সর্বশেষ আপডেট : ৩ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২৫ এপ্রিল, ২০১৭, খ্রীষ্টাব্দ | ১২ বৈশাখ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

তানোরে কবরস্থান না থাকায় ৩দিন পর এক আদিবাসি’র লাশ দাফন

rajshaheeরাজশাহী থেকে টিপু সুলতান::
রাজশাহীর তানোর উপজেলার পাঁচন্দর ইউপি’র বিনোদপুর শুকান দিঘী পাড়ার আদিবাসী পল্লীর আদিবাসীদের কবরস্থান না থাকায় মৃত্যু’র ৩দিন পর বৃহস্পতিবার খাস জমিতে এক আদিবাসি বৃদ্ধা গৌউর উরাওকে (৮৫) করব দেয়া হয়েছে। এঘটনায় আদিবাসীদের মধ্যে চরম হতাশা বিরাজ করছে। খবর পেয়ে জাতীয় আদিবাসী পরিষদ কেন্দ্রীয় সভাপতি রবিন সরেন ও দপ্তর সম্পাদক সুভাষ হেমরমের সাথে সরেজমিনে বৃহস্পতিবার সকালে ঘটনাস্থলে গিয়ে আদিবাসীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, তানোর উপজেলার পাঁচন্দর ইউপি’র বিনোদপুর শুকান দিঘী পাড়ার খাস জমিতে দীর্ঘদিন ধরে ২৩টি আদিবাসী পরিবার বসবাস করে আসছে। কিন্তু তাদের কোন কবরস্থান না থাকায় বাড়ির আংগীনায় তাদেরকে কবর দেয়া হয়। বিনোদপুর শুকান দিঘী পাড়ার মৃত ভোটলা উরাওয়ের পুত্র গৌউর উরাও (৮৫) দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থ্য থাকার পর গত মঙ্গলবার বিকাল ৩টার দিকে মৃত্যু বরণ করেন। কবর স্থান না থাকায় মৃত্যুর ৩দিন পর বৃহস্পতিবার বিকালে গৌউর উরাওকে (৮৫) কবর দেয়া হয়।

এব্যাপারে আদিবাসিপাড়ার সন্ধ্যা রানী উরাও বলেন আমাদের কোন কবর স্থান না থাকায় আমার ফুফু ও ফুফা মারা যাওয়ার পর তাদেরকে তাদের বাড়ি’র আংগীনায় কবর দেয়া হয়েছে। তিনি আক্ষেপ করে আরো বলেন পার্শের একটি পুকুর পাড়ের খাস জায়গা রয়েছে সেই জায়গাটি আমাদের কবর স্থানের উপযোগী জায়গা এক প্রভাবশালী দখলে রেখেছে। ওই জায়গাটি যদি সরকার আমাদের কবর স্থান হিসাবে বরাদ্ধ দেয় তাহলে আমাদেরকে লাশ নিয়ে আর বসে থাকতে হবেনা। মৃতের ভাগ্নে হরেন উরাও বলেন, তাদের কোন কবরস্থান না থাকায় এবং বাড়ির পার্শে কোন জায়গা না থাকায় আমার মামাকে কবর দেয়ার জন্য গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় গ্রামের পার্শের পুকুর পাড়ের খাস জায়গায় কবর দেয়ার জন্য কবর খোড়ার কাজ শুরু করি। চিমনা গ্রামের জোহুর আলী’র পুত্র মোজাম্মেল হক কবর খুড়তে বাধা দেয়। পর দিন বুধবার সকালে আবার কবর খোড়ার শুরু করলে আমাদেরকে হত্যার হুমকি দেয় ফলে আমরা আর কবর না খুড়ে লাশ নিয়ে বসে ছিলাম।

বৃহস্পতিবার সকালে মুন্ডুমালা পৌর মেয়র তানোর উপজেলা আ’লীগ সভাপতি গোলাম রাব্বানীকে মোবাইলে বিষয়টি অবহিত করি এসময় মেয়র সাহেব আমাদেরকে ওই খাস জায়গায় কবর দেয়ার হুকুম দিলে আমরা তাকে সেখানে কবর দি। নিহতের কন্যা জলসরি কাঁদতে কাঁদতে বলেন ৩দিন থেকে বাবার লাশ কবর দেয়ার জায়গা না থাকায় লাশের পার্শে বসে পাহারা দিচ্ছি। আমরা কি এদেশের মানুষ না যে আমার বাবার লাশ সরকারী খাস জায়গায় কবর দেয়া যাচ্ছে না। ভোট আসলে আমাদেরকে সবাই সব কিছুই দেয়ার কথা বলে ভোট চলে গেলে আমাদের লাশ কবর দেয়ার জন্য একটু জায়গা পাওয়া যায়না। ৩দিন ধরে লাশ নিয়ে অপেক্ষার পর গতকাল সকালে তানোর উপজেলা আ’লীগ সভাপতি ও মুন্ডুমালা পৌর মেয়র গোলাস রাব্বানীকে বিষয়টি মোবাইলে অবহিত করেন। মেয়রের গোলাম রাব্বানী পুকুর পাড়ের ওই খাস জমিতে কবর দেয়ার নির্দেশ দিলে সকাল থেকে কবর খোড়া হয়। দুপুর পর বাবার লাশ কবর দেয়া হয়।

খাস জায়গার বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে চিমনা গ্রামের জোহুর আলী’র পুত্র মোজাম্মেল হক বলেন, এই খাস জায়গা রাজশাহীর কোর্ট এলাকার জৈনক ব্যাক্তি লীজ নিয়ে আমশো গ্রামের সাত্তারের কাছে সাব লীগ দিয়েছে। আমি সাত্তারের হয়ে এই পুকুর ও জায়গা জমি দেখা শোনা করি। বিষয়টি আমি সাত্তারকে জানালে সে আমাকে লাশ কবর দিতে নিষেধ করেছেন, তাই আমি বাঁধা দিয়েছি। মুন্ডুমালা পৌর মেয়র তানোর উপজেলা আ’লীগ সভাপতি গোলাম রাব্বানী বলেন, বিষয়টি আসলে দুঃখ জনক। আমি ঢাকায় আছি। ওই জায়গা যদি খাস হয় তাহলে আমি তানোরে ফিরে খাস জায়গা দখল মুক্ত করে সে জায়গা আদিবাসীদের কবরস্থান হিসাবে সরকারী ভাবে কাগজ করে দেয়ার ব্যবস্থা করে দেব। তানোর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মুনীরুজ্জামান ভূঁক্রা বলেন বিষয়টি আমার জানা নেই।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭, ০১৭১৭ ৬৮ ১২ ১৪ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: