সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

৪৩ বছর পর ক্যামেরার সামনে করন!

unnamed (7)বিনোদন ডেস্ক :: ৪৩ বছর পর ক্যামেরার পিছন থেকে সামনে এসেছেন করন ! ছেলেবেলায় করনের প্রথম মুখের বুলি হয়তো ফুটেছিল ‘লাইট-ক্যামেরা-অ্যাকশন’ দিয়ে। ঘুম ভাঙত তাঁর ক্ল্যাপস্টিকের শব্দে, আর তাঁর দিন শেষ হতো ‘প্যাক-আপ’ বলার সঙ্গে সঙ্গে। এমনটাই তো হওয়া স্বাভাবিক। তাই নয় কি? যশ জোহরের মতো তুখোড় বলিউড প্রযোজকের ঘরে জন্ম নিলে যা হয়! যশ জোহরের একমাত্র ছেলে করন। বাবার ছায়া ধরে এখন তিনিও হয়ে উঠেছেন বলিউডের এক
অপ্রতিরোধ্য লগ্নিকারী। কিন্তু করন আর তাঁর বাবার মধ্যে পার্থক্য হলো, যশ জোহর শুধুই প্রযোজনা আর পরিচালনার গণ্ডিতেই বেঁধে রেখেছিলেন নিজেকে।কিন্তু ছেলে করন নিজেকে তুলে ধরেছেন নানা রূপে, নানাভাবে। কখনো তিনি পরিচালক, কখনো প্রযোজক, কখনো পোশাক নকশাকারী, কখনো উপস্থাপক,কখনো আবার গয়না নকশাকারী। সবশেষ এবার পুরোদস্তুর অভিনেতার তকমাটিও অর্জন করতে যাচ্ছেন এই কুছ কুছ হোতা হ্যায় ছবির নির্মাতা।
‘বোম্বে ভেলভেট’ ছবিতে করন জোহরস্থির দুটো চোখ। তাতে স্পষ্ট ফুটে উঠেছে মৃত্যুর হিমশীতল পূর্বাভাস। ছবিটা একনজর দেখলেই মনে হবে তাঁর অভিব্যক্তি যেন এক ধ্বংসলীলার বার্তা নিয়ে এসেছে। এত বছর ধরে দেখে আসা করন জোহরের সঙ্গে কোনো মিল নেই পোস্টারের মানুষটির। এই করন খুব রূঢ় আর নির্মম। কিন্তু করনের মধ্যে হঠাৎ কেন এমন পরিবর্তন? জবাব পাওয়া খুব কঠিন কিছু নয়। কারণ, করনের এই রূপ এখন বলিউডের সবচেয়ে আলোচনায় থাকা বিষয়ের একটি।
তিনি কিছুদিনের জন্য নিজেকে ‘কাইজাদ খাম্বাতা’র ছাঁচে ঢেলেছেন। প্রথমবার কোনো চলচ্চিত্রের পূর্ণাঙ্গ চরিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। তাই নিজেকে একেবারে বদলে ফেলতেও দ্বিধা করেননি বলিউডের এই নবাগত অভিনেতা।
আগামী ১৫ মে মুক্তি পাচ্ছে অনুরাগ কাশ্যপ পরিচালিত বোম্বে ভেলভেট। ক্রাইম-ড্রামা ঘরানার এই ছবি শুটিং শুরুর আগ থেকেই ছিল আলোচনার তুঙ্গে। এর সঙ্গে করন জোহরের নাম জড়িয়ে নিয়ে গুঞ্জনের মাত্রা যেন আরও বেড়ে গেছে। বলা হচ্ছে, করনকে এই ছবিতে একেবারে ভেঙেচুরে গড়েছেন পরিচালক অনুরাগ। এ জন্যই তো লজ্জা লজ্জা হাসি দিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে সেদিন করন বললেন, ‘আমাকে যদি ভালো দেখায়, সব কৃতিত্ব অনুরাগের। আর যদি খারাপ দেখায়, তখনো সব দায় অনুরাগেরই।’
তবে হ্যাঁ। যদি এই ছবির জন্য সেরা নবাগত অভিনেতার পদকটি আসছে বছর করন পেয়েই যান, তাহলে সেটা কিন্তু ভাগ করবেন না অনুরাগের সঙ্গে। কারণ, করনের খুব ইচ্ছা অভিনেতা হিসেবে একটা পুরস্কার জেতার। এ জন্যই তো সেদিন এর আগে করন অভিনীত সব ছবির কথা একেবারে ডাহা অস্বীকার করে বসলেন। বললেন, ‘এর আগেরগুলো অভিনয় ছিল? ওগুলোকে ভুলে যাওয়া যায় না? সবাই ধরে নিন ৪৩ বছর বয়সে চলচ্চিত্রে আমার অভিষেক ঘটছে।’
সব ভুলে যাব? লাক বাই চান্স, ফ্যাশন, ওম শান্তি ওম কিংবা বলিউড কাঁপানো দিলওয়ালে দুলহানিয়া লে যায়েঙ্গে। তা না হয় সবাই ভুলেই গেল। কিন্তু সব সময় মুখে হাসিমাখা করন যখন বসবেন ঠান্ডা মাথার মাফিয়া ডনের আসনে, তখন তা আঁচড় কাটবে তো?

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: