সর্বশেষ আপডেট : ৩৬ মিনিট ২৫ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ইউপি চেয়ারম্যান শাহজানের বিরুদ্ধে মাদ্রাসার গাছ কাটায় গ্রেফতারি পরোয়ানা

কুলাউড়া প্রতিনিধি:: মৌলভীবাজারের কুলাউড়ায় বরমচাল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আব্দুল আহবাব চৌধুরী শাহজানের বিরুদ্ধে স্থানীয় রফিনগর মাসুক মিয়া ইবতেদায়ী মাদ্রাসার গাছ কাটার মামলায় গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি হয়েছে। গাছ কাটার অভিযোগ এনে গত বছরের ৯ ডিসেম্বর মৌলভীবাজার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজেস্ট্রেট ৫ নং আমলী আদালতে সি-আর ২০৭/১৯ নং মামলা দায়ের করেন মাদ্রাসার সুপার বদর উদ্দিন আহমদ তালুকদার।

মামলা সূত্রে জানা যায়, রফিনগর মাসুক মিয়া ইবতেদায়ি মাদ্রাসা বরমচাল ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে অবস্থিত। মাদ্রাসার সুপার মাদ্রাসার উন্নয়ন ও সৌন্দর্য্য বর্ধনের জন্য মাদ্রাসার চারপাশের সীমানায় আকাশি, বেলজিয়ামসহ বিভিন্ন প্রজাতির ৮০টি গাছ লাগান। প্রতিটি গাছ ১৫-২৫ ফুট পর্যন্ত লম্বা হয়। প্রতিটি গাছের মূল্য ১০০০ হাজার টাকা। গত বছরের ৪ নভেম্বর সকালে ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল আহবাব চৌধুরী শাহজানসহ তাঁর ভাড়াটে ১০-১২জন সন্ত্রাসী নিয়ে মাদ্রাসায় লাগানো গাছগুলো দা, কুড়াল দিয়ে কেটে দেন। যার বাজার মূল্য ৮০ হাজার টাকা। চেয়ারম্যানের সরব উপস্থিতি ও নির্দেশনায় সন্ত্রাসীরা গাছ কর্তন করতে আসলে মাদ্রাসার সুপার এতে বাঁধা প্রদান করলে চেয়ারম্যান উত্তেজিত হয়ে সুপারকে ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদান করেন। পরে মাদ্রাসার সুপার বিষয়টি স্থানীয় এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের অবগত করে প্রথমে ৬ নভেম্বর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে একটি লিখিত আবেদন করেন। যার অনুলিপি তৎকালীন এমপি ও জেলা প্রশাসকসহ বিভিন্ন দফতরে দেয়া হয়।

এলাকাবাসী সূত্রে জানা গেছে, আব্দুল আহবাব চৌধুরী শাহজাহান উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি ও ইউপি চেয়ারম্যানের প্রভাব খাঁটিয়ে রাস্তার কাজের অজুহাত দেখিয়ে মাদ্রাসার পশ্চিম ও দক্ষিণ পাশের ৮০টি গাছ কেটে ঠেলাগাড়িতে তুলে ইউনিয়ন অফিসে নিয়ে যান। চেয়ারম্যানের ভয়ে অনেক সময় এলাকার লোকেরা তটস্ত হয়ে থাকেন। অনেক কর্মকান্ডের বিষয়ে কোন প্রতিবাদ করার সাহসও করেন না।
এ ব্যাপারে বরমচাল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আবদুল আহবাব চৌধুরী শাহজাহান বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় কালের কণ্ঠকে জানান, আমি সবকিছু বুঝতেছি না। একটু অসুবিধার মধ্যে আছি। পরে ফোন দেবার অনুরোধ জানিয়ে তিনি ফোন কেটে দেন।
কুলাউড়া থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ ইয়ারদৌস হাসান বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় কালের কণ্ঠকে জানান, ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে থানায় গ্রেফতারি পরোয়ানা এসেছে। তবে তিনি আদালত থেকে জামিন নিয়েছেন।



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: