনাথ, কমলগঞ্জ::
রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের সিলেট-আখাউড়া রেল সেকশনের দু’পার্শ্বে হাজার হাজার কোটি টাকার মূল্যবান ভূ-সম্পত্তি স্থানীয় প্রভাবশালীরা কৃষি বন্দোবস্ত নিয়ে বাসাবাড়ি ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান নির্মাণের হিড়িক শুরু হয়েছে। এই সেকশনের শমশেরনগর রেলওয়ে ষ্টেশন সংলগ্নসহ বিভিন্ন ষ্টেশন এলাকায় রেলওয়ের কোটি কোটি টাকার কৃষিজমি ও ভূ-সম্পত্তি পর্যায়ক্রমে বেহাত হচ্ছে। বিগত ওয়ান-ইলেভেনের পর যৌথ বাহিনী রেলওয়ের বিভিন্ন স্থান থেকে কিছূ জমি উদ্ধার করলেও ধীরে ধীরে সেগুলো বেদখল হয়ে গেছে। স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহল মূল্যবান এসব জমি প্রকাশ্য দখলে নিয়ে প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করে চললেও সম্পত্তি রক্ষায় কর্তৃপক্ষের কোন নজর নেই।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, সিলেট-আখাউড়া রেল সেকশনের জমি স্থানীয় প্রভাবশালীদের দখলে চলে যাওয়ায় সরকার হারাচ্ছে কোটি কোটি টাকার রাজস্ব। শমশেরনগর রেলষ্টেশন সংলগ্ন এলাকায় প্রভাবশালী মহল কৃষি বন্দোবস্ত ভূসম্পত্তি নিয়ে পর্যায়ক্রমে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলছেন। সম্প্রতি সময়েও কৃষি বন্দোবস্ত নেয়া ভূমিতেও পাকা দালান নির্মাণের প্রতিযোগিতা চলছে। প্রভাবশালী মহল কর্তৃক রেলওয়ের কৃষি বন্দোবস্ত নেওয়া জমিজমার সাথে পরিত্যক্ত জমি নিজেদের দখলে নিয়ে চড়া দামে ক্রয় বিক্রয় চলছে। কৃষি বন্দোবস্তকৃত স্থানীয় প্রভাবশালী লোকেরা টিনসেড, পাকা ও আধা পাকা ঘর নির্মাণ করে ভাড়া দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছেন লাখ লাখ টাকা। এসব ঘরে নিম্ম আয়ের লোকজন ভাড়া নিয়ে স্থানীয়ভাবে বিভিন্ন ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন। রেলপথের পাশে এসব জমিতে গড়ে উঠা কিছু কলোনী সমূহে লোহা চুরি ও মাদক ব্যবসার আস্তানাও গড়ে উঠছে।

রেলওয়ের ভূ-সম্পত্তি থেকে সরকারের বিপুল পরিমাণে রাজস্ব আয়ের অফুরন্ত সুযোগ থাকলেও অবৈধভাবে জমি বেহাত হয়ে যাওয়ায় বাংলাদেশ রেলওয়ে সেই সুযোগ থেকে হাতছাড়া হচ্ছে। ওই জোনের টিলাগাঁও, লংলা, ভাটেরা, কুলাউড়া, শমশেরনগর, ভানুগাছ, শ্রীমঙ্গল, সাতগাও, রশিদপুর, লস্করপুর, শায়েস্তাগঞ্জ ও নোয়াপাড়াসহ বিভিন্ন ষ্টেশনের পাশের জমি অবৈধ দখলে নিয়ে ঘরবাড়ি ও দোকানপাট নির্মিত হচ্ছে। তাছাড়া সংঘবদ্ধ চোর চক্রও রেলপথের স্লিপারের সাথে যুক্ত ক্লিপ, নাটবল্টু প্রতিনিয়ত চুরি করে নিচ্ছে। রেলপথ থেকে এসব ক্লিপ চুরির ফলে রীতিমত ঝুঁকি নিয়েই ট্রেন চলাচল করছে। এছাড়াও বিভিন্ন ষ্টেশনের পরিত্যক্ত রেল লাইন থেকে হরদম চুরি হচ্ছে মূল্যবান লোহার সরঞ্জামাদি, রেল লাইনের যন্ত্রাংশ ও মালামাল। টেলিফোন ও সিগন্যাল লাইটের কাজে ব্যবহৃত তার, খুটি কেটে নিচ্ছে। অন্যদিকে রেল লাইনের ক্লিপ, নাটবল্টুসহ মূল্যবান যন্ত্রাংশ চুরি হয়ে যাওয়ায় এই সেকশনে রেল চলাচলে ঝুকিপূর্ণ হয়ে পড়ছে বলে সচেতন মহল মনে করছেন। একই সাথে বাড়ছে দুর্ঘটনাও।

ওই সেকশনের কয়েকজন রেলওয়ে ষ্টেশন মাষ্টার জানান, কৃষি বন্দোবস্ত নিয়ে এভাবে বাণিজ্যিক ভিত্তিতে বাসাবাড়ি ও দোকান গৃহ গড়ে উঠছে। তবে স্থানীয় প্রভাবশালী মহল দীর্ঘদিন ধরে অবাধে একের পর এক কার্যক্রম চালিয়ে গেলেও তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ দিতে গেলে অনেক কাঠখড় পোড়াতে হয়। বদলী, চাকুরী হারানোর ভয়ও রয়েছে।

এ ব্যাপারে রেলওয়ের ভূ-সম্পত্তি বিভাগে যোগাযোগের চেষ্টা করেও কারো বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: