সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
রবিবার, ২১ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৬ শ্রাবণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শাড়ির বিলুপ্তি রোধে তসলিমার নতুন উদ্যোগ

নিউজ ডেস্ক:: কেন শাড়ি পরেন তার কারণ জানালেন ভারতে বসবাসকারী বাংলাদেশের বিতর্কিত লেখিকা তসলিমা নাসরিন।

সোমবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুকে দেয়া এক স্ট্যাটাসে তিনি বলেন, ‘কাপড়ের আলমারি খুলে হাতের কাছে যা পাই তাই পরি। চোখের আড়ালে অনেক ভালো কিছু পড়ে থাকে, বছর চলে যায়, পরা হয় না। আমার পরার মধ্যে শার্ট প্যান্ট, অথবা শাড়ি।

আমি সালোয়ার কামিজ পরি না। নতুন যে কত ডিজাইন এসেছে সালোয়ার কামিজে, কুর্তা পাজামায়, কত রকমারি ফেমিনিন ড্রেস, আমাকে মানায় না এসব, আমি পরি না।’

কাপড়ের আলমারি খুলে হাতের কাছে যা পাই তাই পরি। চোখের আড়ালে অনেক ভালো কিছু পড়ে থাকে, বছর চলে যায়, পরা হয় না। আমার পরার মধ্যে শার্ট প্যান্ট, জিন্স টিশার্ট, অথবা শাড়ি। আমি সালোয়ার কামিজ পরি না। নতুন যে কত ডিজাইন এসেছে সালোয়ার কামিজে, কুর্তা পাজামায়, কত রকমারি ফেমিনিন ড্রেস, আমাকে মানায় না এসব, তাই পরি না। আলমারি খুললে যা চোখে পড়ে, হাবিজাবি শাড়ি, মলিন টি শার্ট, দিনের পর দিন তা-ই পরতে থাকি। কাল সন্ধ্যেয় যে শাড়িটি পরলাম, সেটা একটা ভুলে যাওয়া শাড়ি। ফাইন সিল্ক, অসাধারণ আঁচল।এইরকম হীরের টুকরো শাড়িগুলোকে একটু একটু করে পরে ফেলতে হবে। শাড়ি পরাটা আমার কাছে শুধু তারুণ্যের স্মৃতি উদযাপন,বা নিছক শখের ব্যাপার নয়, শাড়ির বিলুপ্তি রোধ করার পক্ষে এ একটি আন্দোলনের মতোও।

তিনি লেখেন ‘আলমারি খুললে যা চোখে পড়ে, হাবিজাবি শাড়ি, মলিন টি শার্ট, দিনের পর দিন তাই পরতে থাকি। কাল সন্ধ্যেয় যে শাড়িটি পরলাম, সেটা একটা ভুলে যাওয়া শাড়ি। ফাইন সিল্ক, অসাধারণ আঁচল।

এইরকম হীরের টুকরো শাড়িগুলোকে একটু একটু করে পরে ফেলতে হবে। শাড়ি পরাটা আমার কাছে শুধু তারুণ্যের স্মৃতি উদযাপন,বা নিছক শখের ব্যাপার নয়, শাড়ির বিলুপ্তি রোধ করার পক্ষে এ একটি আন্দোলনের মতোও। ’



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে. এ. রাহিম. সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: