সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
শনিবার, ১০ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাতকে অপহৃত শিশু ইমনের লাশ এখনো উদ্ধার হয়নি (ফলোআপ)

2. imo0nছাতক সংবাদদাতা::
ছাতকে শিশু মোস্তাফিজুর রহমান ইমন অপহরন ও হত্যার মুল নায়ক মসজিদের ইমাম সুয়েবুর রহমান সুজনসহ ৫জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। গ্রেফতারকৃতরা থানা ও আদালতে অপহরন ও হত্যার স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছে। কিন্তু এ পর্যন্ত শিশু ইমনের লাশ উদ্ধার সম্ভব হয়নি। শিশু ইমনের পরিবারের মধ্যে বইছে শোকের মাতম। থামছেনা এ পরিবারের আহাজারি।

আটক ঘাতক মসজিদের ইমাম সুজনকে সাথে নিয়ে পুলিশ গত ৮এপ্রিল বাতিরকান্দি এলাকায় ইমনের লাশ উদ্ধারে ব্যাপক তল্লাশি চালায়। এসময় সুজনের কথামতো লাশ উদ্ধারের জন্য দু’টি খালের পানি সেচ করেও লাশ উদ্ধার সম্ভব হয়নি। তল্লাশী চালিয়ে লাশ উদ্ধারে ব্যর্থ হলেও মসজিদের সিড়িঁর পাশের একটি গর্ত থেকে রক্তমাখা লুঙ্গি, তোয়ালে, গামছাসহ হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত বিষের বোতল, একটি ছুরি ও সুজনের কাছ থেকে তার ব্যবহৃত বিভিন্ন কোম্পানীর ১৯টি সীম উদ্ধার করে পুলিশ। ইমন অপহরনের পর পালিয়ে থাকা ইমাম সুজন কুমিল্লা যাবার সময় ৮এপ্রিল সকালে সিলেট কদমতলী বাসষ্ট্যান্ড থেকে পুলিশ তাকে আটক করে। ঘাতক সুয়েবুর রহমান সুজন ছাতকের নোয়ারাই ইউনিয়নের বাতিরকান্দি গ্রামের একটি মসজিদের ইমাম ও নোয়ারাই ইউনিয়ন জামাতের সেক্রেটারী।

সে ছৈলা-আফজলাবাদ ইউনিয়নের ব্রাহ্মনজুলিয়া গ্রামের মৃত মখলিছ মিয়ার পুত্র। তল্লাশী অভিযান চলাকালে শিশু ইমন অপহরন ও হত্যা কান্ডের লোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছে পুলিশের কাছে ঘাতক সুজন। তার বর্ণনা মতে ২৭মার্চ বিকেলে নিজ বাড়ির পাশে ছাতক-দোয়ারা সড়ক থেকে শিশু ইমনকে মুক্তিপনের লক্ষে অপহরন করে ঘাতক সুজন ও তার সহযোগীরা। মুক্তিপনের দু’লক্ষ টাকা না পেয়ে অপহরনকারীরা বিভিন্ন স্থানে শিশু ইমনকে নিয়ে অবস্থান করতে থাকে। এক পর্যায়ে ইমনের বাড়ী সংলগ্ন মসজিদের আঙ্গিনায় এনে ইমনকে হত্যা করে লাশ খালে মাটিচাপা দিয়ে রাখা হয়।

পরবর্তীতে ঘাতক ইমাম সুজনের অজ্ঞাতে তার সহযোগিরা লাশ অন্যত্র সরিয়ে নেয়। এঘটনায় পুলিশ ইমাম সুজন ছাড়াও বাতিরকান্দি গ্রামের আব্দুল বাহার, জাহেদ,রফিকুল, নুরুল আমিনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করেছে। শিশু মোস্তাফিজুর রহমান ইমন নোয়ারাই ইউনিয়নের বাতিরকান্দি গ্রামের জহুর আলীর পুত্র এবং লাফার্জ কমিউনিটি ওয়েলফেয়ার স্কুলের প্রথম শ্রেনীর ছাত্র। এ ঘটনায় এলাকায় উদ্বেগ ও আতংক বিরাজ করছে।

শনিবার এলাকাবাসী ও লাফার্জ কমিউনিটি ওয়েলফেয়ার স্কুলের উদ্যোগে ইমনের লাশ উদ্ধার ও হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল, মানববন্ধন, প্রতিবাদ সভা ও জেলা প্রশাসক বরাবরে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়েছে। এদিকে বৃহস্পতিবার বিকেলে ইমাম সুজনের ফাঁসির দাবীতে ছৈলা-আফজালাবাদ ইউনিয়নের সোনালী-বাংলাবাজারে ২১গ্রামবাসীর প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: