সর্বশেষ আপডেট : ৪৪ মিনিট ৫৮ সেকেন্ড আগে
বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

মা ঘুমানোর আগে জিজ্ঞেস করতেন কে কে রোজা রাখবে: তসলিমা নাসরিন

নিউজ ডেস্ক:: পবিত্র রমজান মাসে রোজা রাখা নিয়ে স্মৃতিচারণ করেছেন ভারতে নির্বাসিত বাংলাদেশি লেখিকা তসলিমা নাসরিন।

এ বিষয়ে বৃহস্পতিবার নিজের ভেরিফায়েড ফেসবুক অ্যাকাউন্টে একটি স্ট্যাটাস দিয়েছেন এ লেখিকা।

সেখানে তসলিমা লিখেছেন- ধর্ম প্রতিপালনের জন্য তাদের বাড়ি ছিল আদর্শ জায়গা। সেখানে ধর্ম অনুশীলনের পূর্ণাঙ্গ স্বাধীনতা ছিল। ছিল না কোনো বাড়াবাড়ি। রমজান মাসে রাতে ঘুমানোর আগে তার মা সন্তানদের জিজ্ঞেস করতেন- কে কে আগামী দিন রোজা রাখবে।

তসলিমার ভাষ্য- ‘লা ইকরাহা ফিদ দিন (ধর্মে কোনো জোর জবরদস্তি নেই)। কোরআনের এই আয়াতটির যথোপযুক্ত পালন করা হতো তাদের বাড়িতে।’

তসলিমা নাসরিনের স্ট্যাটাসটি তুলো ধরা হলো-

‘মা রাতে ঘুমাবার আগেই বাড়ির সবাইকে জিজ্ঞেস করতেন- কে কে রোজা রাখবে কাল? যারা রাখবে, তারা বলে দিত রাখবে, যারা রাখবে না তারা বলে দিত রাখবে না। যারা রোজা রাখতে চেয়েছে মা শুধু তাদেরই সেহরি খেতে ডাকতেন। আর যারা রাখতে চায়নি, তারা বেঘোরে ঘুমাত। ওদের ঘুম যেন না ভাঙে, সেহরি খাওয়া মানুষগুলো সেদিকে খেয়াল রাখত, আওয়াজ করত না বেশি।

নামাজের বেলায়ও একই নিয়ম ছিল। যার ইচ্ছে নামাজ পড়ত, যার ইচ্ছে নেই- পড়ত না। এ কারণে কেউ কাউকে ভর্ৎসনা করত না। কাউকে জোর করে নামাজে দাঁড় করানো হতো না। যারা নামাজ পড়তে অনিচ্ছুক ছিল, তারা নামাজে দাঁড়ানো কাউকে জায়নামাজ থেকে টেনে সরাত না। আমাদের বাড়ির এই নিয়মগুলো লিখিত বা মৌখিক কোনোটিই ছিল না। অনেকটা প্রাকৃতিক নিয়মের মতো। যার ক্ষিধে পেয়েছে, সে খাবে, যার পিপাসা লেগেছে, সে পান করবে, যার ঘুম পেয়েছে, সে ঘুমাবে, যার পড়তে ইচ্ছে করছে, সে পড়বে… ।

ইফতারের সময় মা সবাইকে খেতে ডাকতেন। সবাই খাবার টেবিলে বসে যেতাম, মা সবাইকে সমান আদরে বেড়ে দিতেন ইফতারি। রোজা রাখা আর না রাখাদের থালায় একই রকম খাবার থাকত। তখন বুঝিনি, এখন বুঝি, আমাদের বাড়িটা আসলেই আদর্শবাড়ি ছিল।

আমাদের বাড়ি থেকে মসজিদের আজান শোনা যেত না। ষাট-সত্তর দশকে এমনকি আশির দশকেও দেশে অত মসজিদ ছিল না। কিন্তু বাড়িতে যারা নামাজ পড়ত, তাদের নামাজের সময় নিয়ে কখনও কোনো অসুবিধে হতো না। বাড়িতে দেয়ালঘড়ি ছিল। মা তো উঠানের রোদ দেখেও বলে দিতে পারতেন, নামাজের সময় হয়েছে কিনা।

কোরআনে পড়েছি, লা ইক্রাহা ফিদ্দিন, ধর্মে কোনো জোর জবরদস্তি নেই। আমার মনে হয়, কোরআনের সবচেয়ে মূল্যবান আয়াত এটিই। এই আয়াতকে মনেপ্রাণে বিশ্বাস করলেই শান্তির পৃথিবী তৈরি করা যায়।

ইসলামের পণ্ডিতরা এই আয়াতটির ব্যাখ্যা এইভাবে দেন- ‘ইসলামের সঙ্গে জোরজবরদস্তি, বলপ্রয়োগ, নিপীড়ন, ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ প্রভৃতির কোনোই সম্পর্ক নেই। এসব ইসলামবিরোধী কর্মকাণ্ড। কেননা দীন নির্ভর করে বিশ্বাস ও আন্তরিক ইচ্ছার ওপর। বলপ্রয়োগ করে কাউকে প্ররোচিত করা বা রাজি করানো ইসলাম সমর্থন করে না। ফিতনা-ফাসাদ, ঝগড়া-বিবাদ, দাঙ্গা-হাঙ্গামা প্রভৃতি সৃষ্টি করাকে ইসলাম নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে। সন্ত্রাস সৃষ্টি করা, অন্যায়ভাবে কাউকে হত্যা করা ইসলামে ক্ষমার অযোগ্য অপরাধ।’ প্রশ্ন হলো- কজন মুসলমান মেনে চলেন এই ব্যাখ্যা?

আমি বুঝি না, কোরআনে যা লেখা আছে বলে মুসলমানরা গৌরব করে, সেটির চর্চা কেন তারা করে না? ধর্মে জোরজবরদস্তি নেই, আল্লাহ বলেছেন। আল্লাহর বান্দারা আল্লাহর উপদেশকে মেনে চলবে, এ তো সকলেই আশা করে। অথচ কী হচ্ছে?

সংযুক্ত আরব আমিরাত নতুন এক আইন করেছে, কেউ যদি রমজান মাসে বাড়ির বাইরে কিছু খায় বা পান করে তাকে প্রচুর টাকা জরিমানা দিতে হবে এবং এক মাস জেল খাটতে হবে।

পিপাসার্ত অমুসলমানদের অধিকার নেই এই প্রচণ্ড গরমে কোথাও বসে এক আঁজলা পানি পান করার?

রোজাদারদের অনেকে মনে করেন, কেউ তাদের সামনে কিছু খেলে বা পান করলে তাদের অসম্মান করা হয়। আমি তো আমার রোজাদার মার সামনে পেট পুরে খেতাম, খেয়ে স্বস্তি হয়েছে বলে মার ভালো লাগত। আমাকে কতদিন মুখে তুলে খাইয়ে দিয়েছেন মা।

মা খুব সৎ এবং নিষ্ঠ ধার্মিক ছিলেন, রোজা রাখার এবং না রাখার স্বাধীনতাকে মূল্য দিতেন। আজকালকার ধার্মিকদের মধ্যে এই গুণটির প্রচণ্ড অভাব। অসহিষ্ণুতা আর অরাজকতাকে তারা ধর্মের জন্য প্রয়োজনীয় বলে মনে করছে।

হাশরের ময়দানে রোজাদাররা আল্লাহর সুনজরে পড়বেন। এ কি যথেষ্ট নয়? রোজাদাররা কেন অরোজাদার এবং অমুসলমানদের কাছ থেকে সম্মান পেতে চান? আর অরোজাদারদের দিকটাই বা দেখি না কেন, নিজেদের মানবাধিকার লঙ্ঘন করে হলেও কেন সম্মান দেখাতে হবে রোজাদারদের? সম্মান তো, যতদূর জানি, পারস্পরিক।

সম্মান কি এতই ঠুনকো যে, কাউকে খেতে দেখলে বা পান করতে দেখলে ভেঙে যায়?

মা বলতেন, কেউ সামনে খাচ্ছে বা পান করছে, দেখেও যদি তুমি নিজের খাওয়া বা পান করার ইচ্ছে সংবরণ করতে পারো, তাহলে তোমার রোজা আরও পোক্ত হবে। এভাবে কি আজকাল কেউ আর ভাবে না?’



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: