সর্বশেষ আপডেট : ২৯ মিনিট ৩০ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

নিজের পরীক্ষা দিয়েছে অন্য কেউ, জানতেন না এমপি বুবলী

নিউজ ডেস্ক:: তার হয়ে পরীক্ষায় অন্য কেউ অংশগ্রহণ করেছে তা জানতেন না বলে দাবী করেছেন নরসিংদীতে আওয়ামী লীগের সংরক্ষিত নারী আসনের এমপি তামান্না নুসরাত বুবলী।

সাংবাদিকদের তিনি বলেন, সবগুলো পরীক্ষায়ই আমি নিজে অংশগ্রহণ করেছি। এমনকি শুক্রবারের সকালের পরীক্ষায়ও আমি সশরীরে অংশ নিয়েছিলাম। তবে আমি বোরকা পরিহিত ছিলাম বলে কেউ চিনতে পারেনি। বিকেলের পরীক্ষার প্রস্তুতি নিতে গিয়ে দুপুরের দিকে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ি। আমার ব্যক্তিগত সহকারী ফারুক সরকার অতি উৎসাহী হয়ে আমার স্থলে অন্য কাউকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করিয়েছে। বিষয়টি আমি জানতাম না।

এঘটনায় নিজের ব্যক্তিগত সহকারী ওমর ফারুককে বরখাস্ত করেছেন বলে জানিয়েছেন এমপি তামান্না নুসরাত বুবলী।

তিনি বলেন, আমার স্বামী লোকমানের হত্যাকারীরা আমার পেছনে লেগে আছে অনেক দিন থেকে। তারা আমার সব সময় ক্ষতি চায়। প্রক্সি দিয়ে পরীক্ষার ঘটনায় আমি লজ্জিত। এ ঘটনার পর থেকে আমি খুবই মর্মাহত। আমি অসুস্থ। ডাক্তার দেখে গেছে, ইসিজি করতে দিয়েছে।

এদিকে নিজের পরীক্ষা অন্যজনকে দিয়ে প্রক্সি দেওয়ার অভিযোগে নারী এমপি বুবলীর বিএ কোর্সের ও রেজিস্ট্রেশনও স্থায়ীভাবে বাতিল করা হয়েছে। পরীক্ষার আটটি বিষয়ে তার পক্ষে প্রক্সি পরীক্ষা দেওয়ায় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ এ সিদ্ধান্ত নেয়।

সর্বশেষ গত শুক্রবার বিকেলে বুবলীর পক্ষে শেষ পরীক্ষা দিতে গিয়ে এক নারী পরীক্ষার হলে হাতেনাতে ধরা পড়লে বিষয়টি জানাজানি হয়। এ ছাড়া ঘটনা তদন্তে একটি কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

এমপি বুবলী নরসিংদীর সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য এবং খুন হওয়া নরসিংদীর সাবেক পৌর মেয়র লোকমান হোসেনের স্ত্রী।

এমপি বুবলীর পারিবরিক সূত্র জানিয়েছে, ঘটনার পর থেকে মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন বুবলী। পরিবারের কারো ফোন ধরছেন না।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নির্বাচনের সময় হলফনামায় দেওয়া তথ্য অনুযায়ী বুবলী এইচএসসি পাস। উচ্চশিক্ষার সার্টিফিকেট লাভের আশায় তিনি বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন বছর মেয়াদি বিএ প্রগ্রামে ভর্তি হন। এ পর্যন্ত চারটি সেমিস্টারের ১৩টি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়েছে।

অভিযোগ উঠেছে, ১৩টি পরীক্ষার একটিতেও সশরীরে অংশ নেননি বুবলী। সর্বশেষ গত শুক্রবার পরীক্ষা দিতে এসে হাতেনাতে ধরা পড়েছেন এশা নামের এক নারী।

বাউবি ভিসি ড. এম এ মাননান বলেন, কারো প্রবেশপত্র হারিয়ে গেলে সংশ্লিষ্ট আঞ্চলিক কেন্দ্রে জানালে ডুপ্লিকেট প্রবেশপত্র সরবরাহ করা হয়। কিন্তু জিডি কপি দিয়ে এভাবে পরীক্ষা নেওয়া ঠিক হয়নি। এটা নিয়মে নেই।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: