সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রাজাকার তিতুমীরের ভূমির লীজ বাতিলের দাবীতে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলা প্রশাসকের কাছে অভিযোগ দায়ের

20.-chhatakসুনামগঞ্জ প্রতিনিধি::
ছাতক পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃত হাসান আলীর পুত্র তিতুমীরের নামীয় সরকারী বন্দোবস্তীয় ভূমির লীজ বাতিলের দাবীতে সুনামগঞ্জ ও সিলেট এর জেলা প্রশাসক বরাবরে পৃথক দুটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগে প্রকাশ, ৭১ এর সক্রিয় রাজাকার তিতুমীরকে ৪ দলীয় জোট সরকারের শাসনামলে সুনামগঞ্জ জেলার ছাতক উপজেলার রাতগাঁও মৌজার ১ খতিয়ানের ২৬০০ দাগের ১০ একর জমি,পৌর এলাকার মন্ডলীভোগ মৌজার পুরাতন হাসপাতাল ও সরকারী পুকুরের ভূমি এবং সিলেট জেলার কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার দূর্গাপুর ও নিজগাও মৌজার ১৫০সহ বিভিন্ন খতিয়ানের ৩৮ নং দাগের প্রায় ১০ একর ভূমি অবৈধভাবে বন্দোবস্ত দেয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার সকালে অভিযোগটি দায়ের করেছেন,উপজেলার বাঁশকালা গ্রামের বীর মুক্তিযোদ্ধা আজাদ মিয়া। অভিযোগে প্রকাশ,৭১ এর মুক্তিযুদ্ধের সময় তিতুমীর ও তার পিতা হাছান আলী রাজাকার কমান্ডার হিসেবে ছাতকসহ বিভিন্ন এলাকায় সাধারন মানুষ ও মুক্তিযোদ্ধাদের নির্বিচারে হত্যা করেছেন। তাহাদের পরিবারে মোট রাজাকারের সংখ্যা ছিল ১২ জন। স্থানীয় হিন্দু পরিবারের বাড়িঘর দোকানপাট লুঠতরাজসহ অনেকের বাড়িতে রাজাকার তিতুমীরের নেতৃত্বে অগ্নি সংযোগ করা হয়েছিল। দেশ স্বাধীনের পর রাজাকার তিতুমীর বিএনপির রাজনীতিতে পূনর্বাসিত হয়ে বিভিন্ন ভূয়া নামে সমবায় সমিতি গঠন করত ছাতক উপজেলা বিআরডিবির চেয়ারম্যানের পদটি হাতিয়ে নেন। অবৈধভাবে ৩৩ বছর বিআরডিবির চেয়ারম্যানের ক্ষমতার দাপটে প্রতারনার মাধ্যমে সরকারী ঋনের কোটি কোটি টাকা জালিয়াতি প্রতারনার মাধ্যমে আত্মসাৎ করেছেন। প্রবীন সাংবাদিক সালেহ চৌধুরী সম্পাদিত “মুক্তিযুদ্ধে সুনামগঞ্জ” ও এডভোকেট বজলুল মজিদ চৌধুরী সম্পাদিত “রক্তাক্ত ৭১”সহ মুক্তিযুদ্ধের উপর স্থানীয়ভাবে লেখা সবকটি বইতে রাজাকার তিতুমীর কর্তৃক পাকবাহিনীকে গাইড করে এলাকায় আইন শৃঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতি সাধনের অনেক অজানা কাহিনী উপস্থাপন করা হয়েছে। এর পূর্বে আন্তর্জাতিক মানবতাবিরোধী অপরাধ ট্রাইব্যুনালে উক্ত রাজাকারের বিরুদ্ধে মুক্তিযোদ্ধা আজাদ মিয়া লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। ছাতকের মুক্তিযোদ্ধারা বলেছেন,স্বাধীনতার ৪৪ বছর অতিবাহিত হওয়ার পরও আমাদের মতো শত শত মুক্তিযোদ্ধাদের পূনর্বাসণ হয়নি। এখনও অনেক প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা রয়েছেন যাদের সত্যিকার অর্থেই কোন মাথাগুজার ঠাই নেই। অথচ একজন রাজাকারের নামে ছাতক ও কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় বিশাল ভূসম্পত্তি বন্দোবস্ত দিয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উপর আঘাত হানা হয়েছে। আমরা অবিলম্বে ভূমিদস্যু তিতুমীরের নামীয় সকল বন্দোবস্তীয় সরকারী সম্পত্তির লীজ বাতিলের জন্য ভূমিমন্ত্রী ও জেলা প্রশাসকদের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: