সর্বশেষ আপডেট : ১৩ মিনিট ৪৩ সেকেন্ড আগে
বুধবার, ২০ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

জগন্নাথপুরে ৪ ভরি স্বর্ণালংকার সহ চোর আটক

ওয়াহিদুর রহমান ওয়াহীদ, জগন্নাথপুর:: ৪ ভরি ওজনের স্বর্ণালংকার বিক্রিয়ের জন্য বাজারে জুয়েলারির দোকানে গিয়ে দাম চাইলো মাত্র ২০ হাজার টাকা। দাম শুনেই চমকে গেলেন জুয়েলারির দোকানদার। বুঝতে দেরি হলো না যে, এসব চুরির মালামাল। মঙ্গলবার(২৯অক্টোবর) দুপুরে সুনামগঞ্জের জগন্নথপুর পৌরশহরে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও ব্যবসায়ী সূত্রে জানা যায়, জগন্নাথপুর পৌরশহরের সদর জগন্নাথপুর বাজারে বাসুদেব জুয়েলারি নামে দোকানে স্বর্ণালংকার বিক্রির জন্য যায় নিজাম খাঁ (১৬)। এসময় জুয়েলারি দোকানের মালিক কাজল বনিককে স্বর্ণালংকারগুলো দেখিয়ে বিক্রি করবে বলে জানায়, জুয়েলারির মালিক স্বর্নালংকার ওজন করে দেখেন ৪ ভরি ৬ আনা সোনা রয়েছে। দোকানি তখন কত টাকায় স্বর্নালংকার বিক্রি করবে দাম জানতে চাইলে সে জানায়, ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করবে, স্বর্ণের মূল্য শুনে দোকানির সন্দেহ হয়, এসময় তিনি বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহির উদ্দিনকে মোবাইল ফোনে ডেকে আনেন তাঁর দোকানে। ব্যাপক জিঙ্গাসাবাদের এক পর্যায়ে সে জানায়, স্বর্নালংকারগুলো চুরি করে এনেছে। এবং তার পরিচয় দেয় সে জগন্নাথপুর উপজেলা কলকলিয়া ইউনিয়নের ঘীপুরা এলাকার নাছির খা’র ছেলে।
জুয়েলারির দোকান মালিক কাজল বনিক জানান, ৪ ভরি ৬ আনা ওজনের বেশ কিছু স্বনাংলকার বেচার জন্য কিশোর দোকানে নিয়ে আসে। কত টাকায় বিক্রি করতে চায়, জানতে চাইলে সে জানায়, ২০ হাজার টাকায় বিক্রি করবে। দাম শুনেই আমি অবাক হয়ে যায়ই। বিষয়টি বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সেক্রেটারিকে জানাই আমি। পরে তিনি এসে স্বর্নালংকারসহ কিশোরকে তাঁর কার্যালয়ে নিয়ে যান।

জগন্নাথপুর বাজার ব্যবস্থাপনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক জাহির উদ্দিন জানান, খবর পেয়ে স্বর্নালংকারসহ কিশোরকে আমার কার্যালয়ে নিয়ে এসে জিঙ্গাসাবাদ করি। প্রথমে সোনাগুলো তার মায়ের বলে জানায়। এক পর্যায়ে সে বলে, সোনাগুলো পৌরশহরের হবিবনগর এলাকা থেকে চুরি করেছে। পরে তাকে জগন্নাথপুর থানা পুলিশে সোর্পদ করেছি।

জগন্নাথপুর থানার এসআই লুৎফুর রহমান জগন্নাথপুর জানান, পৌরশহরের হবিবনগর এলাকার বাসিন্দা সৈয়দ জিতু মিয়ার বাসা থেকে স্বর্নালংকারগুলো চুরি করেছে বলে আটককৃত কিশোর জানিয়েছে। উদ্বারকৃত স্বর্নালংকার আমাদের জিম্মায় রয়েছে। এ ব্যাপারে মামলার প্রস্তুুতি চলছে।

হবিবনগর এলাকার বাসিন্দা পৌর যুবলীগ নেতা সৈয়দ জিতু মিয়া জানান, আমি সহ আমার স্ত্রী বাহিরে ছিলাম। দুপুরের দিকে বাসায় খালি পেয়ে চোর প্রবেশ করে ওয়ারড্রপ থেকে আলমারির চাবি নিয়ে তালাবদ্ধ আলমারি খুলে স্বর্নালংকারগুলো চুরি করে নিয়ে যায়। তিনি জানান, চুরি যাওয়া স্বর্নালংকারের মধ্যে ১টি গলার হার, ১ জোড়া দুল, ১ জোড়া রিং, ২টিআংটি ও একটি চেইন ছিল। চোর ধরা পড়েছে শুনে থানায় এসেছি।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: