সর্বশেষ আপডেট : ২ মিনিট ৫৪ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ৫ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ভারতে বছরে ২ হাজার কন্যাশিশু হত্যা

333আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: পুত্র সন্তানের প্রত্যাশায় ভারতে প্রতিদিন দুই হাজার কন্যা শিশুকে হত্যা করা হয়। মায়ের গর্ভে থাকা অবস্থায়ই এদের অধিকাংশকে হত্যা করা হয়। কেন্দ্রীয় নারী ও শিশু উন্নয়ন বিষয়ক মন্ত্রী মানেকা গান্ধী সোমবার বেসরকারি টেলিভিশন চ্যানেল এনডিটিভিকে এ তথ্য জানিয়েছেন।

ভারতে গর্ভের সন্তান ছেলে হবে নাকি মেয়ে হবে প্রসবের আগে তা পরীক্ষা করা আইনত নিষিদ্ধ। তবে দেশটির সিংহভাগ অঞ্চলেই এই আইন মানা হয় না। ভারতের অধিকাংশ পরিবারই কন্যা সন্তান নিতে আগ্রহী নয়। পুত্র সন্তানকে এখানে বংশ রক্ষক হিসেবে মনে করা হয়। এছাড়া ধারণা করা হয়, পুত্র সন্তানই বৃদ্ধ বয়সে বাবা-মার ভরণপোষণ করবে। তাই পুত্র সন্তানের প্রত্যাশায় জম্মানোর আগেই এসব কন্যা শিশুকে হত্যা করা হয়।

মানেকা গান্ধী বলেন, ‘প্রতিদিন মায়ের গর্ভে থাকা অবস্থায় ২ হাজার শিশুকে হত্যা করা হয়। কিছু শিশু জম্মগ্রহণ করে এবং তাদেরকে বালিশ চাপা দিয়ে হত্যা করা হয়।’

২০১১ সালে ব্রিটিশ মেডিকেল সাময়িকী ল্যাঞ্চেট জানায়, গত তিন দশকে ১ কোটি ২০ লাখ কন্যা শিশুকে গর্ভে নষ্ট করা হয়েছে। এর ফলে দেশটিতে ছেলে-মেয়েদের অনুপাতে ফারাক দেখা দিচ্ছে। ২০১১ সালে ১ হাজার ছেলের বিপরীতে মেয়ের সংখ্যা ছিলো ৯১৮ জন। তবে ১৯৮১ সালে একই সংখ্যক ছেলের অনুপাতে মেয়ের সংখ্যা ছিল ৯৬২জন।

কন্যা সন্তানদের রক্ষায় মোদি সরকার ‘কন্যা বাঁচাও,কন্যাকে শিক্ষিত কর’ প্রকল্প হাতে নিয়েছে বলে জানিয়েছেন মানেকা গান্ধী। তিনি জানান, এ প্রকল্পের বদৌলতে কন্যা শিশু হত্যার পরিমাণ কমছে। গত জানুয়ারি থেকে এ প্রকল্পের সুফল আসতে শুরু করেছে। যে একশটি জেলায় ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের হার অনেক কম সেসব জেলায় শিশুর জম্মপূর্ব লিঙ্গ পরীক্ষা বন্ধে আইনের কঠোর প্রয়োগ হচ্ছে। এছাড়া মেয়েরা যাতে বেশি করে শিক্ষিত হতে পারে সে পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, ‘কমপক্ষে এক কিংবা দুই বছরের মধ্যে কোন ভালো কিছু ঘটবে আমারা তার আশা করি না। কারণ এটা মন পরিবর্তনের বিষয়।’

তিনি আরও জানান, সরকারের প্রকল্পের কারণে শিশু হত্যা কমছে। তবে এসব শিশুদের অনাথ আশ্রমে ফেলে আসা হয়। এটাকে ভালো প্রতিক্রিয়া হিসেবে উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, এর মানে তারা ‘হত্যার পরিবর্তে শিশুদের বের করে দিচ্ছে।’

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: