সর্বশেষ আপডেট : ২ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

সিলেটে ব্যাটারী চালিত রিক্সার চোরাই চার্জ ব্যবসা জমজমাট : এ খ্যাতে লেনদেন প্রায় ২৭ কোটি টাকা

dailysylhet_rikshaস্টাফ রিপোর্টার :
সিলেট মহানগরী দক্ষিণ সুরমা ও শহর তলীতে প্রায় ৮ হাজার ব্যাটারী চালিত রিক্সা ও ৩ হাজার ইজিবাজই (টমটম) অবৈধ ভাবে চলাচল করছে। আর এসকল অবৈধ যানবাহন চোরাই পথে বিদ্যুতের চার্জ দেয়ায় প্রতিমাসে ৩৫ হাজার ইউনিট বিদ্যুতের অপচয় হচ্ছে। এর ফলে রাজস্ব আয় হারাচ্ছে সরকার । সিলেট বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ড পিডিবি, অটোরিক্সা ও ইজিবাইক মালিক সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।

উচ্চ আদালত, সিটি কর্পোরেশন ও খোদ যোগাযোগ মন্ত্রীর নির্দেশ থাকা সত্তেও সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশ প্রশাসন ব্যাটারী চালিত রিক্সা ও ইজিবাইক বন্ধে কোন পদক্ষেপ নিচ্ছেনা এমন অভিযোগ রয়েছে। তবে গত কয়েক দিন আগে পায়ে চালিত রিক্সা ও হাতা (ঠেলা) গাড়ী নবায়ন না করায় পুলিশ আটক করলেও ব্যাটারী চালিত রিক্সা রয়ে গেছে ধরা ছোয়ার বাইরে। খোজ নিয়ে জানা গেছে,  সিলেট মহানগর, দক্ষিণ সুরমা ও শহর তলীর বিভিন্ন স্থানে প্রায় অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের গ্যারেজ রয়েছে। অধিকাংশ গ্যারেজে ১১ কোবি বিদ্যুৎ লাইন থেকে চোরাই পথে বিদ্যুৎ নিয়ে এক শ্রেণীর লোক চার্জের জমজমাট ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

ব্যাটারী চালিত রিক্সা এক চার্জ ৫০ টাকা। দুই চার্জ ৮০ টাকা, এবং ইজিবাইক ১শ টাকা দিয়ে চার্জ দেয়া হয়। নগরীর শিবগঞ্জ, টিলাগড়, যতরপুর, লালদিঘীরপাড়, উপশহর, চালিবন্দর, তেররতন, লাকড়ীপাড়া, ঈদগা, বালুচর, আম্বরখানা, ইলেকট্রিক সাপ্লাই এলাকা, বড়বাজার, লেচু বাগান, খাসদবীর, গোয়াইপাড়া, সুবিদবাজার, বনকলাপাড়া, আখালিয়া, টুকেরবাজার, হাদারপাড়া, উপরপাড়া, পাঠানটুলা, মদিনা মার্কেট, বৃহত্তর বাগবাড়ী, নরসিং টিলা, কানিশাইল, ঘাসিটুলা, মজুমদারপাড়া, কলাপাড়া, মোল্লাপাড়া, নবাবরোড, শেখঘাট, কুয়ারপার, লালাদিঘীরপার, নন্দীপাড়া, লামাবাজার, বিল পার, মুন্সিপাড়া, কাজলশাহ, কাজল হাওরে, রামের দিঘীরপার, ফাজিল চিশতী, জালালাবাদ, মীরের ময়দান, পুরাতন মেডিকেল কলোনী এলাকা, দাড়িয়াপাড়া, মির্জাজাঙ্গাল, ভাতালিয়া, তালতলা, মাসুদিঘীরপার, কাজিরবাজার (পূর্ব ও পশ্চিম), খুলিয়াপাড়া, খুলিয়াটুলা, টিকরপাড়া স্মৃতি আবাসিক এলাকা, বন্দরবাজার, পুরান লেইন, জিন্দাবাজার, চৌহাট্টা এলাকা, হাওয়াপাড়া, বারুতখানা, নয়াসড়ক, মানিকপীর এলাকা, কুমারপাড়া, চারাদিঘীর পাড়, মহাজনপট্টি ও ছড়ারপার।
দক্ষিণ সুরমার শিববাড়ী, পাঠানপাড়া, গালিমপুর, কদমতলী, মোনিখলা, ভার্থখলা, ঝালোপাড়া, স্টেশন রোড, টেকনিক্যাল রোড, বরইকান্দি লাউয়াই, গোটাটিকর এবং শহরতলীর কুমারগাঁও শাহপরান, শীবেরবাজার, টুকেরবাজার এলাকা ঘুরে রিক্সা চার্জের অবৈধ সংযোগের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অন্য এক জরিপে দেখা যায়, একটি ব্যাটারী চালিত রিক্সা প্রতিদিন চার্জ নিতে খরচ করে ৫০ টাকা। এভাবে নগরীতে ১৫ হাজার ব্যাটারী চালিত রিক্সা চার্জ হতে খরচ হয় ৭ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। যা মাস শেষে দাড়ায় ২ কোটি ২৫ লক্ষ টাকায়। অর্থাৎ বছর শেষে প্রায় ২৭ কোটি টাকার লেন-দেন হয় এই ব্যাটারী চালিত অবৈধ রিক্সা চলাচলে। এর কতটুকুই বা সরকারে বিদ্যুৎ কোষাগারে জমা হচ্ছে তা প্রশ্নবিদ্ধ।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রিক্সা গেরেজের মালিক জানান, সিলেট নগরীতে প্রায় ১৫ হাজার ব্যাটারী চালিত অবৈধ রিক্সা/টমটম রয়েছে। এদের সচল রাখতে যে চার্জার ব্যাবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠেছে এগুলো বেশির ভাগই বিদ্যুৎ বিভাগের কিছু অসৎ কর্মচারীর হস্তক্ষেপে গড়ে উঠেছে। এরা অবৈধ পথে বিদুৎ সংযোগ দিয়ে বেশ কিছু অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে । ফলে সরকার বিপুল পরিমান রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে প্রতিনিয়ত।

ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা সমিতির মালিকরা জানিয়েছেন ৬ মাসের জন্য সমিতির প্লেট প্রতি ৩ থেকে ৪ হাজার টাকা আদায় করা হয়। প্রতি সদস্যকে সমিতির নামে একটি নতুন প্লেইট দেয়া হয়। তারা জানান এই নাম্বার প্লেইট ধারী রিক্সার চালককে ট্রাফিক পুলিশ থেকে হয়রানী করা হয় না। দেশের অন্যান্য বিভাগীয় ও জেলা শহরগুলোতে ব্যাটারী চালিত রিক্সা চলাচলে উচ্চ আদালতের নিশেধাজ্ঞা থাকলেও সিলেটে এগুলো চলছে অবাধে। অবৈধ এ রিক্সার সংখ্যা দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। ফলে প্রতিদিন ঘটছে নানা দুর্ঘটনা।

riksa_dailysylhetট্রাফিক পুলিশ সূত্রে জানা গেছে নানা দেন দরবার করে সিলেটে ৪শ ইজিবাইক চলাচলের অনুমতি দিলেও বর্তমানে চলছে কয়েক হাজার। ব্যাটারী চালিত রিক্সা ও ইজিবাইক অন্যান্য যানবাহনের সাথে পাল্লা দিয়ে চলায় প্রতিদিন নগরীতে ঘটছে সড়ক দুর্ঘটনা। অভিযোগ উঠেছে সিলেটে বিদ্যুৎ উন্নয়ন ১, ২ ও ৩ এর কিছু অসাধু কর্মকর্তা কর্মচারী ও লাইনম্যান এবং পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির লোকজন নগরীর সর্বত্র অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে হাজার হাজার টাকা।

সূত্র জানায়, বিউবি -৩ এর লাইনম্যান রফিকুল ইসলাম মিশুর মালিকানা টেকনিক্যাল রোডে একটি চার্জের গ্যারেজ রয়েছে। সেখানে প্রতিদিন বেশ কিছু রিক্সায় চার্জ দেয়া হয়। এছাড়া দক্ষিণ সুরমায় চ্যাটারী চালিত রিক্সা মালিক সমিতি মিশুর সাথে যোগসাজস করে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে প্রতিদিন বিপুল টাকা আদায় করছে। এ বিষয়ে যানতে চাইরে মিশু জানান টেকনিক্যাল রোডে অবৈধ রিক্সার গ্যারেজটি তার এক আত্মীয়ের। একই ভাবে সিলেট বিউবি ১ ও ২ এর কর্মকর্তারা তাদের পছন্দের লাইন ম্যান ও মিটার রিডার দিয়ে নগরীর রিক্সা গ্যারেজের অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ লাইন নিয়ন্ত্রণ করছে।

বিউবির একাধিক মিটার রিডার সূত্রে জানা যায়, প্রতিটি রিক্সার গ্যারেজ থেকে প্রতিদিন অবৈধ চার্জ বাবদ আয় হয় ৭৫ হাজার টাকা, রিক্সা চার্জের জন্য অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ নেয়া ঘন ঘন ট্রান্সফরমার বিকল হয়ে পড়ে।
সিলেটের বিউবি কর্মকর্তা উজ্জল লাল মোহন্ত জানান, দক্ষিণ সুরমায় এ পর্যন্ত ১৫টি গ্যারেজ থেকে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে।

এদিকে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে ট্রাফিক পুলিশের কিছু অসাধু লোকজনকে মোটা অংকের টাকায় ম্যানেজ করে ব্যাটারী চালিত অটোরিক্সা ও ইজিবাইক নগরীতে অবাধে চলাচল করছে। মাঝে মধ্যে লোক দেখানো কিছু অভিযানচালালেও পরে অদৃশ্য কারনে সেগুলো ছেড়ে দেয়া হচ্ছে। আর এতে সহযোগিতা করে যাচ্ছে সিলেট সিটি কর্পোরেশনের লাইসেন্স শাখার কিছু অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারী।
এ বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ব্যাটারী চালিত রিক্সা মালিক সমিতির প্লেইট এর বিষয়ে ট্রাফিক পুলিশ অবগত নয়। বর্তমানে উচ্চ আদালতে একটি রিট থাকায় তারা ব্যাটারী চালিত রিক্সা ও ইজিবাইক আটক থেকে বিরত রয়েছে। আদালতে এ বিষয়ে সুরাহা হলেই অবৈধ অভিযান শুরু হবে বলে জানা গেছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: