সর্বশেষ আপডেট : ৬ মিনিট ২৩ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ৪ ডিসেম্বর, ২০১৬, খ্রীষ্টাব্দ | ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

বাংলাদেশে কৃষিতে বিপ্লব ঘটাতে ব্যবহার হচ্ছে ড্রোন

dailysylhet_doronডেইলি সিলেট ডেস্ক ::

বাংলাদেশের কৃষিতে বিপ্লব ঘটাতে ব্যবহার হচ্ছে ড্রোন (মানুষবিহীন উড়ন্ত যান)। দক্ষিণ এশিয়ার মধ্যে সর্বপ্রথম বাংলাদেশের বরিশাল বিভাগের মধ্যে ড্রোন ব্যবহার করে কৃষি উন্নয়নের লক্ষ্যে গবেষণা কাজ চালানো হচ্ছে।
প্রায় এক মাস ধরে পটুয়াখালীর সদর উপজেলার জৈনকাঠি, কলাপাড়ার পূর্বআমীরাবাদসহ বেশ কয়েকটি এলাকায় ড্রোন দিয়ে গবেষণার কাজ চালানো হচ্ছে। এ ছাড়াও বরিশাল সদরের উলানবাদনা গ্রামে ড্রোন দিয়ে গবেষণার কাজ এগিয়ে যাচ্ছে বলে জানায় সংশ্লিষ্ট সূত্র।

বাংলাদেশ সরকারের প্রতিরক্ষা ও কৃষি মন্ত্রণালয়ের অনুমোদন ক্রমে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিল, বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট, নেদারল্যান্ডের টুয়েন্ট বিশ্ববিদ্যালয় এবং আন্তর্জাতিক ভুট্টা ও গম উন্নয়ন কেন্দ্র যৌথভাবে ‘স্টারস’ প্রকল্পের আওতায় দেশের কৃষি গবেষণায় আধুনিক, উন্নত এবং কার্যকর প্রযুক্তি মানুষবিহীন যান ব্যবহার হচ্ছে। এতে কৃষক জমিতে পরিমিত সার প্রয়োগ এবং রোগ-পোকামাকড়ের আক্রমন দমন করার বার্তা বা তথ্য সংগ্রহের জন্য এই যানটি ব্যবহার করা হচ্ছে। যুক্তরাষ্ট্র সহ বিভিন্ন উন্নত দেশে কৃষি গবেষণায় সফলভাবে ড্রোনের ব্যবহার করা হচ্ছে বলে আন্তর্জাতিক ভুট্টা ও গম গবেষণা কেন্দ্রের গবেষক ড. জিয়াউদ্দিন আহমদ।

কলাপাড়া উপজেলার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের পূর্বআমিরাবাদ গ্রামের কৃষক মো. আমজেদ আলী বলেন, গত ১৮ ফেব্রুয়ারি থেকে ড্রোন দিয়ে তাদের আবাদকৃত ভুট্টা, মুগডাল, গম পরীক্ষা নিরিক্ষার কাজ শুরু হয়। বিভিন্ন আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর উপস্থিতিতে ড্রোনটিতে ক্যামেরা সংযুক্ত করে উড়িয়ে দেয়া হয়। ড্রোনটি ছবি ও ভিডিও নিয়ে যায় গবেষণা গারে।

তিনি আরও জানান, ‘স্টার প্রকল্পের’ আওতায় তিনি সাড়ে ১২ হেক্টর জমিতে ভুট্টা, মুগডাল ও গম আবাদ করেছেন। প্রথম দিকে গবেষকরা এক সপ্তাহ পর দুইবার পরীক্ষা নিরিক্ষা চালায়। এখন ১৫ দিন পর পর ড্রোন নিয়ে পরীক্ষা কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। নিরিক্ষার পর আবাদী জমিতে পানি সেচ, কী পরিমানে সার এবং কখন প্রয়োগ করা হবে, ফসলের রোগ বালাই-দমন বিষয়সহ নানা বিষয় নির্দেশনা প্রদান করবে ড্রোনটি।

এছাড়াও মাটি ও পানির লবনাক্ততা পরীক্ষার জন্য একটি মেশিন নিয়ে প্রতি সপ্তাহে পরীক্ষা চালান গবেষকরা।
কলাপাড়ার নীলগঞ্জ ইউনিয়নের প্রকল্পের দায়িত্বরত কৃষি ডেভেলপমেন্ট অফিসার মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন জানান, সরকার তথা আমরা গবেষণায় ড্রোনের পাশাপাশি কুমিরমারা খালের পানির লবনাক্ততা পরিমাপের জন্য ওয়াটার ইসি মিটার ব্যবহার করি এবং মাটির লবনাক্ততা পরিমাপের জন্য ইএম-৩৮ মিটার ব্যবহার করে রেকর্ড সংগ্রহ করে গবেষণা কাজে লাগাই। এজন্য বলতে গেলে প্রতিদিন এবং প্রতি সপ্তাহে একাজের জন্য আমাদের সবাইকে কৃষকের সঙ্গে মাঠে থাকতে হচ্ছে। আমরা চাই আমাদের গবেষণায় বাংলাদেশের কৃষি ক্ষেত্রে আধুনিকতার ছোয়ায় টেকসই অর্থনৈতিক সাফল্য আসুক।

আন্তর্জাতিক ভুট্টা ও গম গবেষণা কেন্দ্রের গবেষক ড. জিয়াউদ্দিন আহমদ বলেন, শুধু কৃষি গবেষণায় ব্যবহৃত যানটি (ড্রোন) রিমোর্ট কন্ট্রোল প্রোগ্রাম নিয়ন্ত্রিতভাবে ফসলের ক্ষেতের ৬০ মিটার ওপর দিয়ে উড়ে যায় এবং একই সঙ্গে ধান, গম, ভুট্টা ও মুগডালসহ বিভিন্ন ফসলের স্থির ছবি, ভিডিও সংগ্রহ করে। সংগ্রহীত তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে ফসলের পানি এবং সারের ঘাটতি নিরিক্ষন করা সম্ভব হয়। পরবর্তীতে প্রয়োজনীয় সেচ ও সার প্রদানের সময়সূচি তৈরি করা যায়। এ ছাড়া নির্দিষ্ট কোনো রোগ বা পোকার আক্রমন হলে তা জানা যায়। প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী প্রয়োজনীয় রোগবালাই দমন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়। এই পদ্ধতিতে সঠিক তথ্য উপাত্তের ভিত্তিতে ফসল উৎপাদনের বিভিন্ন সমস্যা কম সময়ে ও কম শ্রমে চিহ্নিত করা সম্ভব হয়। ফলে কৃষকের সার ও সেচের পানির অপচয় এবং কীটনাশকের অপব্যবহার রোধ করা সম্ভব।
তিনি আরও জানান,এই গবেষণার পরে কৃষকদের একটি নির্দেশিকা প্রদান করা হবে। যার মাধ্যমে কৃষকরা কখন এবং কী পদ্ধতি অবলম্বন করবে ইত্যাদি বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য পেতে থাকবে।

প্রসঙ্গত, আন্তর্জাতিক ভুট্টা ও গম উন্নয়ন কেন্দ্রসহ অন্যান্য দাতা সংস্থার সহায়তায় গত ১৪ ডিসেম্বর জার্মান থেকে কৃষি গবেষণার জন্য দুইটি ড্রোন সংগ্রহ করা হয়। ড্রোন পরিচালনার জন্য জার্মান থেকে বিশেষ প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন গবেষক ড. জিয়াউদ্দিন আহমদ। এরপর বাংলাদেশের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়সহ অন্যান্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নিয়োজিত বাহিনীর কাছে ড্রোনের মাধ্যমে কৃষি গবেষণার সামগ্রিক বিষয় অবহিত করা হয়। শর্তসাপেক্ষে ব্যবহারের অনুমতি ক্রমে ডিজিএফআইয়ের প্রতিনিধিদের তত্তাবধায়নে ড্রোন দিয়ে কৃষি গবেষণার কাজ শুরু করা হয়। কলাপাড়ার নীলগঞ্জে ড্রোন দিয়ে গবেষণা পরিচালনার সময় পটুয়াখালী ডিজিএফআইয়ের এনএসআই আলমগীর হোসেন উপস্থিত ছিলেন।

নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৬

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি : মকিস মনসুর আহমদ, প্রধান সম্পাদক : লিয়াকত শাহ ফরিদী
সম্পাদক ও প্রকাশক : কে এ রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
কার্যালয়: ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট-৩১০০
ফোন : ০৮২১-৭২৬ ৫২৭ (নিউজ), ০১৭১২ ৮৮ ৬৫ ০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: dailysylhet@gmail.com

Developed by: