সর্বশেষ আপডেট : ১৪ মিনিট ৩৪ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ৩ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শাবি ভিসি আমিনুল হককে পদত্যাগের আল্টিমেটাম

2. VCডেইলি সিলেট ডেস্ক::
শিক্ষকদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণের অভিযোগ তুলে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়য়ের ভিসি প্রফেসর ড. মো. আমিনুল হককে বোরবারের মধ্যে পদত্যাগ করা জন্য আল্টিমেটাম দেওয়া হয়েছে। সরকার সমর্থিত মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদ বুধবার রাত ৯টায় এ আল্টিমেটাম দেয়। পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক সৈয়দ সামসুল আলম এ তথ্য নিশ্চিত করেন। একই সঙ্গে উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে বৃহস্পতিবার থেকে বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন দফতরে দায়িত্বে থাকা শিক্ষকরা কর্মবিরতি পালন শুরু করেছে। রোববারের মধ্যে উপাচার্য পদত্যাগ না করলে সোমবার বিভিন্ন দফতরে দায়িত্বরত শিক্ষকরা পদত্যাগ করবেন বলে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

বিভাগীয় পদ থেকে পদত্যাগকারী ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের প্রধান অধ্যাপক শরীফ মো. শরাফ উদ্দিন জানান, ফলিত বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক জহির বিন আলম গত রোববার সকালে একাডেমিক ভবন ‘এ’ তে এসে ২ বিভাগের শিক্ষকদের অশালিন ভাষায় গালাগাল করেন। বিষয়টি উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করে উনাকে অবহিত করার জন্য পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের প্রধান অধ্যাপক সৈয়দ বদিউজ্জামান ফারুক একাধিকবার ফোন করলেও তিনি দেখা করার সময় দেননি। পরে বিকেল সাড়ে ৪টায় ২ বিভাগের ১৭জন শিক্ষক উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করতে গেলে তিনিও অসৌজন্যমূলক ব্যবহার করে ভিসির কক্ষ থেকে বের করে দেন বলে তিনি জানান।

এর প্রেক্ষিতে দু’বিভাগের শিক্ষার্থীরা বিভাগের প্রধানদের পুনর্বহাল এবং ক্লাস পরীক্ষা সচল রাখার দাবিতে উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করেছে বিভাগের শিক্ষার্থীরা। এ নিয়ে দুই বিভাগের শিক্ষকদের ডেকে উপাচার্যকে দ্রুত সমস্যা সমাধানের জন্য শিক্ষক সমিতির সভাপতি আহ্বান জানান।

বুধবার এবং বৃহস্পতিবার উপাচার্যের কার্যালয়ে দুই বিভাগের শিক্ষদের নিয়ে সভা ডাকা হলে শিক্ষকরা তা প্রত্যাখ্যান করেন। শিক্ষকদেও সঙ্গে উপাচার্যের অসৌজন্যমূলক আচরণ নিয়ে বৃহস্পতিবার রিপোর্ট লেখা সময় সাড়ে ৪টায় এ জরুরী সভা চলে।

পদার্থ বিজ্ঞান ও ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের শিক্ষকরা উপাচার্য কর্তৃক বিভিন্ন সময় অসম্মান ও অপমানের অভিযোগ উঠায় বুধবার রাতে সরকার সমর্থিত মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদের এক সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় পূর্বে বিভিন্ন সময় উপাচার্য কর্তৃক শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অপমান ও প্রশাসন পরিচালনায় তার অযোগ্যতার বিষয়ে আলোচনা করা হয়।

সভায় শেষে পরিষদের আহ্বায়ক স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে যেসব সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে তা হলো- ১. সিনিয়র শিক্ষকরা উপাচার্য কর্তৃক অপমানিত হওয়ায় তীব্র নিন্দা জ্ঞাপন করে উপাচার্যের সঙ্গে কাজ করা নিয়ে অপরাগতা প্রকাশ করা হয়। ২. প্রশাসনের বিভিন্ন পদে কর্মরত শিক্ষকরা আগামী রোবাবার পর্যন্ত কর্মবিরতি পালন করবে। ৩. সোমবার সকাল সাড়ে ১০টায় সকল শিক্ষক প্রশাসনিক ভবনের সামনে একত্রিত হয়ে প্রশাসনে দায়িত্বে থাকা শিক্ষকরা নিজ নিজ পদ থেকে পদত্যাগের ঘোষণা দিবেন। এবং ৪. এর মাঝে উপাচার্য কোন সিদ্ধান্ত না নিলে শিক্ষকদের জরুরী সভার মাধ্যমে পরবর্তি কর্মসূচি ঘোষণা হবে।

ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর এমদাদুল হক বলেন, সিনিয়র শিক্ষকদের সঙ্গে উপাচার্যের অসৌজন্যমূলক আচরণের প্রেক্ষিতে আমাদের এ আন্দোলন শুরু হয়েছে। উপাচার্যের পদত্যাগের দাবিতে প্রক্টরিয়াল বডিসহ প্রশাসনে দায়িত্বে থাকা শিক্ষকদের কর্মবিরতি চলছে। রোববারের মধ্যে যদি তিনি পদত্যাগ না করেন তবে সোমবার আমরা নিজেরাই নিজ নিজ পদ থেকে পদত্যাগ করে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

সিন্ডিকেট সদস্য ও সৈয়দ মুজতবা আলী হলে প্রভোস্ট মো. ফারুক উদ্দিন জানান, আমাদের এই আল্টিমেটাম হচ্ছে শিক্ষকদের মাঝে জমে থাকা অনেকগুলো ক্ষোভের বহিপ্রকাশ। তিনি অভিযোগ করে বলেন, গত বছরের এপ্রিল মাসে উপাচার্যের অসদাচরনের কারণে ছাত্র উপদেশ ও নির্দেশনা পরিচালক তার পদ থেকে পদত্যাগ করেন।

শিক্ষার্থী কর্তৃক শিক্ষক লাঞ্চনার ঘটনায় কোন বিচার না হওয়ায় সহকারী প্রক্টরদের পদত্যাগসহ উপাচার্যের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ রয়েছে। এর প্রেক্ষিতে, আমাদের এই কর্মবিরতির মাধ্যমে উপাচার্যকে আগামী রোববারের মধ্যে পদত্যাগ করার সময় বেধে দেওয়া হয়েছে। ‘এই সময়ের মধ্যে যদি উনি সিদ্ধান্ত না নেন, ক্যাম্পাস থেকে চলে না যান, পদত্যাগ না করেন, তাহলে সোমবার আমাদের পদত্যাগের মাধ্যমে নতুন কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে’।

পদার্থ বিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. ইয়াসমিন হক বলেন, গত ১২ এপ্রিল আমাদেরকে অপমান করার মাধ্যমে পুরো শিক্ষকবডিকে তিনি অপমান করেছেন উপাচার্য। তার সাম্প্রতিক কর্মকাণ্ড দেখে মনে হচ্ছে তিনি এই ক্যাম্পাস চালানোর যোগ্যতা রাখেন না। বিশ্ববিদ্যালয় ভালোভাবে চালানোর জন্য একজন যোগ্য ভিসি প্রয়োজন বলে তিনি মন্তব্য করেন। এজন্যই শিক্ষক পরিষদের পক্ষ থেকে উনাকে ক্যাম্পাস থেকে চলে যেতে বলা হয়েছে।

ইয়াসমিন হক উপাচার্যের উদ্দেশ্যে বলেন, একবছর আগে আপনি জানতে চেয়েছিলেন ক্যাম্পাস কেমন চালাচ্ছি। এখন শিক্ষকরাই আপনার কাজের মূল্যায়ন করে মতামত দিয়েছে, আশা করছি আপনি উত্তর পেয়েছেন।

মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক মো. মস্তাবুর রহমান জানান, শিক্ষকদের সঙ্গে অসৌজন্যমূলক আচরণ করায় ইতোপূর্বে অনেকবার উপাচার্যকে বলা হয়েছে। এখন উপাচার্যের দূঃখ প্রকাশের কোন সুযোগ নেই। বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য ও সরকারকে আমাদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানিয়ে দিয়েছি। এ বিষয়ে শাবি শিক্ষকদের অবগতির মাধ্যমে একজন যোগ্য ভিসি নিয়োগের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

মহান মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উদ্বুদ্ধ শিক্ষক পরিষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক সৈয়দ সামসুল আলম জানান, লিখিত বিবৃতিতে সরাসরি উপাচার্যের পদত্যাগের কথা উল্লেখ্য না থাকলেও মূলত আমরা রোববারের মধ্যে উনাকে উপাচার্যের পদ থেকে পদত্যাগ করতেই আল্টিমেটাম দিয়েছি। সিনিয়র শিক্ষকদের সঙ্গে বিভিন্ন সময় অসদাচরণের অভিযোগের প্রেক্ষিতে পরিষদ এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আমিনুল হক ভূঁইয়া বলেন, অসৌজন্যমূলক আচরণ আমার স্বভাবসুলভ আচরণ নয়। আমি কারো সঙ্গে এমন আচরণ করি না। কেউ যদি আমার আচরণে ভুল বুঝে থাকলে তাদের কাছে তিনি দু:খ প্রকাশ করেছেন।

উপাচার্য বলেন, আগ থেকে কোন সময় নেওয়া ছাড়াই গত রোরবার বিকেলে পদার্থ বিজ্ঞান ও ভূগোল ও পরিবেশ বিভাগের কয়েকজন শিক্ষক আমার সঙ্গে দেখা করতে আসে। তখনই বাসা থেকে আমার স্ত্রীর অসুস্থতার খবর আসলে আমি বিশ্ববিদ্যালয়ের চীফ মেডিকেল অফিসারকে ফোন করে বাসার পাঠিয়ে দিয়ে উনাদের সঙ্গে কথা বলেছি। উনাদের সব কথা আমি শুনেছি। তবে স্ত্রীর অসুস্থতার কারণে পর্যাপ্ত সময় দিতে পারি নাই। তিনি প্রশাসনে দায়িত্বে থাকা শিক্ষকদের কর্মসূচি প্রত্যাহার করে নিজ নিজ দায়িত্ব পালনের জন্য অনুরোধ করেন।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: