সর্বশেষ আপডেট : ৩ মিনিট ৩৭ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ৭ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ওপারে মা, এপারে ছেলে

full_1385971930_1429030743নিউজ ডেস্ক: পহেলা বৈশাখ উপলক্ষে পঞ্চগড়ের অমরখানা সীমান্তে দুদেশের মানুষের মিলনমেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সকাল সাড়ে ১০টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত প্রায় পাঁচ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে এ মিলনমেলা বসে।

এ সময় স্বজনেরা একে অন্যের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন। খোঁজখবর নেন। ওপারে (ভারতে) মা সিতুমণি, এপারে (বাংলাদেশে) ছেলে বিশ্বনাথ। দুজনের মাঝে বাধা কেবল একটি কাঁটাতারের বেড়া। দূরত্ব দুই-তিন হাতের বেশি নয়। দুপাশে দুজন দাঁড়িয়ে একে অন্যের সঙ্গে কথা বলছেন। দুজনেরই চোখ বেয়ে জল গড়িয়ে পড়ছে। বিশ্বনাথের মা চোখে দেখতে পান না, তবে কথা বলতে পারেন। তাই দূর থেকে ছেলের সঙ্গে কথা বললেন তিনি।

বিশ্বনাথের বাড়ি পঞ্চগড় সদর উপজেলার কাজীপাড়ায়। বয়স ৭৫ পার হয়েছে। উপজেলার অমরখানা সীমান্তে ৭৪৩ নম্বর আন্তর্জাতিক সীমানা পিলারের কাছে আজ মঙ্গলবার সকালে এসেছেন তার মায়ের সঙ্গে দেখা করতে। মায়ের বয়স ১০০ পার হয়েছে।

থাকেন ভারতের দার্জিলিং জেলার আফছা গ্রামে। বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে আজ সকালে তিনিও অমরখানা সীমান্তে এসেছেন ছেলের সঙ্গে দেখা করতে।

বিশ্বনাথ বললেন, ‘ওপারে যেতে পারি না, তাই প্রতি নববর্ষে মায়ের সঙ্গে দেখা হয়।’ এবারও এসেছেন তিনি। মায়ের আশীর্বাদও নিয়েছেন।

কেবল বিশ্বনাথ নয়, দুদেশের কয়েক হাজার মানুষ নববর্ষ উপলক্ষে হাজির হন সীমান্তে। অমরখানা সীমান্তে ৭৪৩, ৭৪৪ ও ৭৪৫ নম্বর আন্তর্জাতিক সীমানা পিলারের মাঝে পাঁচ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে বসে দুদেশের মানুষের মিলনমেলা।

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের জলপাইগুড়ির তানজিনা দেখা করতে এসেছেন তার বোন পঞ্চগড়ের তাসলিমা বেগমের সঙ্গে। এ সময় দুবোনের চোখেই জল দেখা যায়। দুজন দুজনের বিভিন্ন বিষয়ে খোঁজ খবর নেন।

সীমান্ত এলাকার মানুষের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, উভয় দেশের মানুষ যারা অর্থাভাবে পাসপোর্ট বা ভিসা করতে পারেন না, তারা এই দিনটির অপেক্ষায় থাকেন। বাংলা নববর্ষে তারা স্বজনদের সঙ্গে দেখা করেন।

এদিন ভোর থেকে দুই দেশের বিভিন্ন প্রান্তের লোকজন এসে জড়ো হন। স্বজনদের মিলন আর দুই দেশের অগণিত মানুষের উপস্থিতিতে এখানে এক আবেগঘন দৃশ্যের অবতারণা হয়।

এলাকাবাসী জানান, আজ সকাল থেকে কাঁটাতারের বেড়ার এপারে কয়েক হাজার বাংলাদেশি, ওপারে কয়েক হাজার ভারতীয় বাঙালি জড়ো হন।

তারা পরস্পরের সঙ্গে কথা বলছেন, কুশলাদি বিনিময় করছেন। কেউ কেউ কাঁটাতারের ওপর দিয়ে বিস্কুট, চানাচুর, ইলিশ মাছ, উপহারসামগ্রী আর সিগারেটের প্যাকেট ছুড়ে দেন একে অপরকে।

কেউবা আত্মীয়স্বজনকে দেয়ার জন্য কোমল পানীয়র বোতল ছুড়ে মারেন। স্বজন ও পরিচিতদের দেখে অনেকে আবেগে কেঁদে ফেলেন। এ কান্না বিরহের নয়, মিলনের।

স্থানীয় মানুষ আরও জানান, ১৯৪৭ সালে দেশ বিভক্তির পর তাদের অনেক আত্মীয়স্বজন ভারতীয় অংশে পড়ে যান। ফলে অনেকেরই যাতায়াত বন্ধ হয়ে যায়। এ কারণে তারা উভয় দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনীর অলিখিত সম্মতিতে প্রতিবছর বাংলা নববর্ষে সীমান্তবর্তী এলাকায় এসে দেখাসাক্ষাৎ করার সুযোগ পান।

পঞ্চগড় ১৮ বিজিবি ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক লে. কর্নেল মোহাম্মদ আরিফুল হক জানান, উভয় দেশের মানুষের অনুরোধে এবং বিএসএফের সঙ্গে আলোচনা করে কাঁটাতারের বেড়ার পাশে জিরো লাইনে স্বল্প সময়ের জন্য হলেও দুদেশের মানুষের জন্য এ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এ বিভাগের অন্যান্য খবর

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: