সর্বশেষ আপডেট : ২১ মিনিট ২৬ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সাংবাদিক সাইফুলকে কারাগার থেকে হাসপাতালে

unnamedএম. মছব্বির আলী:: পুলিশী নির্যাতনে গুরুতর আহত সাংবাদিক সাইফুল ইসলামকে ৩০ এপ্রিল বৃহস্পতিবার সকালে জেলা কারাগার থেকে মৌলভীবাজার ২৫০ শয্যার হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়ার জন্য নিয়ে আসা হয়েছিল। তখন তাকে দেখার জন্য জেলা সদরে কর্মরত সাংবাদিকারা হাসপাতালে ভিড় জমান। সাইফুল ইসলাম, দৈনিক জনতা, সাপ্তাহিক পাতাকুঁড়ির দেশ ও বাংলা ট্রিবিউন এর শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রতিনিধি দীর্ঘদিন ধরে কাজ করছেন। হাসপাতালে সাইফুল ইসলাম তাকে দেখতে আসা সাংবাদিকদের জানান, ২৩ এপ্রিল বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে দশটায় ল্যাপটপ, ব্যবহৃত কাপড়, মোবাইল ফোন ও নগদ ৩০ হাজার টাকাসহ নিজ বাসা শ্রীমঙ্গল শহরের পূর্বাশা এলাকায় যাওয়ার সময় শ্রীমঙ্গল শহরের ক্যাথলিক মিশন রোড এলাকা থেকে সাদা পোশাকধারী কয়েকজন তাকে ঝাপটে ধরে।

ঐরাতে তিনি জরুরী কাজে ঢাকা যাওয়ার কথা ছিল। পরে তিনি চিনতে পারেন, শ্রীমঙ্গল থানার ওসি আব্দুল জলিল, পুলিশ উপ-পরিদর্শক (এসআই) গিয়াস উদ্দিন ও পুলিশ উপ-পরিদর্শক (এসআই) জাকিরসহ আরও কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে। এরপর তাকে শ্রীমঙ্গল থানা হাজতে আটকে রেখে চোখ বেঁধে সারা রাত অমানুষিক নির্যাতন করে ওসি আব্দুল জলিল এসআই গিয়াস উদ্দিন, এসআই জাকির, মৌলভীবাজার জেলা সদরে কর্মরত ট্রফিক সার্জেন্ট মাহফুজসহ আরও কয়েকজন পুলিশ সদস্য। নির্যাতনের এক পর্যায়ে সাইফুল সজ্ঞাহীন হয়ে পরেন। এ অবস্থায় শ্রীমঙ্গল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে তাকে ইন্জেকশন পুশ করে নিয়ে আসেন। পুলিশী নির্যাতনে পরনের শার্ট ও প্যান্ট ছিড়ে যায়। পরে ওসি জলিল সাইফুলের সাথে থাকা ফুল সার্ট ও প্যান্ট পরিয়ে সকালে শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে এনে দেখান সাইফুল অক্ষত।

পরদিন শুক্রবার তাকে মৌলভীবাজার জেলা কারাগারে পাঠানো হয়। তিনি আরো জানান, শ্রীমঙ্গল থানার ওসি আব্দুল জলিলের বিভিন্ন অনিয়ম ও দূর্নীতির সংবাদ প্রকাশের জের ধরে শ্রীমঙ্গলের ভৈরববাজার এলাকায় ট্রাকে পেট্টোল বোমা মারার পরিকল্পনাকারী সাজিয়ে ২৩ জানুয়ারি পুলিশ বাদী হয়ে একটি হয়রানীমূলক মিথ্যা মামলা দায়ের করে ওই মামলায় সাংবাদিক সাইফুলকে আসামী করা হয়। বেলা ১২টায় মৌলভীবাজার সদর সার্কেলের সহকারি পুলিশ সুপার (এএসপি) মোঃ আশরাফুল ইসলাম হাসপাতালে তার মেয়ের চিকিৎসার জন্য নিয়ে গেলে সেখানে উপস্থিত সাংবাদিকদের দেখে এগিয়ে যান। তখন সাংবাদিকরা সাইফুল ইসলামকে দেখতে বললে তিনি তার কাছে গিয়ে তার শরীরে পুলিশী আঘাতের চিহ্নগুলো দেখেন। সহকারি পুলিশ সুপার সাইফুলের অবস্থা দেখে বলেন, এটা খুবই অমানবিক ব্যাপার ঘটেছে, এ বিষয়ে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে তিনি উপস্থিত সাংবাদিকদের আশ্বস্থ করেন। এ সময় শ্রীমঙ্গল উপজেলা প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক বিকুল চক্রবর্ত্তীও সেখানে উপস্থিত ছিলেন। তিনি সাংবাদিক সাইফুল ইসলামের উপর পুলিশী নির্যতনের চিহ্ন স্বচক্ষে দেখে ক্ষোভ ও নিন্দা প্রকাশ করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: