সর্বশেষ আপডেট : ২২ মিনিট ৪১ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

শঙ্কামুক্ত এটিএম শামসুজ্জামান, আইসিইউ থেকে কেবিনে স্থানান্তর

বিনোদন ডেস্ক:: সুস্থ হয়ে উঠছেন নন্দিত অভিনেতা এটিএম শামসুজ্জামান। গুরুতর অসুস্থ হয়ে গত এপ্রিলে রাজধানীর আজগর আলী মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয় দীর্ঘদিন।

এর মধ্যে বেশ কয়েক দফায় ছড়ানো হয় এই অভিনেতার মৃত্যুর গুজব। সব গুজব উড়িয়ে দিয়ে সবার দোয়ায় অবশেষে তিনি সুস্থ হয়ে উঠছেন বলে জানিয়েছে তার পরিবার। তাকে দেখা গেছে হাস্যোজ্জ্বল মুখে, নায়িকা পপির সঙ্গে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়েছে আনন্দমাখা এই ছবিটি।

খুশির খবর হলো, বরেণ্য এই অভিনেতা দীর্ঘ ২৩ দিন ইনটেনসিভ কেয়ার ইউনিটে (আইসিইউ) থাকার পর আজ সোমবার কেবিনে ফিরছেন। তথ্যটি জানিয়েছেন এটিএম শামসুজ্জামানের মেজ মেয়ে কোয়েল আহমেদ।

কোয়েল বলেন, ‘বাবার শরীর অনেকটাই ভালো এখন। স্বাভাবিকভাবে সবার সঙ্গে কথা বলছেন বাবা। চিকিৎসক আজ তাকে কেবিনে পাঠিয়ে দিবেন। সবার কাছে দোয়া চাচ্ছি তিনি যেন দ্রুত সুস্থ হয়ে দ্রুত বাসা ফিরেতে পারেন বাবা।’

গত ২৬ এপ্রিল, রাত ১২টার দিকে অসুস্থ বোধ করায় এ টি এম শামসুজ্জামানকে আজগর আলী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এরপর হঠাৎ করেই তার রেচন প্রক্রিয়ায় জটিলতা দেখা দেয়। গত ২৭ এপ্রিল তার অস্ত্রোপচার সম্পন্ন হয়।

কিন্তু ৩০ এপ্রিল শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে লাইফ সাপোর্টে রাখা হয়। এরপর সুস্থতা অনুভব করলে লাইফ সাপোর্ট খুলে দেয়া হয়। কিন্তু পুনরায় শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় আবারো তাকে লাইফ সাপোর্ট দেয়া হয়।

প্রসঙ্গত, এটিএম শামসুজ্জামান অভিনয়ে পাঁচবার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পেয়েছেন। শিল্পকলায় অবদানের জন্য ২০১৫ সালে পান রাষ্ট্রীয় সর্বোচ্চ সম্মাননা একুশে পদক। অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি একজন প্রযোজক, চিত্রনাট্যকার এবং নির্মাতাও।



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: