সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
বৃহস্পতিবার, ৮ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জুড়ীতে মহান মে দিবস পালিত

5. juriমাহবুব আলম রওশন, জুড়ীঃ
মৌলভীবাজারের জুড়ীতে মহান মে দিবস উপলক্ষে র‌্যালী আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত। পশ্চিম জুড়ী ও জায়ফরনগর অটো রিক্সা কল্যাণ সমিতির আয়োজনে শুক্রবার সকাল ১০ টায় ভাবানীগঞ্জ বাজার থেকে একটি বিশাল র‌্যালী বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিন করে তৈয়বুন্নেছা খানম ডিগ্রি কলেজের সামনে এসে এক সভায় মিলিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন জাতীয় শ্রমিক লীগের জেলা সহ-সভাপতি, পশ্চিম জুড়ী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক অটো রিক্স কল্যান সমিতির উপদেষ্ঠা জুবের হাসান জেবলু। বক্তব্য রাখেন পশ্চিম জুড়ী অটো রিক্স কল্যাণ সমিতির সভাপতি আব্দুল হান্নান, সম্পাদক খলিলুর রহমান, জায়ফর নগর অটো রিক্স কল্যাণ সমিতির সভাপতি ছাতার মিয়া, সম্পাদক সাদাত হোসেন, মোঃ হেলাল মিয়া, রফিক মিয়া, আলমাছ আলী প্রমূখ। এছাড়াও পশ্চিম জুড়ী ও জায়ফরনগর অটো রিক্সা কল্যাণ সমিতির সকল সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে চা শ্রমিক ইউনিয়নের অন্তর্গত জুড়ী ভেলী কাযকরি পরিষদ রতনা চা বাগান মন্ডপ প্রাঙ্গনে ব্যাপক কর্মসূচী পালন করে। শুক্রবার সকালে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বিশাল র‌্যালি বের করা হয়। পরে কোমল চন্দ্র বোনার্জির সভাপতিত্বে অনুষ্টিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা চেয়ারম্যান গুলশান আরা মিলি। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ চা শ্রমিক ইউনিয়নের কেন্দ্রিয় অর্থ সম্পাদক পরেশ কালিন্দি, উপজেলা আওয়ামী লীগের আহবায়ক আজির উদ্দিন, ইউপি চেয়ারম্যান শাহাব উদ্দিন লেমন, রতনা চা বাগান ব্যবস্থাপক আপ্তাব আহমেদ, শাখার সম্পাদক রতন কুমার পাল। অনুষ্টানে জুড়ী ভেলি শাখার আওতাধীন ৩৬টি চা বাগানের পঞ্চায়েত ও সাধারণ শ্রমিকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

উল্যেখ, ১৮৯০ সাল থেকে বিশ্বের শ্রমিকরা দেশে দেশে এ দিবসটি পালন করে আসছে। আজও শ্রমিকদের অধিকার বাস্তবায়িত হয়নি। বরং নানামূখী শ্রম বিক্রি করে ন্যায্য পাওনা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এখনও পরিচ্ছন্ন ও চা শ্রমিকরা ছাড়াও শিশু শ্রমিকরা শ্রম মাফিক প্রকৃত পাওনা থেকে বঞ্চিত। যদিও আন্তর্জাতিক আইনে প্রতিটি শ্রমিকের যথাযথ পারিশ্রমিক দিতে বাধ্য থাকার কথা, কিন্তু আমাদের দেশে আমলাতান্ত্রিক ও ব্যক্তিতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থার কারণে প্রকৃত পক্ষে শ্রমিকরা তাদের ন্যায্য অধিকার থেকে বঞ্চিত রয়েছে। এখনও শ্রমিকদের পক্ষের কোন সরকার শ্রমিকদের অধিকার বাস্তাবায়ন করেনি। সম্ভবত ১৮০৯ সালে ফিলাডেলফিয়ায় জুতা শ্রমিকদের বিরুদ্ধে মামলার প্রতিবাদে শ্রমিকরা সক্রিয় হয়ে উঠে। ১৮২০ সাল থেকে ১৮৪০ পর্যন্ত শ্রমিকরা কাজের সময় বেধে দেয়ার দাবিতে ধর্মঘট পালন করে। ১৮২৭ সালে ফিলাডেলফিয়ায় মেকানিকদের মধ্যে প্রথম শ্রমিক ইউনিয়ন গঠনের উদ্যোগ প্রহন করা হয়। এ সময় থেকে শ্রমিক ইউনিয়নের নেতৃত্বে শ্রমিকরা ১০ ঘন্টার শ্রমের দাবিতে আন্দোলন সংগ্রাম অব্যাহত রাখে। দীর্ঘ আন্দোলন সংগ্রামের ফসল হিসাবে ১৮৩৭ সালে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রপতি ভ্যান বুবনের আমলে সরকারি কাজের জন্য শ্রমিকদের ১০ ঘন্টা কার্য দিবস নির্ধারণ করা হয়। এ আইনকে সম্প্রসারণ করা হলেও সর্বত্র স্বীকৃতি পাওয়ার পরও কিছু কিছু মিল কারখানায় শ্রকিরা ৮ ঘন্টার কার্য দিবসের দাবি উত্থাপন করেন। ১৮৫০ সালে ব্যাপকভাবে ট্রেড ইউনিয়ন গড়ে উঠে। ৮ ঘন্টার কাজের দাবিতে আন্দোলন ক্রমশ: জোরদার হতে থাকে। ১৮৮৬ সালে পহেলা মে শিকাগো শহরের হে মার্কেটের ১১ জন শ্রমিক আত্মদানের মধ্য দিয়ে শুরু হয় ৮ ঘন্টার শ্রম ঘন্টার আন্দোলন জনপ্রিয় হয়ে উঠে। এ দাবি বাস্তবায়নের অনেক শ্রমিক হতাহত ও গ্রেফতার বরণ করেছিলেন। এদেশের শ্রমিক সহ সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার বাস্তবায়ন ১৯৭১ এ মহান মুক্তিযুদ্ধের মাধ্যমে শোষণহীন সমাজ ব্যবস্থা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে অর্জিত বাংলার স্বাধীনতা। দেশের শ্রমিক সমাজ সহ সর্বস্তরের মানুষের গলতান্ত্রিক অধিকার বাস্তবায়নে বর্তমান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী সরকার শ্রম অধিকার বাস্তবায়ন করতে পারলে মেহনতি মানুষের কল্যান বয়ে আনবে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: