সর্বশেষ আপডেট : ২৬ মিনিট ১ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১৯ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ক্রাইস্টচার্চের হামলার সাথে শ্রীলংকায় হামলার সম্পৃক্ততা নেই : নিউজিল্যান্ড

নিউজ ডেস্ক::রবিবার ইস্টার সানডে’তে গীর্জায় প্রার্থানারত খ্রীস্টান ধর্মাবলম্বীদের ওপর আত্মঘাতী সিরিজ বোমা হামলায় কেঁপে ওঠে সমগ্র কলম্বো।

ভয়াবহ এই সিরিজ বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩২১ জনে দাঁড়িয়েছে। ২৩ এপ্রিল, মঙ্গলবার শ্রীলঙ্কার প্রতিরক্ষামন্ত্রী নিহতের এ সংখ্যা জানিয়েছেন।

বিশ্বের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে কিছুদিন আগে নিউজিল্যান্ডে ঘটে যাওয়া ক্রাইস্ট চার্চ মসজিদে হামলার প্রতিশোধ হিসেবে দেখছেন।

তবে শ্রীলংকার হামলার সঙ্গে গত মাসে ঘটে যাওয়া ক্রাইস্টচার্চে হত্যাকাণ্ডের কোনো সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছে দেশটির প্রধানমন্ত্রী জাসিন্দা আরডানের কার্যালয়। মঙ্গলবার গোয়েন্দা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে এ তথ্য জানায় নিউজিল্যান্ড।

এদিকে শ্রীংলকায় রোববার আত্মঘাতী হামলায় ৩২১ জন নিহতের ঘটনায় দেশটির পক্ষ থেকে নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মুসলিমদের ওপর হামলার ঘটনায় এ হামলা চালানো হয়েছে বলে আনুষ্ঠানিকভাবে বলা হয়।

গত ১৫ মার্চ ক্রাইস্টচার্চে দুই মসজিদে সন্ত্রাসী হামলায় ৫০ জন মুসলমান নিহত হয়েছেন। এ ঘটনায় হামলাকারীরর বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ আনা হয়।

আরডানের মুখপাত্র বলেন, সরকার শ্রীলংকার পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বিবৃতি পর্যালোচনা করেছে। ক্রাইস্টচার্চে হামলা ও ইস্টার সানডেতে হামলার ঘটনার বিষয়টি দেখেছে।

আমরা বুঝতে পেরেছি শ্রীলংকা প্রাথমিকভাবে তদন্ত করেছে। তিনি বলেন, নিউজিল্যান্ড এখনো এমন কোনো গোয়েন্দা প্রতিবেদন দেখেনি যার ওপর ভিত্তি করে এর মূল্যায়ন করা যেতে পারে।

এখন পর্যন্ত হামলার ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে পুলিশ ৪০ জনকে আটক করেছে। নাশকতার তদন্তে সর্বোচ্চ ক্ষমতা দেওয়া হলো শ্রীলঙ্কার পুলিশ এবং সেনাকে। এর ফলে আদালতের নির্দেশ ছাড়াই কোনও অভিযুক্তকে গ্রেফতার বা জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারবে তারা।

মঙ্গলবার থেকে হামলার ঘটনায় নিহতদের গণকবর দেওয়া শুরু হয়েছে শ্রীলঙ্কায়। এদিন সকাল সাড়ে ৮টার সময় সারা দেশজুড়ে নীরবতা পালনের পরপরই শুরু হয় গণকবর।

রোববার ইস্টার সানডেতে শ্রীলংকার তিনটি গির্জা, তিনটি হোটেলসহ অন্তত আটটি স্থানে পরপর বোমা হামলা হয়। নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে ৩৬ জন বিদেশি নাগরিক। আহত পাঁচ শতাধিক।

ওই দিন ছিল খ্রিস্টান সম্প্রদায়ের অন্যতম বড় উৎসব ইস্টার সানডে। হামলার সময় তিন গির্জায় ইস্টার সানডের প্রার্থনা চলছিল। সূত্র: এএফপি।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: এ. আর. সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: