সর্বশেষ আপডেট : ৪ ঘন্টা আগে
শনিবার, ২৫ মে ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ১১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

প্রবাসীদের প্রচেষ্টা দেখে ঘড়ির কাটাও যেন ক্লান্ত হয়ে পড়ে! (১ নং পর্ব )

পিকলু প্রিয়:: প্রবাস জীবনে পাড়ি জমাতে হবে অনেকেই তা কল্পনাই করেন না। আর কল্পনাই – বা করবেন কেন! অপরুপ সুন্দর বাংলাদেশ যেখানে মাটির সাথে মিশে আছে জীবন, যেখানে প্রকৃতির অপার লীলাময়ে লুকিয়ে আছে প্রাণ। সেগুলো ছেড়ে মরুতে পাড়ি দেওয়া সত্যি বেদনাময়!!

অনেকেই প্রবাসে আসার পর প্রথম দিকে ব্যাপারটা তাদের কাছে বনবাসের মত লাগে। আমার দেখা একজন প্রবাসী হিসেবে প্রতিদিনই নিত্ত নতুন ঘটনার সম্মুখীন হতে হয় এবং হচ্ছেন! সাথে সাথে অভিজ্ঞতার ভান্ডারও বৃদ্ধি পেতে থাকে। প্রবাস জীবন শিখিয়ে দেয় কিভাবে আশেপাশে ঘঠে যাওয়া অনেক কিছুকেই এড়িয়ে জীবনযুদ্ধে এগিয়ে যেতে হয়। নিরাশার অতল গহীনে হারিয়ে যাওয়া ছেলে’গুলো চোখের নোনাজল আর শরীরের ঘামকে উপেক্ষা করে বলতে শিখেছে “আমি ভাল আছি মা” তোমরা ভাল আছ-তো? এমনকি অনেক অখাদ্যকে অমৃতসুধা মনে করে খেয়ে তৃপ্তির ঢেকুর তুলেন। খাওয়ার পর মায়ের শাড়ির আচঁলে মুখ মুছা ছেলেগুলোও এখন ধুলোমাখা ঘামের শার্টেই মুখ মুছে।

ঘর থেকে বের হলেই যাদের বাইক কিংবা রিক্সার প্রয়োজন হত, তাদেরকে এখন স্বচক্র যানে বা দ্বিচক্র যানে পায়ে হেঁটেই পাড়ি দিতে হয় অনেক পথ। নরম বিছানায় গা এলিয়ে দেওয়া ছেলেগুলো নরম বিছানার জায়গা কাঠের তক্তা দখল করে নিয়েছে।
সকালে ঘুম থেকে উঠাতে যাকে ডাকা ডাকির অন্ত থাকত না, প্রবাসী হবার কারনেই তাকে সূর্যি মামার আগেই জেগে উঠতে হয়।
শরীর খারাপ’কে পিছনে ফেলে রোদ বৃষ্টিকে উপেক্ষা করে এগিয়ে যেতে হয় কর্মস্থলে।

এক সময় বন্ধুদের নিয়ে অস্থির জীবন যাপনে অভ্যস্থ ছেলেদের অন্য এক অস্থিরতায় পেয়ে বসে! তা হলো বিদেশে আসার ধার দেনা ফেরত দেওয়ার অস্থিরতা। প্রতিটি টাকা খরচ করতে তাকে দু’বার ভাবতে হয়। যে ছেলেগুলো দেশে কোন কাজই করে’নি, প্রবাসে তাদেরকে একটি শুক্রবার কিংবা রবিবার কাজ বন্ধ দিলে হতাশা পেয়ে বসে। এই ভেবে যে –এ মাসে টাকা কম আয় হবে। অথচ তাদেরকে নিতান্তই ভূলে যেতে হয় যে সপ্তাহের ৬ টি দিন’ই ভোর ৪ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত কাজ করতে হয়।

ছাত্ররাজনীতির মাঠে বীরদর্পে প্রদক্ষীণ করা ছেলেগুলোই রাজনীতির ভেদাভেদ ভূলে, প্রতিহিংসাকে পিছনে ফেলে “বাংলাদেশি” পরিচয়ে এগিয়ে চলে। বিপদে ভাই বন্ধুর মত পাশে দাঁড়ায়। যদিও সব বাঙ্গালী এক নয়!
সারা দিন কাজের শেষে রাত জেগে পড়াশোনা করতেও তারা ক্লান্ত হয় না, মনে হয় এ যেন জীবনান্দনের মত ক্লান্ত হয়ে ছুঁটেই চলেছে তারা, ভোর হতেই বেড়িয়ে পরে কর্মস্থলে। প্রবাসীদের এমন প্রচেষ্টা দেখে ঘড়ির কাটাও যেন ক্লান্ত হয়ে পরে!

তবে দিনশেষে প্রবাসীদের জন্য খুব মজার একটি বিষয় হচ্ছে শত কষ্ট, ব্যস্ততার মাঝেও খুশি হতে খুব বেশি কিছু প্রয়োজন হয় না। দেশ ভাল আছে, দেশে সবাই ভাল আছে, পরিবার পরিজনের হাসি মাখা মুখ ও কন্ঠস্বরই ভরিয়ে দেয় প্রবাসীদের ক্লান্ত প্রাণকে।

প্রবাসে চরিত্র গুলো ভিন্ন হতে পারে কিন্তু তাদের জীবন যুদ্ধ, গল্পকথা মোটামুটি একই রকম। প্রতিটি জীবনই প্রবাসে এসে বদলে যায়, সজ্জিত হয় সম্পুর্ণ এক নতুন ধাচে। প্রবাস জীবন শিখায় জীবনকে উপলব্ধি করতে, শত বাঁধা বিপত্তি উপক্ষা করে, মারামারি কাটাকাটি’কে বুড়ো আঙ্গুল দেখিয়ে মস্তিকের জোড়ে কি ভাবে এগিয়ে যেতে হয়।

তবে একটা কথা পরিষ্কার করে বলতে চাই! প্রবাসে যারা থাকেন তারা হাড়ে হাড়ে টের পান জীবন কাকে বলে।
অথচ দেশ থেকে পরিবার পরিজন বন্ধু-বান্ধবসহ অনেকেই অনেক কিছু দাবি করেন! তবে দাবি থাকটা স্বাভাবিক এবং সেই দাবি মেটানো’টা আহামরি কিছুই নয়! কিন্তু চিরন্তন সত্য হলো আপনারা চোখে না দেখলে বুঝবেন না প্রবাসীরা বুকে পাথর রেখে কি ভাবে আপনাদের চাহিদা পূরণ করে যাচ্ছে আবার কখনো কখনো হিমশিমও খেতে হচ্ছে! কারণ অধিকাংশ প্রবাসিদের রোজগারটা তাদের হিসেবের। তারা পারতে টাকা খরছ করতে চান না, কেন চান তা উপরের কথাগুলোর দিকে নজর দিলেই বুঝা যাবে। যে পরিবারের সদস্যরা ভাবেন আপনাদের বাবা, কাকা, মামা, ভাই, বিদেশ থাকেন আপনারা কাজ কর্ম না করে চুল স্পাইক করে, দামি পারফিউম মেখে, মোটর সাইকেল নিয়ে ঘুরাঘুরি করেন আপনারা বুঝবেন না এই টাকাগুলো কত কষ্ট, কত নোনাজল আর ঘামের বিনিময়ে উপার্জিত হয়। বিশেষ করে বাংলাদেশের ক্ষেত্রেই এক রকম ঘটনা বেশি হয়। পরিবার একজন বিদেশ থাকেন তার উপর ঝুলে থাকেন বাকিসবাই। আমি মনে করি আপনাদের দাবিটা যতটুকু থাকে তার থেকে বেশি ভালবাসা দেন প্রবাসীদের।

বাংলাদেশ থেকে যারা প্রবাসে এসে কাজ করছেন দেশের রেমিটেন্স বাড়াচ্ছেন। বাংলাদেশ সরকার তাদের কতটুকু মূল্যায়ন করে সেটা নিয়েও রয়েছে অনেক সংশয়! প্রবাসে ৫-৭ বছর কাজ করে যখন স্বদেশের টানে সাত সমুদ্র তের নদী পাড়ি দিয়ে যান। তখন ইয়ারপোর্টে কত রকমের ঝামেলা পুহাতে হয় তা বলাই বাহুল্য আর যদি কম শিক্ষিত মানুষ হয় তা হলে তার কি অবস্থা হয় তা নিশ্চয় আপনারা অনুমান করতে পারেন। এখানেই শেষ নয় কষ্টের রোজগার দিয়ে যখন পরিবার পরিজনদের জন্য কিছু জিনিসপত্র নিয়ে আসেন সেগুলো নিয়েও অনেক ঝামেলা পোহাতে হয় প্রতারণার স্বীকার হতে হয়। প্রশ্নটা হচ্ছে এই মানুষগুলোই দেশে ভাল কিছু করার সুযোগ না পেয়ে স্বদেশ ছেড়ে বিদেশ পাড়ি জমান, এবং যেখানে বাংলাদেশ সরকারের রয়েছে বিশাল অংকের আয়। তা হলে কেন তাদেরকে এত ঝামেলা ও প্রতাররণার স্বীকার হতে হয়। বরং বাংলাদেশ সরকারের উচিত ছিল এই রেমিটেন্স যোদ্ধাদের ভালবাসার মালা পড়িয়ে গ্রহন করা।

পরিশেষে বাংলাদেশ সরকারের উদ্দেশ্যে বলব আপনারা কি জানেন আরব আমিরাতে এই যোদ্ধারা মরুর বুকে ৪২ থেকে ৫০ ডিগ্রী তাপে সবুজ ঘাস ফলানোর কষ্ট, উঁচু উঁচু দালান তৈরি করার কষ্ট। আপনারা কি বুঝেন হাড় কাঁপানো শীতে যোদ্ধারা কি ভাবে কাজ করে যায়। এত কিছু সহৎ করেও প্রবাসিরা নীরবে নিভৃতে স্বদেশকে ভালোবেসে বিদেশে কাজ করে যাচ্ছেন।

লেখক: পিকলু প্রিয়, দোহা, কাতার।




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: এ. আর. সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: