সর্বশেষ আপডেট : ২০ মিনিট ১৮ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

কানাইঘাটের শেওতচুরা জলমহালের ইজারা নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়ানো হচ্ছে

কানাইঘাটের শেওতচুরা জলমহালের ইজারা নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে শাহজালাল মৎস্যজীবী সমিতি লিমিটেডের ব্যানারে আমরপুর নয়ামাটি গ্রামের ফখর উদ্দিন ও তার সহযোগীরা। এমন অভিযোগ করেছেন স্থানীয় ঝিংগারখাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির নেতৃবৃন্দ।

শনিবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে সমিতির পক্ষ থেকে এ অভিযোগ করা হয়। নেতৃবৃন্দ, প্রকৃত মৎস্যজীবীদের শেওতচুড়া জলমহাল লিজ দেওয়ার দাবি জানান।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কানাইঘাটের শেওতচুড়া জলমহালটি বিগত ৩ বছর ধরে অর্থের জোরে লিজ নিয়ে মৎস্য আহরণ করে আসছিল অমৎস্যজীবীদের নিয়ে গড়ে ওঠা শাহজালাল মৎস্যজীবী সমিতি লিমিটেড। সর্বশেষ তাদের লিজের মেয়াদ শেষ হলে পুনরায় ১৪২৬-১৪২৮ বাংলা সন পর্যন্ত লিজ নেওয়ার জন্য তোরজোর শুরু করে এবং দরপত্রও জমা দেয়। এরই মধ্যে শাহজালাল মৎস্যজীবী সমিতি লিমিটেডের সভাপতি ফখর উদ্দিন সরকারিভাবে তিন বছরের লিজ পাওয়ার তথ্য এলাকায় প্রচারের মাধ্যমে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। তাদের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে ঝিংগারখাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সদস্যরা প্রতিবাদ জানিয়ে করে যাচ্ছেন।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, শাহজালাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের পক্ষে ফখর উদ্দিন লিজ গ্রহণের জন্য উচ্চআদালতে পিটিশন করলে আদালত তার আবেদন স্থগিত করে লিজের উপর স্থিতাবস্তা জারি করেন।
গত ৪ এপ্রিল রিট পিটিশন নম্বর ১৬৭৫/২০১৯ ইং মামলার নথি পর্যালোচনা করে শাহজালাল মৎস্যজীবী সমিতি লিমিটেডের পক্ষে প্রদান করা আবেদন নিম্পত্তি করে লিজ নবায়নের উপর স্থিতাবস্থা জারি করেন আদালত। কিন্তু সিলেটের সরকারি কৌশলী খাদেমুল মিল্লাত মো. জালাল স্মারক নং (১৭) ০৬/০৫/২০১৯ ইং তারিখে কানাইঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তানিয়া সুলতানা বরাবর লিখিত মতামতে শাহজালাল মৎস্যজীবী সমিতি লিমিটেড-এর পক্ষে ১৪২৬-১৪২৮ বাংলা সন পর্যন্ত লিজ দেওয়ার নির্দেশনা প্রদানসহ উচ্চআদালতের আদেশ বাস্তবায়ন করা আবশ্যক বলে মত প্রকাশ করেন। এরই পরিপ্রেক্ষিতে উপজেলা প্রশাসন শাহজালাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতির লিমিটেডের কাছে জলমহাল লিজ প্রদানের আদেশ প্রদান করার কথা। যা সম্পূর্ণরূপে বেআইনি ও উচ্চ আদালতের আদেশকে অবজ্ঞার শামিল। এদিকে, উচ্চ আদালতের স্থিতাবস্থা জারি থাকার পরও শাহজালাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সভাপতি ফখর উদ্দিন মিথ্যা বানোয়াট লিজ পাওয়ার কথা বলে জলমহাল দখলের অপ-তৎপরতা চালাচ্ছে।
সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ করে বলা হয়, প্রকৃত মৎস্যজীবী না হয়েও ফখর উদ্দিন শাহজালাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেডের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি দীর্ঘদিন প্রবাসে ছিলেন। অন্যদিকে কালাগুল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেড-এর কোনো সদস্যই প্রকৃত মৎস্যজীবী নন। উভয় সমিতির সমিতির সদস্যরা একত্রে হয়ে জলমহাল লিজ নিয়ে প্রকৃত মৎস্যজীবীদের অধিকার থেকে বঞ্চিত করার অপতৎপরতায় লিপ্ত রয়েছেন।
তারা জলমহাল লিজ না পেয়ে বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে। তারা যেকোনো সময় হামলা কিংবা মিথ্যা মামলা- মোকদ্দমায় জড়িয়ে মৎস্যজীবীদের হয়রানী করতে পারে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ঝিংগারখাল মৎস্যজীবী সমবায় সমিতি লিমিটেড-এর সভাপতি সুনাউল্লা, সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমদ, সদস্য জিয়া উদ্দিন, সিদ্দেক আলী, সোহেল আহমদ প্রমুখ। – বিজ্ঞপ্তি



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: