সর্বশেষ আপডেট : ৪২ মিনিট ২৩ সেকেন্ড আগে
সোমবার, ১৫ জুলাই ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৩১ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছবি তোলায় শাবি সাংবাদিকের মোবাইল কেড়ে নিলো ছাত্রলীগ

শাবি প্রতিনিধি:: অটোরিকশায় বসা নিয়ে কথা কাটাকাটির জের ধরে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শাবি) ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, রুম ভাংচুর ও সংঘর্ষে চারজন ছাত্রলীগ কর্মী আহত হওয়ার ঘটনা ঘটেছে। গতকাল মঙ্গলবার দুপুরে দুই দফায় ছাত্রলীগের এই সংঘর্ষ হয়। এদিকে সংঘর্ষের ছবি তুলতে গেলে সমকালের শাবি সংবাদদাতার ফোন কেড়ে নেয় শাবির লোকপ্রশাসন বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র এবং ছাত্রলীগকর্মী মাহমুদুল।

মঙ্গলবার দুপুর ১টার দিকে শাবির শাহ পরান হলের সামনে অটোরিকশায় উঠা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টি টেকনোলজি বিভাগের ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র লিখনের সাথে কথা কাটাকাটি হয় শাবির ব্যবসায় প্রশাসন বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের দুই ছাত্র জনি ও জীবনের সাথে৷ লিখন শাবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইমরান খানের সমর্থক এবং জনি ও জীবন শাবি ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মৃন্ময় দাশ ঝোটনের সমর্থক। পরে মীমাংসা করার জন্য উভয় গ্রুপের নেতাকর্মী শাবির ক্যাফেটেরিয়ার পাশে আলোচনায় বসে। আলোচনার এক পর্যায়ে ইমরান খান সমর্থিত লিংকন, মনোয়ার, মাহমুদুল, মোফাজ্জল, মাসুদ, নাজমুল, সাজ্জাদ উত্তেজিত হয়ে হাতাহাতি হয় এবং পাশে পড়ে থাকা বাঁশ দিয়ে জনি, জীবন, রবিন, আতিক ও সোহানকে আঘাত করে তারা।

সংঘর্ষের সময় শাবি প্রক্টর জহির উদ্দিন আহমদ সেখানে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন এবং তাদের নিয়ে প্রক্টর অফিসে গিয়ে উভয় গ্রুপের মাঝে মীমাংসা করেন।ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মৃন্ময় দাশ ঝোটনের চারজন সমর্থক আহত হয়েছে। এর মধ্যে দুইকে বিকেলে এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে।

সংঘর্ষের সময় সমকালের শাবি সংবাদদাতা রাজীব হোসেন সংঘর্ষের ছবি তুলতে গেলে মাহমুদুল নামের এক ছাত্রলীগ কর্মী তার মোবাইল ফোন কেড়ে নেয় এবং মোবাইলে উঠানো সংঘর্ষের ছবি গুলো ডিলিট করে। পরবর্তীতে তাদের সাথে যোগাযোগ করলে তারা মোবাইল ফোন ফেরত দেয়। পরে রাতে ফোন করে মোবাইল কেড়ে নেওয়ার দায়ে সাংবাদিকের কাছে দুঃখ প্রকাশ করে। মাহমুদুল লোকপ্রশাসন বিভাগের ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের ছাত্র এবং সাধারণ সম্পাদকের সমর্থক। মোবাইল ফোন ফেরত দেওয়ার পর সাধারণ সম্পাদক ইমরান খান সাংবাদিককে বলেন, আমি সাংগঠনিকভাবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিবো।

এদিকে একই ঘটনাকে কেন্দ্র করে মীমাংসার পরে বেলা সাড়ে ৩টার দিকে ভুল বোঝাবুঝি নিয়ে শাহ পরান হলে উভয় গ্রুপের মধ্যে আবারও সংঘর্ষ হয়। সংঘর্ষের সময় ১২৫ নম্বর রুমে ভাংচুর করা হয়েছে। পরে জালালাবাদ থানার পুলিশ এবং শাবি প্রশাসন এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

এ ব্যাপারে শাবি প্রক্টর জহির উদ্দিন আহমদ বলেন, আমি দুপুরের ঘটনা পুরোপুরি জানি এবং বিকেলে যেটা হয়েছে সেটা একটা ভুল বোঝাবুঝির মাধ্যমে হয়েছে। কিন্তু, আমরা সবকিছু খতিয়ে দেখে এ ব্যাপারে একটা ব্যবস্থা নিবো।

জালালাবাদ থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি শাহ হারুনুর রশীদ জানান, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন জানানোর পর আমরা এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছি এবং এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে।



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে. এ. রাহিম. সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: