সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
শুক্রবার, ২ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জেনে নিন কিয়ামতের আলামত…

unnamed (6)নিউজ ডেস্ক::
কিয়ামতের আলামত গুলো মোটামুটি একটি ক্রমধারা রক্ষা করে দেওয়ার চেষ্টা করলাম আমরা । তবে ভবিষ্যতের আলামতগুলোর সঠিক ধারা বর্ণনা করা সম্ভব নয় ।
রাসূলুল্লাহ (সা) বলেন, ” কিয়ামতের আলামত গুলো ( বড় ) একটির পর একটি এমন ভাবে প্রকাশ পাবে যেন একটি পুতির মালা কেটে দিলে তা একটির একটি পরতে থাকে । ” ( আল জামী আস সাগীর ৩/১৬৭)
আল্লাহ বলেন–
• তারা শুধু এই অপেক্ষাই করছে যে, কেয়ামত অকস্মাৎ তাদের কাছে এসে পড়ুক। বস্তুতঃ কেয়ামতের লক্ষণসমূহ তো এসেই পড়েছে। সুতরাং কেয়ামত এসে পড়লে তারা উপদেশ গ্রহণ করবে কেমন করে ? (সূরা মুহাম্মদ :১৮ )

অতীত:
চাঁদের দ্বিখণ্ডিত হওয়া
মুহাম্মদ(সা) এর মৃত্যু
কোন কারনে হাজার হাজার মুসলিমের মৃত্যু ( উমার (রা) এর সময় আমওয়াস এর প্লেগকে ধারনা করা হয় )
মদীনায় একটি বড় যুদ্ধ (ইয়াজিদের খিলাফতের সময় ৬৩ হিজরিতে আল হাররাজের যুদ্ধকে ধারনা করা হয়)
মুসলিমদের জেরুজালেম জয়
মুসলিমদের কন্সটান্টিপল জয়
মুসলিমদের দুই পক্ষের নিজেদের মধ্যে যুদ্ধ
মুসলিমদের সাথে লাল গাত্রবর্নের ছোট চোখওয়ালা, চুলের সেন্ডেল পরা জাতির যুদ্ধ (মঙ্গোলদের ইসলামিক রাজ্যে আক্রমনকে ধারনা করা হয়)
মুসলিম ও অমুসলিম হলদে গাত্রবর্নের জাতিদের মধ্যে শান্তিচুক্তি (মঙ্গল, চাইনিজ ইত্যাদি )
৩০ জন ভন্ড নবীর ( দাজ্জাল ) আবির্ভাব হবে ( যাদের আগমন চলছে )

বর্তমান:
উলঙ্গ, দুঃস্থ, খালি পায়ের মেষ পালক উঁচু দালান বানানোর প্রতিযোগিতায় লিপ্ত হবে।
দাসী তার মালিকের জন্ম দিবে।
আরবের প্রতি ঘরে একটি ফিতনাহ প্রবেশ করবে।
জ্ঞানের গভীরতা নিয়ে নেয়া হবে এবং অজ্ঞতা বিস্তার লাভ করবে।
মদ্যপান হালাল মনে করবে।
অবৈধ যৌনাচার বিস্তার লাভ করবে।
ভূমিকম্প বেড়ে যাবে।
সময় অনেক দ্রুত যাবে।
দুঃখ কষ্ট বেড়ে যাবে।
রক্তপাত বেড়ে যাবে।
কেউ কোন কবরের পাশ দিয়ে যাবার সময় ভাববে যদি সে তার পূর্বের মানুষের জায়গায় থাকত।
মানুষের মধ্যে বিশ্বাসযোগ্যতা হারিয়ে যাবে; যারা নেতৃত্বের যোগ্য না তারা নেতৃত্ব পাবে।
মানুষ নামাজের জন্য একত্রিত হবে কিন্তু কোন ইমাম পাবে না।
গান বাজনা এবং গায়িকার সংখ্যা বেড়ে যাবে।
মসজিদ নিয়ে লোকেরা গর্ব করবে।
মুসলমানেরা শির্কে লিপ্ত হবে।
ঘন ঘন বাজার হবে।
আত্মীয়তার সম্পর্ক ছিন্ন করা হবে।
লোকেরা কালো রং দিয়ে চুল-দাড়ি রাঙ্গাবে।
কৃপণতা বৃদ্ধি পাবে।
ব্যবসা-বাণিজ্য ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়বে।
পরিচিত লোকদেরকেই সালাম দেয়া হবে।
মহিলাদের জন্য এমন পোষাক আবিস্কার হবে যা পরিধান করার পরও মহিলাদেরকে উলঙ্গ মনে হবে।
সুন্নাতী আমল সম্পর্কে গাফিলতী করবে।
নতুন মাসের চাঁদ উঠার সময় বড় হয়ে উদিত হবে।
মিথ্যা কথা বলার প্রচলন বৃদ্ধি পাবে।
মিথ্যা সাক্ষ্য দেয়ার প্রচলন ঘটবে।
হঠাৎ মৃত্যুর বরণকারীর সংখ্যা বৃদ্ধি পাবে।

ভবিষ্যৎ:
ভূমি ধস ও চেহারা বিকৃতির শাস্তি দেখা দিবে
মু’মিনের স্বপ্ন সত্য হবে
জড় পদার্থ এবং হিংস্র পশু মানুষের সাথে কথা বলবে
কাহতান গোত্র থেকে একজন সৎ লোক বের হয়ে মুসলিমদের নেতৃত্ব দিবেন
প্রচুর বৃষ্টিপাত হবে, ফসল হবেনাঃ
পুরুষের সংখ্যা কমতে থাকবে, নারীর সংখ্যা বাড়তে থাকবে যতক্ষন না ১জন পুরুষের বিপ্রীতে ৫০ জন নারী হয়
ইউফ্রেতিসে সোনা আবিস্কার হবে, সেই সোনা লাভের উদ্দেশ্যে যুদ্ধ হবে আর তাতে অনেকে মারা যাবে
রোমান(ইউরোপিয়ান)রা আ’মাক বা ওয়াবিক নামক জায়গায় যাবে আর মদীনা থেকে সেরা যোদ্ধাদের সেনাবাহিনী তাদের মুখোমুখি হতে যাবে
মুসলিমরা রোম জয় করবে
ইমাম মাহদী আসবে
দাজ্জাল বা অ্যান্টিক্রিস্ট আসবে, তার ধোঁকাবাজির সকল উপাদান নিয়ে বিশাল বিজয় পাবে। ইরানের ৭০০০০ হাজার ইহুদী তার অনুসারী হবে
ঈসা(আ) দামাস্কাসে নেমে আসবেন এবং মাহদী এর পেছনে দাঁড়িয়ে নামাজ পড়বেন
ইমাম মাহদী এর নেতৃত্বে মুসলিম(যেসব ইহুদী ও খ্রিস্টান যীশু(আ) ফিরে আসার পর তার উপর সত্যিকারের বিশ্বাস আনবে তারাও এর অন্তর্ভুক্ত)ও ইহুদী ও অন্যান্য অমুসলিমদের বড় একটি যুদ্ধ হবে
ঈসা (আ) দাজ্জালকে হত্যা করবেন লুদ এর প্রবেশ পথে বর্তমানে এটি ইসরাইলের একটি এয়ারপোর্ট ও মেজর মিলিটারি বেস)
ঈসা (আ) ক্রশ ভেঙ্গে ফেলবেন, শুকর হত্যা করবেন। মিথ্যা খ্রিস্ট ধর্মের পতন ঘটাবেন
ইয়াজুজ-মাজুজের আবির্ভাব হবে
ঈসা (আ) এর বাকী সময় অসাধারন শান্তি ও সমৃদ্ধি বিরাজ করবে
সবার এতো বেশি সম্পদ হবে যে যাকাত দেবার লোক পাওয়া যাবে না
আরব বাগান ও নদীর দেশে পরিনত হবে
সমাজ আবার খারাপের দিকে যাওয়া শুরু করবে
যুলখুলসাহ দেবমূর্তির চারপাশে আবারো জাওস গোত্রের নারীরা নিতম্ব দুলিয়ে তাওাফ করবে
বশরার অধিবাসীরা হিজাজের ভয়ংকর আগুন দেখতে পাবে
পৃথিবীর তিনটি বড় সেনাদল পৃথিবীতে নিমজ্জিত হবে। একটি পূর্বে, একটি পশ্চিমে, একটি আরবে
সরু পায়ের আবিসিনিয়ান (নিগ্রো) নেতা কাবা ধ্বংস করবে
ধোঁয়ার বিশাল মেঘ আসবে
সূর্য পশ্চিম দিকে উঠবে
দাবাতুল আরদের আবির্ভাব হবে মুসা(আ) এর লাঠি এবং সোলায়মান(আ) এ আংটি নিয়ে, সে মানুষের সাথে কথা বলবে, এবং ঈমানদার ওকাফেরদের চিহ্নিত করবে
একটি বাতাস এসে সকল বিশ্বাসীদের আত্মা নিয়ে যাবে
পৃথিবীতে “আল্লাহ সেরা” বা “আল্লাহ ছাড়া আর কোন প্রভু নেই” বলার মত কেউ থাকবে না
সবচেয়ে খারাপ লোকদের উপর কিয়ামত আসবে
কিয়ামতের সবচেয়ে প্রধান আলামত হিসেবে ঠিক আগের দিন ইয়েমেন থেকে একটা আগুনের আবির্ভাব হবে আর মানুষদের তাদের মিলিত হবার স্থানে একত্রিত করবে
ইস্রাফিল(আ) এর শিঙা বাজানো যার ফলে সবাই মারা যাবে

সূত্র : askislambd.weebly.com

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: