সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছিনতাই থেকে সাবধান থাকার সতর্কবার্তা ঝুলছে সিলেটে, বিকল সিসি ক্যামেরা

সাত্তার আজাদঃ সিলেট নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ বিভিন্ন পয়েন্টে ছিনতাইকারী থেকে সাবধান থাকতে সতর্ক করে সাইনবোর্ড টানিয়ে দিয়েছেন এলাকাবাসী। নগরীর সিসি ক্যামেরার বেশিরভাগই বিকল থাকায় ছিনতাই বেড়ে যাওয়াতে স্থানীয়রা নিজ উদ্যোগে এই সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নিয়েছেন।

সিলেট নগরীর গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টে ৯২টি ক্যামেরা লাগানো। এর প্রায় ৮০টি ক্যামেরা অচল। ফলে সিলেট নগরীতে ছিনতাই বেড়ে গেছে। ২০ জানুয়ারি নগরীর তালতলা এলাকায় সিসি ক্যামেরার নিচে ছিনতাইয়ের শিকার হন বাংলাদেশ ব্যাংকের কর্মকর্তা লিলি রানী দেবী। ১২ ফেব্রায়ারি রাতে নগরীর জিন্দাবাজার-চৌহাট্টা সড়কে সিসি ক্যামেরার সম্মুখে হামলার শিকার হন ব্যবসায়ী রাহাদুজ্জামান মুন্না। ঘটনা দুটির তদন্তে নেমে সিসি ক্যামেরার কোনো ফুটেজই সংগ্রহ করতে পারেনি পুলিশ।

সিলেট নগরীতে লাগানো সিসি ক্যামেরাগুলোর সিংহভাগই বিকল হয়ে পড়ে আছে। নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণ ও তদারকির অভাবে কাজে আসছে না নগরীর নিরাপত্তার স্বার্থে লাগানো এসব সিসি কামেরা। ফলে নগরীর নিরাপত্তা বিঘ্নিত হয়ে বেড়েছে ছিনতাই। এতে ছিনতাইকারীর কবল থেকে নিরাপদ থাকতে নগরীর বিভিন্ন গলিতে টানিয়ে দেয়া হয়েছে সতর্কতা সাইরবোর্ড। কোথাও কোথাও গলির প্রবেশ মুখে গেট করে স্থানীয়রা চৌকিদার বসিয়েছেন।

সিসি ক্যামেরা তদারকি করে সিলেট সিটি করপোরেশন। পুলিশ বলছে তাদের অবহেলাতে বিকল পড়ে আছে ক্যামেরাগুলো। তবে নগর কর্তৃপক্ষ বলছে, ক্যামেরাগুলো নিয়মি

এ ব্যাপারে সমন্বয়হীনতাকেও দায়ি করেছেন সিটি করপোরেশনের একাধিক কর্মকর্তা। তাঁরা জানান, সিটি করপোরেশন ক্যামেরাগুলো স্থাপন করলেও তা মনিটর ও ব্যবহার করে কতোয়ালি থানা পুলিশ। এই দুই প্রতিষ্ঠানের সমন্বয়হীনতায় সিসি ক্যামেরাগুলো বিকল হতে পারে।

সিলেট নগরীর অপরাধ নিয়ন্ত্রণ ও নগরবাসীর নিরাপত্তার স্বার্থে ২০১২ সালে প্রথমে ২২ টি সিসি ক্যামেরা বসানো হয়েছিলো। এরপর পুলিশের অনুরোধে আরও ৭০ টি সিসি ক্যামেরা বসায় সিটি করপোরেশন। এরমধ্যে দক্ষিণ সুরমায় ২২টি, আম্বরখানা-বিমানবন্দর সড়কে ২২টি ও সিলেট জজ কোর্ট এলাকায় ২৬টি ক্যামেরা স্থাপন করা হয়। এছাড়া বিভিন্ন ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও বিপনী বিতানগুলোর ব্যবসায়ীদের উদ্যোগে স্ব স্ব এলাকায় স্থাপন করা হয় আরও শতাধিক ক্যামেরা। এসবের বেশিরভাগই এখন বিকল হয়ে পড়ে আছে।

সিলেট কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সেলিম মিয়া বলেন, কোতোয়ালী থানার আওতাধীন প্রায় সবগুলো ক্যামেরাই অচল অবস্থায় আছে। এতে অনেক সমস্যা হচ্ছে। খুন, চুরি, ছিনতাইকারী বা অন্যান্য অপরাধের ক্ষেত্রে অপরাধীদের চিহ্নিত করতে আগের মতোই জটিলতায় পড়তে হচ্ছে।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: