সর্বশেষ আপডেট : ১৬ মিনিট ৪১ সেকেন্ড আগে
শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৭ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

দিরাই উপজেলায় বাঁধের কাজ শেষ হলেও বকেয়া বিল পাচ্ছেনা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি পিআইসি

আল-হেলাল,সুনামগঞ্জ:: সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় পানি উন্নয়ন বোর্ড পাউবোর উদ্যোগে নির্মিত বাঁধের কাজ শেষ হলেও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি পিআইসির সাথে জড়িতরা বিল পাচ্ছেননা বলে অভিযোগ উঠেছে।

এবার ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০২টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি পিআইসির মাধ্যমে বাঁধের কাজ শুরু হয়। এসব পিআইসির সাথে জড়িত রয়েছেন প্রায় ৫ শতাধিক কৃষক। তাদের দাবী ইতিমধ্যে শতভাগ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। কিন্তু কাজ শেষ করলেও ৫০ ভাগ বকেয়া বিল পাচ্ছেননা তারা। কর্তৃপক্ষ মাত্র ২টি বিলের আওতায় প্রত্যেক পিআইসিকে সর্বোচ্চ ৪০-৬০% বিল প্রদান করেছেন। পুরো বিল না পাওয়ায় পিআইসিরা ঋনদাতাদের কাছে নানাভাবে নাজেহাল হচ্ছেন বলেও জানা গেছে। অন্যদিকে কৃষকরা দাবী করছেন দিরাই উপজেলায় বাঁধের কাজে সবচেয়ে বেশী দুর্নীতি হয়েছে উপজেলার তাড়ল ইউনিয়নের বাঁধগুলোতে।

এছাড়া জগদল ইউনিয়নের বেশীর ভাগ পিআইসির কাজ সম্পন্ন হলেও দুএকটি বাঁধের কাজে অনিয়ম হয়েছে। সাবেক মেম্বার সুজাত মিয়া ও এলাকাবাসী ৮৯ নং পিআইসির সভাপতি দবিরুল ইসলামের বিরুদ্ধে উপজেলা প্রশাসনের কাছে লিখিত অভিযোগ করেও কোন আইনগত প্রতিকার না পাওয়ায় দেওয়ানি আদালতে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তারা বলছেন,বাঁধের কাজ করতে গিয়ে দবিরুল ইসলাম এক্সেভেটর মেশিন দিয়ে কাটা মাটি বাঁধে উঠানোর ফলে উভয় পাশের্^ ১০ ফুট গভীর হয়ে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়। এতে ভাঙ্গন দেখা দেয়। ভাঙ্গন টেকানোর জন্য গর্তে নদী হতে ২টি পাওয়ার পাম্প দ্বারা পানি উত্তোলন করা হয়। ফলে ভাঙ্গন আরো তীব্রতর হয়। বাঁধ রক্ষার স্বার্থে পানি সরিয়ে মাটি দ্বারা গর্ত ভরাট করলে হয়তো বাঁধের ভবিষ্যত ভাঙ্গন রোধ করা যেতো। কিন্তু এখন পর্যন্ত গর্তগুলো মাটি দ্বারা ভরাট করা হয়নি।

এছাড়া বাঁধে মাটি ভরাট করা হয়েছে একেবারে বাঁধের কাছ থেকে মাটি কেটে। কোন নিয়ম নীতির তোয়াক্কা করেনি পিআইসির লোকেরা। পিআইসির সভাপতি দবিরুল ইসলাম তার বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। দিরাই উপজেলা কাজের বিনিময়ে টাকা (কাবিটা) স্কীম প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইউএনও শরিফুল ইসলাম বাঁধের কাজ শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে দাবী করে বলেন,দিরাই উপজেলায় ২০ কোটি টাকা ব্যয়ে ১০২টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি পিআইসির মাধ্যমে বাঁধের কাজ আমরা সম্পন্ন করেছি। দুএকটি পিআইসিতে সমস্যা থাকলেও মোটামোটি সবগুলো পিআইসিই কাজ সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করেছে। এখন সকল পিআইসিদেরকে তাদের পুরো বিলের বকেয়া টাকা দিয়ে দিলে দূর্যোগের সময় কাউকে পাওয়া যাবেনা। তাই সময়মতো পিআইসিদের বকেয়া বিলও পরিশোধ করবো।




এ বিভাগের অন্যান্য খবর




নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে এ রহিম সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪ (নিউজ) ০১৭১২৮৮৬৫০৩ (সম্পাদক)
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: