সর্বশেষ আপডেট : ৪ মিনিট ১৮ সেকেন্ড আগে
মঙ্গলবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

একই গাছের কাণ্ডে টমেটো ও শেকড়ে আলু!

500x350_6068b9e696f109a27a7ea93c30f8ac43_8323_1নিউজ ডেস্ক : বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) চট্টগ্রামের পটিয়া উদ্যান উন্নয়নে একই গাছের কাণ্ডে টমেটো ও শেকড়ে গোল আলুর পরীক্ষামূলক চাষে সফলতা পেয়েছে। এক বছর ধরে বিএডিসি একই গাছের কাণ্ডে টমেটো ও শেকড়ে গোল আলু উৎপাদনে পরীক্ষামূলকভাবে দেশের বিভিন্ন উদ্যানগুলোতে চাষ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছে। আগামী বছর ২০১৬ নাগাদ বাণিজ্যিকভাবে কৃষকদের মধ্যে নতুন প্রযুক্তিতে উদ্ভাবিত আলু ও টমেটো চারার সাথে গ্রাফটিং পদ্ধতির (জোড়া কলম) একই গাছে আলু ও টমেটো চাষ ছড়িয়ে দেয়া হবে।

বিএডিসি গত বছর থেকে পরীক্ষামূলকভাবে চট্টগ্রামের পটিয়া উদ্যান উন্নয়নসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সাতটি উদ্যানে এবং বরিশালে এগ্রো সার্ভিস সেন্টারে ও কৃষকপর্যায়ে মুন্সীগঞ্জে এবং মানিকগঞ্জে প্রাথমিকভাবে গ্রাফটিং পদ্ধতিতে একই গাছের কাণ্ডে টমেটো ও শেকড়ে গোল আলু গাছ রোপণ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছে। তা ছাড়া প্রতিটি গাছেই বাম্পার ফলনও হয়েছে। আবার কোথাও কোথাও নতুন পদ্ধতিতে রোপণ করা গাছে ফসল উৎপাদনে তারতম্যও দেখা গেছে। যেসব জায়গায় গ্রাফটিং পদ্ধতিতে একই সাথে আলু ও টমেটোর উৎপাদন ভালো হয়েছে সেসব জায়গায় গড়ে প্রতিটি গাছে কাণ্ডে আড়াই থেকে তিন কেজি টমেটো এবং শেকড়ে (গোড়ায়) সাড়ে ৪০০ গ্রাম থেকে ৫০০ গ্রাম পর্যন্ত গোল আলু উৎপাদন হয়েছে। একই গাছের কাণ্ডে টমেটো ও শেকড়ে গোল আলু উৎপাদনে বিএডিসি অভূতপূর্ব সফলতা ইতোমধ্যে দেশজুড়ে কৃষকসহ সাধারণ মানুষের মধ্যে বেশ সাড়া জাগিয়েছে।

বিএডিসি পটিয়া উদ্যান উন্নয়নের যুগ্ম পরিচালক ইদ্রিস মিয়া বলেন, বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন ইতোমধ্যে বিভিন্ন উন্নত জাতের ফসল উৎপাদনে এই সাফল্য পেয়েছে। তেমনিভাবে গ্রাফটিং পদ্ধতিতে গোল আলু চারার সাথে টমেটো চারা গ্রাফটিং (জোড়া কলম) পদ্ধতিতে একইসাথে আলু ও টমেটোর চাষ দেশের কৃষি উৎপাদনে অভূতপূর্ব একটি নতুন সংযোজন।

তিনি বলেন, পটিয়া উদ্যানের নিজস্ব মাঠে স্বল্প পরিসরে গ্রাফটিং পদ্ধতিতে টমেটো (আলু গাছ ও টমেটো গাছে গ্রাফটিং) চাষ করা হয়েছে। ইতোমধ্যে কাণ্ডে থোকায় থোকায় উন্নতমানের টমেটো ধরেছে। মাটির নিচে শেকড়ে ধরেছে গোল আলু।

তিনি আরো বলেন, আবহাওয়ার তারতম্যের কারণে ফসল তেমন ভালো না হলেও এ সফলতাএলাকার কৃষক ও সাধারণ মানুষের মাঝে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে। বাণিজ্যিকভাবে টমেটো চাষ কৃষকের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি) নিরলসভাবে প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

বিএডিসির উপ-ব্যবস্থাপক উদ্যান ড. ইসবাত বলেন, ডায়মন ভ্যারাটির গোল আলু বারি জাতের টমেটো চারার সাথে গ্রাফটিং পদ্ধতিতে (জোড়া কলম) উদ্ভাবিত একই গাছের কাণ্ডে টমেটো ও শেকড়ে গোল আলুর উৎপাদন বিদেশের বেশ কয়েকটি দেশে অনেক আগেই শুরু হয়েছে। গত বছর থেকে আমরা বাংলাদেশে নতুন পদ্ধতির একই সাথে টমেটো ও গোল আলু পরীক্ষামূলকভাবে চাষ করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছি।
তিনি বলেন, ইতোমধ্যে যেসব জায়গায় ভালো উৎপাদন হয়েছে সেখানে প্রতি গাছের কাণ্ডে আড়াই থেকে তিন কেজি টমেটো ও গোড়ায় শেকড়ে ৫০০ গ্রামের উপরে গোল আলু উৎপাদন হয়েছে।

এ সময় তিনি আরো বলেন, ইতোমধ্যে বিএডিসি নতুন জাতের আরো একটি সবজিরও পরীক্ষামূলক
উৎপাদনে গেছে। সে সবজিটির নাম হলো টমাটিলো। টমাটিলো হলো পুরো পাতা দিয়ে আচ্ছাদিতভাবে উৎপাদিত উন্নতমানের টমাটো জাতীয়সবজি।

তিনি আশা করছেন, আগামী বছর ২০১৬ সালে নতুন উদ্ভাবিত টমাটিলো ও টমেটোর চাষ কৃষকদের মধ্যে বাণিজ্যিকভাবে ছড়িয়ে দেয়া হবে। এই নতুন পদ্ধতির টমাটিলো ও পমেটো চাষ করে এলাকার কৃষকেরা লাভবান হবেন। তাছাড়া আমরাও উন্নতমানের আলু ও টমেটো পাবে।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: