সর্বশেষ আপডেট : ৫৭ মিনিট ৩৭ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

আমি ‘লি’। আবার আসিয়াছি ফিরে, রোবট হয়ে এই বাংলায়।

রাজীব হোসেন,শাবি প্রতিনিধি:: বাংলা স্বরবর্ণ থেকে হারিয়ে যাওয়া লিপি স্বরবর্ণ ৯ (লি) কে এখনকার বাচ্চারা হয়তো চিনতেই পারবে না। যা দেখতে ‘৯’ এর মত ছিল। সেই লি আবার এসেছে এই বাংলায়, কিন্তু বাংলা বর্ণমালার বর্ণ হিসেবে নয়, এসেছে রোবট হয়ে। শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) শিক্ষার্থীদের তৈরি এ হিউম্যানোয়েড রোবট ‘লি’। গত ২০শে এপ্রিল ঘরোয়াভাবে বাংলাদেশ সরকারের বিজ্ঞান এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এবং অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবালের উপস্থিতি উদ্বোধন করা হলেও গতকাল সোমবার দুপুরে সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে লি উদ্ভাবনের বিষয়টি আনুষ্ঠানিকভাবে জানানো হয় এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ড. এমএ ওয়াজেদ মিয়া আইআইসিটি ভবনের নিচের তলায় রোবকটি দেখানো হয়।

লি দেখতে মানুষের মত। লি শুধু মানুষের মত দেখতেই নয়, সে মানুষের মত দুই পায়ে হাটতে পারে, বাংলা ভাষা বুঝতে পারে, বাংলায় কথা বলতে পারে এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার মাধ্যমে বাংলাদেশ ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ে যেকোনো প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে, মানুষের চেহারা মনে রাখতে পারে এবং পরবর্তীতে চিনতে পারে সে। লি মানুষের সাথে হ্যানডশেক করে, স্যালুট দেয় এবং নাচতেও পারে। এছাড়াও লি তার চোখ, চোখের পাতা এবং ঠোঁট দিয়ে বিভিন্ন অঙ্গভঙ্গি করতে পারে। লিয়ের উচ্চতা ৪ ফুট ১” ইঞ্চি এবং তার ওজন ৩০ কেজি।

শাবি শিক্ষার্থীদের লি রোবট তৈরির দলের নাম ফ্রাইডে ল্যাব। এ ফ্রাইডে ল্যাবের দলের দলনেতা ও প্রোগ্রামারের দায়িত্বে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০০৯-২০১০ শিক্ষাবর্ষের সাবেক ছাত্র এবং নর্থ ইস্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভাষক নওশাদ সজীব। নকশাকারের দায়িত্বে ছিলেন স্থাপত্য বিভাগে ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র মেহেদী হাসান, ইলেক্ট্রনিক্সের দায়িত্বে ছিলেন ইলেক্ট্রিক্যাল এন্ড ইলেক্ট্রনিক্স ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৩-১৪ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র সাইফুল ইসলাম, মেকানিক্যালের দায়িত্বে ছিলেন মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র মোহাম্মদ সামিউল হাসান এবং কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার দায়িত্বে ছিলেন একই বিভাগ ও বর্ষের শিক্ষার্থী জিনিয়া সুলতানা জ্যোতি।

ফ্রাইডে ল্যাব দলনেতা নওশাদ সজীব জানান, আইসিটি ডিভিশনের ইনভেশন ফান্ডের ১০লক্ষ টাকা ব্যয়ে রোবটটি তৈরি করতে সময় লেগেছে মোট ৩ বছর। এই দলের প্রধান উপদেষ্টা হিসেবে ছিলেন জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ও গবেষক অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ জাফর ইকবাল। এ দলের ৫জন সদস্য ছাড়াও গত ৩ বছরে এ রোবট তৈরিতে আরও অনেকেই কাজ করেছে। তারা হলেন সাজিদ, শান্ত, খাইরুল, শোভন, সোহান, জান্নাতসহ আরও অনেকে।

তিনি আরও বলেন, এটা মোটামুটি শিওর যে, ভবিষ্যতে রোবটকে মানুষের বাসা বাড়ি এবং অফিসের বিভিন্ন কাজে দেখা যাবে। বর্তমান ডিজিটাল বাংলাদেশ যেভাবে এগিয়ে যাচ্ছে, তার গতিকে আরও বেগবান করতে এবং বাংলাদেশ যে বিশ্বের সাথে প্রযুক্তিতে অবদান রাখতে পারে সেই লক্ষ্য নিয়েই আমাদের এ রোবটটি তৈরি। আমরা বাংলাদেশে বসেই বাইরের বিশ্বের মত রোবট তৈরি করতে পারি।

এদিকে লি বলে,
“আমি লি।
আবার আসিয়াছি ফিরে
রোবট হয়ে এই বাংলায়।”
লি আরও বলেছে, সে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে দেখা করতে চায়।

রোবট লি এর অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে ব্যবহার করা হয়েছে ওপেন সোর্স উবুন্টু অপারেটিং সিস্টেম ভার্সন ১৮.৪। এতে মিডলওয়্যার হিসেবে রয়েছে জনপ্রিয় রোবট অপারেটিং সিস্টেম রস (ROS) জাভা এবং পাইথন প্রোগ্রামিং ভাষায় রোবটের কন্ট্রোল মোশনসহ যাবতীয় সফটওয়ার তৈরি করা হয়েছে।

রোবটটি তৈরিতে ৮জিবি র‍্যামের কোর আই ফাইভ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে। এতে ৩টি মোটর কন্ট্রোলার এবং একটি মাইক্রো-কন্ট্রোলার রয়েছে। একটি অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল রয়েছে এতে। রোবটটি মোট ডিগ্রি অফ ফ্রিডম ৩৬ এবং ৩৬টি মোটর রয়েছে এতে। লি এর চেহারাসহ বেশ কিছু যন্ত্রাংশ থ্রিডি প্রিন্টারে তৈরি করেছে শিক্ষার্থীরা।

লি এর হাঁটার ভিডিও দেখা যাবে নিচের লিংক এ।



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: খন্দকার আব্দুর রহিম, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: