সর্বশেষ আপডেট : ৪৩ মিনিট ১০ সেকেন্ড আগে
শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের ভবন নির্মাণকাজের দুর্নীতির তদন্তে দুদক

নিউজ ডেস্ক:: ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট হবিগঞ্জ সদর আধুনিক হাসপাতালের ভবন নির্মাণকাজের দুর্নীতির বিষয়ে তদন্তে নেমেছে হবিগঞ্জ দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মঙ্গলবার দুপুরে দুদক হবিগঞ্জের উপ-পরিচালক অজয় কুমার সাহার নেতৃত্বে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা তদন্ত কাজ শুরু করেন। এ সময় ভবনটির চার পাশে ঘুরে দেখেন তারা। এছাড়াও তারা ভবনের বিভিন্ন দিকে পরীক্ষা নিরীক্ষাও করেন।

২০১৭ সালের ৩০ মে পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ধারাবাহিক তদন্তের অংশ হিসেবে মঙ্গলবার ৭ মে হবিগঞ্জে নির্মানাধীন ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট আধুনিক সদর হাসপাতাল ভবনের বিভিন্ন অংশ ভেঙ্গে অনুসন্ধান শুরু দূর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এ জন্য তদন্তে গঠিত কমিটির পক্ষ থেকে একজন নিরপেক্ষ প্রকৌশলীকে হবিগঞ্জে আনা হয়েছে। তদন্তে সহযোগিতা করার জন্য প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবেদক দৈনিক মানবকণ্ঠ ঢাকা টাইমস টোয়েন্টি ফোর ডটকমের হবিগঞ্জ জেলা প্রতিনিধি আবু হাসিব খান চৌধুরী পাবেলকে দুদক উপ-পরিচালক স্বাক্ষরিত পত্রের মাধ্যমে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

গত ৫ মে হবিগঞ্জ দুর্নীতি দমন কমিশনের উপ-পরিচালক অজয় কুমার সাহা স্বাক্ষরিত পত্রে বলা হয়, ‘ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দেশ উন্নয়ন লিঃ কর্তৃক শেখ হাসিনা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল হবিগঞ্জ এর নির্মাণ কাজে অনিয়ম ও দুর্নীতি সংক্রান্ত প্রকাশিত রিপোর্টের ভিত্তিতে ইতিমধ্যে অনুসন্ধান কাজ চলমান রয়েছে। প্রকাশিত রিপোর্ট অনুযায়ী নমুনা স্বরূপ ভবনের কিছু অংশ পরিমাপ করা প্রয়োজন। এ ক্ষেত্রে সাংবাদিক আবু হাসিব খান পাবেলের দেখানো মতে ভবনের জায়গার পরিমাপ কাজ নিরপেক্ষ প্রকৌশলী কর্তৃক গ্রহণ করা হয়। মঙ্গলবার দুপুর পর্যন্ত ভবনের বিভিন্ন অংশ ঘুরে দেখেন তদন্ত টিম। বুধবার দুপুর থেকে ভবনের বিভিন্ন অংশ আংশিক ভেঙ্গে দেখা হবে কি পরিমাণ দুর্নীতি হয়েছে।

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ৩০ মে দৈনিক মানবকণ্ঠ ও ঢাকা টাইমস টোয়েন্টি ফোর ডটকম পত্রিকায় ‘হবিগঞ্জে নির্মানাধীন ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট আধুনিক সদর হাসপাতালের নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে’ মর্মে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

সংবাদে বলা হয়, মাটির নিচ থেকে ১০ ইঞ্চি করে ভিট লেভেল দেয়াল দেয়ার পরিবর্তে অধিকাংশ স্থানে ৩ ইঞ্চি ইটের গাঁথুনি দিয়েই নির্মাণ কাজ চালিয়ে যাচ্ছে চট্টগ্রামের ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান দেশ উন্নয়ন লিঃ। ভবনে ‘এ’ গ্রেড টাইলস এর স্থলে দেয়া হয়েছে বি ও সি-গ্রেডের টাইলস। মোটা দানার সাদা বালুর পরিবর্তে স্থানীয় খোয়াই নদী থেকে উত্তোলিত পলি মাটি মিশ্রীত কালো বালু দিয়েই প্লাস্টারের কাজ করা হয়েছে। উন্নতমানের থাই এ্যালুমিয়াম ও গ্লাস লাগানোর পরিবর্তে এখানেও ব্যবহার করা হচ্ছে বি-গ্রেড ও সি-গ্রেডের মালামাল। ব্যবহার করা হচ্ছে নিম্নমানের সিমেন্ট। বিদ্যুতের লাইন, সেনেটারি ফিটিংসও করা হচ্ছে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে। এছাড়াও সংবাদে বেশকটি দুর্নীতির কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

তদন্তকালে উপস্থিত ছিলেন, হবিগঞ্জ গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী সাদ মোহাম্মদ আন্দালিব, এলজিইডির হবিগঞ্জ সদর উপজেলা প্রকৌশলী উবায়দুল বাশার, সাংবাদিক আবু হাসিব খান চৌধুরী পাবেলসহ স্থানীয় শত শত লোকজন।

দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) হবিগঞ্জের উপ-পরিচালক অজয় কুমার সাহা জানান, ‘ভবনটি নির্মাণের পরপরই বিভিন্ন গণমাধ্যমে এ ভবনের নিম্নমানের কাজ হয়েছে মর্মে সংবাদ পরিবেশন করা হয়। এরই প্রেক্ষিতে এ ভবনের কাজে কোন প্রকার দুর্নীতি হয়েছে কি না তা জানতে তদন্ত করছি দুদক। প্রাথমিক তদন্তে অনিময়ের কিছু বিষয় পরিলক্ষিত হয়েছে। আমাদের তদন্ত কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। তদন্তের পরই বলা যাবে নির্মাণ কাজে কি পরিমাণ দুর্নীতি হয়েছে।’





নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: