সর্বশেষ আপডেট : ১৮ মিনিট ৮ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আপনারা সাড়ে ১০ বছর ক্ষমতায়, এখনো ছাত্রদল বালিশ কিনতে পারছে?

খালেদ মুহিউদ্দীন:: মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি বলেছেন, বালিশ কেনার দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা ছাত্রদল করতেন। আমাদের প্রশ্ন, আপনি কি এই তথ্য বালিশকাহিনির পরে জানলেন? নাকি আগে থেকেই আপনার কাছে তথ্য ছিল? একজন অভিযুক্ত আগে কোন দল বা সংগঠন করতো, কোন রাজনীতিতে বিশ্বাসী ছিল– এটা বলে আপনি কী প্রমাণ করতে চাইলেন?

সাড়ে দশ বছর ধরে আপনি ও আপনার দল ক্ষমতায়। এখনো ছাত্রদলের লোকেরা বালিশ কিনতে পারছে, আর কী কী কিনছে তা তো এখনো আমরা জানি না। ধরা না খেলে তো আমাদের পক্ষে জানা সম্ভব না যে, প্রশাসনে বা সরকারের উচ্চপদে ছাত্রদল বা বিএনপির আর কে কে আছে? স্বাভাবিক অবস্থায় আমরা তো জানি যে, সরকারের উচ্চপদের বা গুরুত্বপূর্ণরা সবাই আওয়ামী লীগের আদর্শে বিশ্বাসী বা অন্তত চরমভাবে আস্থাশীল।

অবশ্য সরকারে, দলে বা ছাত্রলীগে অনুপ্রবেশের অভিযোগ নতুন নয়। বিভিন্ন ঘটনায় বা অন্যায়ের প্রেক্ষাপটে হাইব্রিড, ‘কাউয়া’ এসব মনোহর শব্দ বা শব্দবন্ধ আমরা উপহার পেয়েছি। দেখে শুনে মনে হয় কেউ কোনো অপরাধ করতে পারে কিনা তার কষ্টিপাথর হলো সে এখন কোন দল করে বা একসময় বিএনপি বা ছাত্রদল করেছে কিনা।

প্রিয় প্রধানমন্ত্রী, আপনাকে স্মরণ করিয়ে দিতে চাই, আপনি এখনও সংবিধানের ৭০ অনুচ্ছেদের সমর্থক। কারণ, আপনি জানেন, আপনার দলের সদস্যরাও দল বদলে ফেলতে পারে সদস্যপদ হারানোর হুমকি না থাকলে। একাধিকবার আপনি বলেছেনও আপনার দলের লোকদেরও কেনা যায়! সংসদে দাঁড়িয়ে ব্যাখ্যা দিতে হয়েছে পরিবার বলতে আপনি বোঝেন– আপনি ও আপনার ছোট বোনের ছেলে-মেয়েদের পরিবার,ব্যাস।

আপনি যে বারবার বলেন, যে সন্ত্রাসী বা দুর্নীতিবাজ তা সে যে দলেরই হোক না কেন শাস্তি তাকে পেতে হবে। এটা দিয়ে আপনি আসলে কী বোঝাতে চান? অবস্থা দেখে তো মনে হয় আপনি বিশ্বাসই করেন না যে, আপনার দলে এরকম কেউ থাকেত পারেন। দেখুন বালিশ প্রকৌশলীর কথা বলতে গিয়ে আপনি বলছেন, ‘‘..এমন এমন লোক রয়ে গেছেন, জন্ম থেকেই তাদের চরিত্র দুর্নীতির।” হতে পারে মাননীয় প্র্রধানমন্ত্রী। কিন্তু আপনি বিশ্বাস করেন আপনার দলে, সরকারে, এমনকি খুব কাছেও খারাপ লোক আছে বা থাকতে পারে। তারা ধরাও কিন্তু পড়বে। তাদের সবাইকে আপনি বিএনপি বা ছাত্রদলের আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়তো বলতে পারবেন না। তাই তাদের সাবধান করুন। নিজেও সতর্ক হন।

সূত্র: ডয়চে ভেলে।
(লেখক: প্রধান বার্তা বিভাগ, ডয়চে ভেলে)




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: