সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রাজনগরে ৩০ হাজার শ্রমিক ম্যালেরিয়া ঝুঁকিতে

daily sylhet newsজালাল আহমদ::
মৌলভীবাজারের রাজনগর উপজেলায় পালিত হল বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস। “ভবিষ্যতের বিনিয়োগ, কমাবে ম্যালেরিয়া” এই প্রতিপাদ্য বিষয়কে সামনে রেখে দিবসটি পালন গত শনিবার এক বর্নাঢ্য র‌্যালি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়। র‌্যালিটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চত্ত্বর থেকে শুরু হয়ে বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে পুনরায় উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে শেষ হয়। পরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও সহযোগী সংস্থা বিডিএসসি’র আয়োজনে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সভাকক্ষে আলোচনা সভা হয়। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা: পার্থ সারথী দত্ত কাননগো’র সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি ছিলেন রাজনগর উপজেলা চেয়ারম্যান আছকির খান। উপজেলা বিডিএসসি’র ম্যানেজার ওমর ফারুকের সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ডা: বর্ণালী দাশ।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, রাজনগর উপজেলার পশ্চাদপদ চা শ্রমিকসহ প্রায় ৩০ হাজারেরও বেশি মানুষ ম্যালেরিয়া ঝুঁকিতে রয়েছেন। শিক্ষা ও পরিবেশ সচেতনতার অভাবে এসব এলাকার মানুষজন প্রতিনিয়ত ম্যালেরিয়ার ঝুঁকি মোকাবেলা করছেন। ম্যালেরিয়ার ব্যাপারে অসচেতন চা জনগোষ্ঠি ও নি¤œাঞ্চলের মানুষদের সচেতনতার পাশাপাশি প্রতিরোধে ভূমিকা নেওয়ার প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। এ বিষয়ে সরকারের ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচির আওতায় উপজেলার ৪টি ইউনিয়নের জনগণকে নিয়ে কাজ করছে এনজিও সংস্থা বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট সার্ভিস সেন্টার (বিডিএসসি)। রাজনগর উপজেলায় ফাঁড়ি বাগানসহ মোট ১২টি চা বাগান রয়েছে। এসব চা বাগানে মোট জনসংখ্যা প্রায় ৩০ হাজার।

দেশের ম্যালেরিয়া ঝুঁকিপ্রবণ জেলার মধ্যে অন্যতম সীমান্তবর্তী মৌলভীবাজার জেলা। বিশেষ করে পাহাড়ি অঞ্চলের চা জনগোষ্ঠি ও হাওর এলাকার লোকজন। ২০০৭ সাল থেকে আন্তর্জাতিক সংস্থা গ্লোবাল ফান্ড ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের অর্থায়নে এনজিও সংস্থা বিডিএসসি রাজনগরে ম্যালেরিয়া নিয়ন্ত্রণে কার্যক্রম শুরু করে। সংস্থার মাধ্যমে উপজেলার পাহাড়ি চা বাগান ছাড়াও ম্যালেরিয়া ঝুঁকিপ্রবণ রাজনগর সদর, টেংরা, মুন্সিবাজার ও উত্তরভাগ ইউনিয়নে কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। সংস্থাটির অধীনে কার্যক্রম কতোটুকুই হচ্ছে তা খতিয়ে দেখার কেউ নেই। প্রতি বছর ২৫ এপ্রিল বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবস উপলক্ষে এ সংস্থার পক্ষ থেকে র‌্যালি ও আলোচনা সভা করে জানানো হয় তাদের কার্যক্রমসমূহ। কিন্তু এ কার্যক্রম কাগজের বাইরে বাস্তবতায় কি পর্যায়ে রয়েছে তা কেউ জানে না।

বিডিএসসি’র হিসাব অনুযায়ী, রাজনগর উপজেলার ৩টি ইউনিয়নের ১২টি চা বাগান এলাকায় ২০০৭ সাল থেকে এখন পর্যন্ত বিভিন্ন বিষয়ে ১৫ হাজার ৮৬৫ জনের রক্ত পরীক্ষা করে ৬৫৭জন পজিটিভ পাওযা যায়। তন্মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে মোট ৬১২ জন ম্যালেরিয়া রোগীকে চিকৎসা দেওয়া হয়েছে। ৩৯ হাজার এলএল আইএন মশারি বিতরণ করা হয়েছে। ৬৫ হাজার ৯৬০টি মশারি কীটনাশক ঔষধে চুবানো হয়েছে। তবে বাগান সংশ্লিষ্ট অনেকেই মনে করছেন, ম্যালেরিয়া প্রবণতা এখনও ঝুঁকির মধ্যেই আছে। এ কার্যক্রম আরওা গতিশীল করা প্রয়োজন।

গত ২৫ এপ্রিল বিশ্ব ম্যালেরিয়া দিবসে রাজনগর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিডিএসসি ২০০৭-২০১৫ সাল পর্যন্ত তাদের পরিচালিত কার্যক্রম তুলে ধরে। এতে দেখা যায়, বিগত ৯ বছরে বিভিন্ন বিষয়ে রক্ত পরীক্ষা করা হয়েছে ১৫৮৬৫ জন, পজিটিভ ৬৭৫, ফেলসিপেরাম ১৬, ভাইভেক্স ৫৪২, মিক্স ৩, আরডিটি পরীক্ষা ১৪৫৩, পজিটিভ-৯৬, মোট পজিটিভ ৬৬৭, মোট চিকিৎসা প্রদান ৩০৬, পিএফ রোগীর চিকিৎসা প্রদান ১০৭, পিভি রোগীর চিকিৎসা প্রদান ১৯৬, মোট রেফার রোগী ৩৫১, এলএল আইএন মশারি বিতরণ ৩৯ হাজার, মশারি চুবিয়ে দেওয়া হয়েছে ৬৫ হাজার ৯৬০টি, বিসিসি ওরিয়েন্টেশন ৩০টিসহ বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা করা হয়েছে। কিন্তু এতোসব কর্মযজ্ঞ করা হলেও ম্যালেরিয়ার ঝুঁকিতে থাকা চা শ্রমিক ও হাওরাঞ্চলের লোকদের নিয়ে কি করা হয়েছে তা বলা হয়নি। উত্তরভাগ চা বাগানের দীপক কৈরী বলেন, আমাদের বাগানে প্রায় ৮-৯ হাজার মানুষ বাস করে তবে কি পরিমাণ ম্যালেরিয়া রোগী আছে আমরা জানি না। বাগানের হাসপাতালে গুরুত্বপূর্ণ রোগী ছাড়া বাকিদের চিকিৎসা দেওয়া হয়। করিমপুর চা বাগানের মেম্বার অজিত বাউরী জানান, ম্যালেরিয়ার কি চিকিৎসা দেওয়া হয় আমরা জানিনা। আমাদের বাগানের অনেকেই এখনও মশারি পায়নি। এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ডেভেলপমেন্ট সার্ভিস সেন্টার (বিডিএসসি) এর ব্যবস্থাপক ওমর ফারুক জানান, এ উপজেলার চা বাগান এলাকায়ই ম্যালেরিয়া রোগীর সংখ্যা বেশি। চা বাগানগুলোতে মশারি এবং চুবানো মশারি দেওয়া হচ্ছে। ম্যালেরিয়ার ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও গ্লোবাল ফান্ড থেকে যা পাওয়া যায় তাই বিতরণ করা হয়। আমরা চাহিদা অনুযায়ী সরঞ্জাম পাচ্ছিনা।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: