সর্বশেষ আপডেট : ১৪ মিনিট ৩২ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শাবি শিক্ষকদের আন্দোলনের মুখে পদত্যাগ করছেন ভিসি!

daily sylhet 1 copyস্টাফ রিপোর্টার :: শাবি সংকটের সমাধান না করেই আন্দোলনের মুখে সিন্ডিকেটের জরুরী সভা থেকে ২ মাসের ছুটিতে যাওয়ার ঘোষণা দিলেন শাবি উপাচার্য মো. আমিনুল হক ভুইয়া। তিনি বৃহস্পতিবার সকাল ১০ টায় এক জরুরি সিন্ডিকেট সভা ডেকেছেন। সভা শেষে শারীরিক অসুস্থতা ও পারিবারিক কারণে তিনি ২ মাসের ছুটিতে যাবেন বলে নিশ্চিত করেন ভিসির ব্যক্তিগত সচিব (পিএস) মোঃ কবির হোসেন।

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, এটি হল ভিসি পদত্যাগের প্রাথমিক প্রক্রিয়া। ছুটি শেষে তিনি আর ক্যাম্পাসে ফিরবেন না। ফোরামের আহবায়ক সৈয়দ সামছুল আলম ও সদস্য সহযোগি অধ্যাপক ফারুক উদ্দিন একই দাবি করেছেন।

সিন্ডিকেটের সভায় উপাচার্য ১মে থেকে দুই মাসের জন্য ছুটি চাইলে তা অনুমোদন দেয়া হয় এবং আবেদন সিন্ডিকেট থেকে সরাসরি বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য ও রাষ্ট্রপতি বরাবর প্রেরণ করা হয়।

উপাচার্যের অসদাচরণ, অনিয়ম, পরিবারতন্ত্র, অযোগ্যতাসহ বিভিন্ন কারণে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে আন্দোলন করছেন মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদ। আন্দোলনের অংশ হিসেবে শাবির ৩৫ জন শিক্ষক ৩৭ টি প্রশাসনিক দায়িত্ব থেকে পদত্যাগ করেন। এতে চাপে পড়ে যান শাবি উপাচার্য।

পরবর্তীতে কাউন্সিলের একটি সভা আহবান করে ফরেস্ট্রি বিভাগের প্রধান নারায়ণ সাহার নেতৃত্বে ৫ সদস্যের একটি সংলাপ কমিটি গঠন করেন উপাচার্য। তার চাওয়া ছিল, সংলাপ কমিটি পদত্যাগকারী আন্দোলনরত শিক্ষকদের সাথে সমঝোতা করে শাবিকে স্থিতিশীল করবে। কিন্তু উপাচার্যের সমঝোতা প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেন আন্দোলনরত শিক্ষকরা।

উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে সমঝোতা প্রত্যাখ্যান করে বুধবার মানববন্ধন ও প্রতিবাদ করেন মুহম্মদ জাফর ইকবালসহ শাবির আন্দোলনরত শিক্ষকরা। ওই দিনই জরুরী সিন্ডিকেট সভা ডাকেন শাবি উপাচার্য।

আজ সকাল ১০টায় শুরু হওয়া সিন্ডিকেট সভা থেকে শাবি উপাচার্য পদত্যাগ না করে ছুটিতে চলে যাওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন। তিনি ছুটিতে থাকা অবস্থায় কোষাধ্যক্ষ ইলিয়াস উদ্দিন বিশ্বাস উপাচার্যের দায়িত্ব পালন করবেন।

তবে পদত্যাগ না করে ছুটিতে যাওয়ায় আন্দোলন বন্ধ হবে কিনা এ বিষয়ে কিছু জানা যায় নি।

প্রসঙ্গত, গত সোমবার সকালে ভিসির সঙ্গে একাডেমিক ভবনের স্পেস সম্পর্কিত জটিলতা নিরসনের ব্যাপারে কথা বলতে যান পদার্থবিজ্ঞান ও জিওগ্রাফি এন্ড এনভায়রনমেন্ট (জিইই) বিভাগের ১৯ জন শিক্ষক। তাদের মধ্যে প্রফেসর ড. জাফর ইকবালের স্ত্রী পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. ইয়াসমিন হকও উপস্থিত ছিলেন। ওই দিন ভিসির সঙ্গে কথা কাটাকাটি হলে পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের প্রফেসর ড. সৈয়দ বদিউজ্জামান ফারুক এবং জিইই বিভাগের প্রফেসর ড. শরীফ মোহাম্মদ শারাফউদ্দিন বিভাগীয় প্রধানের পদ থেকে পদত্যাগ করেন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক ফোরাম গত বুধবার বৈঠক করে। এ ভিসির সঙ্গে কাজ করা সম্ভব নয় বলে সাফ জানিয়ে দেয় । বুধবার রাত ৯টায় শেষ হওয়া ওই বৈঠক থেকে আগামী রোববার বিকাল ৫টার মধ্যে ভিসিকে পদত্যাগ করার আল্টিমেটাম দেয়া হয়। কিন্তু ভিসি পদত্যাগ না করায় প্রশাসনিক ৩৭ পদ থেকে ৩৫ জন পদত্যাগ করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: