সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ৩৪ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সুনামগঞ্জে ভূমিকম্পে ১৯ ছাত্রছাত্রী আহত

daily sylhetআল-হেলাল, সুনামগঞ্জ::
রবিবার বেলা ১.১২টায় সারাদেশের ন্যায় সুনামগঞ্জ জেলায় আবারও ভুমিকম্প হয়েছে। বড় ধরনের তেমন কোন ক্ষতি না হলেও এই মৃদু ভূকম্পন অনুভূত হওয়ার সাথে সাথে বিভিন্ন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র ছাত্রীরা ভয়ে কম্পমান হয়ে অজ্ঞান হয়ে পড়ে। আশঙ্কাজনক অবস্থায় বেশ কয়েকজন ছাত্র ছাত্রীকে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। ভূমিকম্পে অজ্ঞান হয়ে পড়লে শহরের মল্লিকপুর আবাসিক এলাকার বিন্দু দাসের পুত্র জ্যোতি দাস (১০),ষোলঘর আবাসিক এলাকার ফনীভূষন দাসের পুত্র হিমু দাস (১৩) ও মাইজবাড়ি গ্রামের ইদ্রিছ আলীর কন্যা লাকি বেগম (১৫) কে জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসাসেবা দেয়া হয়। জেলা সদর হাসপাতালের ডাঃ অতনু ভট্রাচার্য্য বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন,ভূকম্পনের মারাত্মক ভয়ে তারা অজ্ঞান হয়ে পড়েছেন। ভূমিকম্পনের সময় শহরের সরকারী কালীবাড়ী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে ১০শিক্ষার্থী আহত হয়।

এ সময় বিদ্যালয়ের সামনের দিকে কিছুটা অংশ ডেবে যায়। এসময় আতঙ্কিত স্কুল কলেজের শিক্ষার্থী ও আশপাশের লোকজন বাড়িঘর থেকে বের হয়ে রাস্তায় নেমে আসেন। অপরদিকে শহরের মল্লিকপুর মডেল সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের দুটি ভবণে ফাটল ধরেছে। এ সময় আরো ৩ জন শিক্ষার্থীসহ মোট ১৩ জন আহত হয়েছে। তাদেরকে সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছ। দ্বিতীয় দিনের ভুমিকম্পে মানুষের মাঝে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ভূমিকম্পনের সময় বিভিন্ন পুকুরের পানি রাস্তায় উঠে আসে। এ ব্যাপারে মল্লিকপুর মডের সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক বাবু কানন বন্ধু রায় জানান, ‘ভূমি-কম্পের সময় আতঙ্কিত শিক্ষার্থীরা তাড়াহুড়ো করে নামতে গিয়ে কয়েকজন আহত হয়’।

এছাড়াও জেলার ছাতক উপজেলায় অনুরুপ আকস্মিক ভূমিকম্পে ৩ স্কুলছাত্রী অজ্ঞান হয়ে পড়ে। কম্পনের ঝাকুনী অনুভুত হলে উপজেলার গোবিন্দগঞ্জ বহুমুখি উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের মাঝে ছড়িয়ে পড়ে আতংক। প্রায় ৪৫ সেকেন্ড স্থায়ী ৭.৩ মাত্রার ভুমিকম্প চলাকালে ৩ ছাত্রী জ্ঞান হারিয়ে মাটিতে লুটে পড়ে। এর মধ্যে রাজমিনা আক্তার নামের দশম শ্রেণির এক ছাত্রীকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় সিলেটস্থ এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। সে ছৈলা আফজলাবাদ ইউনিয়নের শ্যামনগর গ্রামের রহমত আলীর কন্যা। অজ্ঞান অবস্থায় একই গ্রামের মনাই মিয়ার কন্যা ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী নার্গিস আক্তার ও একই বিদ্যালয়ের ৭ম শ্রেণির ছাত্রী নুছরাত ইসলামকে স্থানীয়ভাবে বাড়িতে নিয়ে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: