সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৩ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নায়িকা নামধারী একপ্রকার…‘হ্যাপি’

happy_63076বিনোদন ডেস্ক: আলোচিত, সমালোচিত ও বিতর্কিত মডেল অভিনেত্রী নাজনীন আক্তার হ্যাপির পরিচয় নতুন করে দেওয়ার কিছু নেই। গত বছরের শেষ সময় হতে আজ পর্যন্ত শোবিজ তথা সমগ্র মিডিয়াঙ্গন জুড়ে টপ অব দ্য ইস্যু হ্যাপি। কিন্তু তার অনেক কুকৃত্তি নতুন করে বলার আছে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের কল্যাণে হ্যাপি নিজেকে সবসময় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে রেখেছেন। নিজে ধুতরা ফুল হলেও হ্যাপি সবসময় নিজেকে গোলাপ ফুল বলে জাহির করেছেন। নিজের গায়ে লেগে থাকা কলঙ্কের আবর্জনাকে হ্যাপি কোন সময় পাত্তাই দেননি।

কিছুদিন আগে ক্রিকেটার রুবেল হাসানকে হ্যাপি তার মিথ্যে প্রেমের ছলে দোষতে গেলেও শেষ-মেশ হ্যাপি নিজের পায়ে নিজেই কুড়াল মেরেছেন। হ্যাপির ফরেনসিক রির্পোটে স্পষ্টভাবে উঠে আসে তার যত সব কুকৃত্তি।

জানা যায়, ১২ জনের সাথে হ্যাপির যৌনকর্মের আলামত। যেটার প্রমাণ স্বরূপ মেলে হ্যাপির শরীরের ডিএনএ টেস্ট। তার মানে বোঝাই যায়, হ্যাপি ১২ জনের সাথে যৌনমিলন করেছেন।

এ প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রবীণ চলচ্চিত্র নিমার্তা জানান, ওই মেয়ে (হ্যাপি) একটা ফাউল, নষ্টা ও দুষচরিত্রা স্বভাবের। ওর সুন্দর চেহারার আড়ালে আবডালে একপ্রকার পতিতার রূপ বিরাজ করে। কাজের অফার দিলে ও যে কোন কারও সাথে রাত কাটাতে দ্বিধা বোধ করে না। মানুষের সাথে যৌনকর্মে লিপ্ত হওয়া ওর মত মেয়ের কাছে ছেলে খেলার শামিল। এই সব মেয়েদের জন্য নবীনরা এ অঙ্গনকে নেগেটিভ নজরে দেখে। আসল কথা হচ্ছে হ্যাপি নায়িকা নামধারী পতিতা। এসব মেয়েদের উচিত শিক্ষা হওয়া দরকার।

এবার প্রসঙ্গের মোড়টা একটু ভিন্ন দিকে নেওয়া যাক, সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকের কল্যাণে হ্যাপি তার ফেসবুকে একের পর এক স্ট্যাটাসে প্রতিনিয়ত পল্টিবাজি মেরেই যাচ্ছে। উদ্ভট সব স্ট্যাটাস দিয়ে সবাইকে বিভ্রান্তিকর পরিস্থিতিতে ফেলছে।

গত রাতেও হ্যাপি তার ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন আগামী ২৩ তারিখ তার বিয়ে। গুলশানে বিয়ে হবে সন্ধ্যায়। অথচ রাত পেরুতেই হ্যাপি আবার স্ট্যাটাস দেয় যে, মন খারাপ তাই বিয়ের স্ট্যাটাস দিয়ে সবার সাথে মজা করলাম। হ্যাপির এমন পাগলামী কারণ জানতে তার সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন ধরেননি।

তবে হ্যাপির এক ঘনিষ্ঠ পরিজন জানায়, বয়স বাড়লে মানুষ বিবেক সম্পন্ন হয়, বুদ্ধি বাড়ে। কিন্তু হ্যাপির ক্ষেত্রে সেটার উল্টোটা হয়েছে। তার কুকর্মের জন্য আমরা লজ্জায় একপ্রকার কাউকে মুখ দেখাতে পারি না। নানন জনের নানান কথা শুনতে হয় ওর জন্য। হ্যাপির কাজ-কর্মও ধীরে ধীরে মানসিক রোগীর মত হয়ে যাচ্ছে। তাই আমরা সিদ্ধান্ত নিয়েছি খুব তাড়াতাড়ি হ্যাপিকে নিয়ে মানসিক ডাক্তারের স্বরণাপন্ন হব।

মডেল, অভিনেত্রা অনেক সময় মানুষের আইডল হয়। এখন প্রশ্ন হচ্ছে, একজন মডেল, অভিনেত্রী নাজনীন আক্তার হ্যাপির যদি এই অবস্থা হয়, তবে মানুষ কি শিক্ষা নেবে তার কাছ থেকে?

সূত্র : বিডি লাইভ

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: