সর্বশেষ আপডেট : ৭ মিনিট ২৭ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

১৯ বছর ধরে পাবলিক টয়লেটে বসবাস!

নিউজ ডেস্ক:: মন খারাপ করে দেওয়া এক সংবাদে বিষণ্ণতা ভর করেছে অন্তর্জালে। সবার জন্য মৌলিক অধিকার, মানবাধিকার, ন্যূনতম সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিতকল্পে হাজারো বক্তৃতা আর বিবৃতির মাঝেই ভাগ্যাহত এক নারীর মানবেতর জীবনযাপনের কথা উঠে এসেছে এবার।

সংবাদমাধ্যম ইন্ডিয়া টুডে জানাচ্ছে, কারুপ্পিয়া নামের ৬৫ বছর বয়সী এক নারী ১৯ বছর ধরে পাবলিক টয়লেটে বাস করছেন। ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের মাদুরাইয়ের রামনাদ অঞ্চলের বাসিন্দা সেই নারীর জীবনের গল্প জেনে অশ্রু ফেলছে অন্তর্জালবাসী।

বার্তা সংস্থা এএনআইতে ছবিসহ এ নারীর টয়লেটে থাকার বিস্তারিত নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশিত হলে তা ভাইরাল হয়ে যায়।

সংবাদমাধ্যমটির টুইটার অ্যাকাউন্ট থেকেও এ নারীর একটি হৃদয়বিদারক ছবি পোস্ট করা হয়। সেখানে লেখা, ৬৫ বছর বয়সী কারুপ্পিয়া রামনাদের একটি পাবলিক টয়লেটে ১৯ বছর ধরে বাস করছেন। তিনি টয়লেট পরিষ্কার করে উপার্জন করেন এবং টয়লেট ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে সামান্য অর্থ নেন।
এ ব্যাপারে কারুপ্পিয়া বলেন, ‘আমি প্রবীণ নাগরিক ভাতার জন্য আবেদন করলেও তা পাইনি। কালেক্টরস অফিসের অনেক কর্মকর্তাকে এ ব্যাপারে অনুরোধ করেও কাজ হয়নি। আমার আয়ের অন্য কোনো উৎস নেই। এ কারণে আমি পাবলিক টয়লেটে থাকি। প্রতিদিন ৭০-৮০ রুপি উপার্জন করি। এক মেয়ে আছে আমার, কিন্তু সে আমাকে দেখতে আসে না।’

ছবিতে দেখা যাচ্ছে, কীভাবে একটি ছোট্ট পাবলিক টয়লেটে থাকেন এ নারী। এমনকি বেঁচে থাকার মৌলিক উপাদানগুলোও তাঁর জীবনে অনুপস্থিত।

কারুপ্পিয়ার ছবি ভাইরাল হওয়ার পর টুইটার ব্যবহারকারীরা বিস্ময় প্রকাশ করেছেন। ভারত সরকারের কাছে তাঁকে সাহায্য করতে আবেদনও জানিয়েছেন অনেকেই। অনেকেই টয়লেট পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন রাখায় তাঁর প্রশংসা করেন।

https://twitter.com/ANI/status/1164582376812568576/photo/1



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: