সর্বশেষ আপডেট : ২৫ মিনিট ৩৯ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১৩ অক্টোবর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২৮ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

রাজনীতি এবং পাওয়া না পাওয়ার সাতকাহন

মো. নজরুল ইসলাম::
কি পেলাম, কি হারালাম!
হ্যাঁ পেয়েছি সম্মান, হয়েছি গর্বিত।

এলাকাবাসীসহ তৃণমূলের অনেক অনেক ভালবাসা পেয়েছি। সেই ১৯৬৬ এর ছাত্রলীগের সাধারণ কর্মী থেকে শুরু করে, ১৯৬৯ এর গণআন্দোলন, ১৯৭০ এর নির্বাচন, ১৯৭১ স্বাধীনতা যুদ্ধ, ১৯৭২ এর কিছু অংশ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর এর আদেশে দেশ গড়ার কাজে আত্মনিয়োগ, মিলিশিয়া বাহিনী, জাতীয় রক্ষী বাহিনী হয়ে সেনাবাহিনী হতে ১৯৮৮ সনের জানুয়ারি মাসের প্রথম দিকে অবসর গ্রহন, ১৯৮৯ সনে বাহরাইন প্রবাসী, ১৯৯৪ সনে কুয়েত পুনর্গঠনে বাংলাদেশ সরকারের আদেশে STMK তে কুয়েত সেনাবাহিনীতে যোগদান ১৯৯৮ সনের শেষ দিকে নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন।

তার পর থেকে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ এর সাথে সক্রিয়ভাবে যুক্ত হয়ে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ এর সাংগঠনিক সম্পাদক হয়ে রাজ পথে থেকে অনেক কষ্ট করে নিজ ইউনিয়ন পতন উষার এর আওয়ামী লীগকে সংগঠিত করেছি, কমলগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগ এর রাজনীতিকে চাঙা করেছি। ২০০১ এর সময় বিএনপি সরকারের চক্ষুশূল হয়েছি একবার গ্রেফতার হয়ে জেল খেটেছি, তারপরও হাল ছাড়ি নাই। কতজনকে নেতা বানিয়েছি, কত নেতার উত্থান দেখেছি, কিন্তু নিজের জন্য কিছুই করতে পারি নাই। শেষ অবদি বিএনপির পতনের পূর্বে আবুদাবিতে চলে আসি। আবুদাবি আওয়ামী লীগ এর সাথে যুক্ত হয়ে ইউ.এ.ই আওয়ামী লীগ এর উপদেষ্টা হয়ে সময়ে-অসময়ে দলের জন্য দেশের জন্য কাজ করে যাচ্ছি।

আমার এই দীর্ঘ চলার পথে অনেক কাছ থেকে বঙ্গবন্ধু, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, তাজ উদ্দিন, কামরুজ্জামান, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী, আব্দুল মালেক উকিল, আব্দুস ছামাদ আজাদসহ বড় বড় নেতাদের দেখেছি এবং তাদের আদর্শকে বুকে লালন করেছি। শপথ করেছি আমৃত্যু আওয়ামী লীগ তথা জননেত্রী শেখ হাসিনার জন্য জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ায় কাজ করে যাব, ইনশাআল্লাহ।

আমার এ লেখার কোন উদ্দেশ্য নাই বা চাওয়া পাওয়ার জন্য লিখছি না। অসৎ পথে যাই নাই, অসৎ উপার্জনের চেষ্টা করি নাই। অনেক নেতা অসৎ পথে উপার্জন করে আজ তাদের কি অবস্থা হচ্ছে। দেখে লজ্জা হয়।

তাই আসুন আমরা যারা বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে লালন করি তারা সৎ পথে থেকে আওয়ামী লীগ তথা জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করি। দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়ায় সহযোগিতা করি।

জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। জয় হোক আওয়ামী লীগ এর। জয় হোক শেখ হাসিনার।

(বি. দ্র. সেনাবাহিনীতে থাকা অবস্থায় ২টি সামরিক আইন যথা ১. জিয়াউর রহমানের পিরিয়ড ২. এরশাদ এর পিরিয়ডে “ক” অঞ্চল সদর দপ্তর শেরই বাংলা নগরে কাজ করেছি।)

লেখক: মো. নজরুল ইসলাম। (মুক্তিযোদ্ধা), অবঃ L’ CPL, সিগন্যালস, ধোপাটিলা, পতন উষার, (৩২২৩) কমলগঞ্জ, মৌলভীবাজার।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: