সর্বশেষ আপডেট : ১ ঘন্টা আগে
বুধবার, ১৯ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

ছাতকে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ

ছাতক সংবাদদাতা:: ছাতকে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নিয়োগে ব্যাপক অনিয়ম ও দূর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। নীতিমালা উপেক্ষা করে অনেককেই দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। নিয়োগ বিধিমালা অনুযায়ী বিদ্যালয়ের ক্যাচমেন্ট এলাকার মধ্যে অবস্থানরত নাগরিকরা এ পদে আবেদন করার কথা থাকলেও ক্যাচমেন্ট এলাকার বাইরের প্রার্থীকে এ পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে এমন অভিযোগও রয়েছে। শহরের কুমনা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগে এনে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন কুমনা গ্রামের মুক্তিযোদ্ধা অধির চন্দ্র পাল। অসহায় এ মুক্তিযোদ্ধা পুত্রের চাকুরীর জন্য এ অভিযোগ জেলা ও উপজেলার বিভিন্ন দপ্তরে দাখিল করেন।

অভিযোগ থেকে জানা যায়, পৌরসভার ৪ ওয়ার্ডের বাসিন্দা মুক্তিযোদ্ধা অধির চন্দ্র পালের পুত্র গোপাল চন্দ্র পাল গোপী নিয়োগবিধিমালা অনুযায়ী কুমনা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী পদে আবেদন করে। নিয়োগ পরীক্ষায় সে ভালো ফলাফলও করে। আবদনকারীদের মধ্যে গোপাল চন্দ্র পাল গোপী একমাত্র মুক্তিযোদ্ধা সন্তান। এ হিসেবে পুত্রের নিয়োগ প্রায় চুড়ান্ত বলে আশায় বুক বেধেছিলেন মুক্তিযোদ্ধা অধির চন্দ্র পাল। কিন্ত ১১ মার্চ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা স্বাক্ষরিত চুড়ান্ত নির্বাচিতদের তালিকা নোটিশ বোর্ডে সাটানো হয়। তালিকাতে কুমনা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী পদে নিয়োগ দেয়া হয় রুবেল আহমদ নামের এক যুবককে। আর ২য় স্থানে রাখা হয় মুক্তিযোদ্ধা পুত্র গোপীকে। বিদ্যালয়টি ৪নং ওয়ার্ডের মধ্যে অবস্থান করলেও ক্যাচমেন্ট বহির্ভুতভাবে ৫ নং ওয়ার্ডের লেবারপাড়া এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা শফিকুল ইসলামের পুত্র রুবেল আহমদকে নিয়োগ দেয়া হয়। নিয়োগ বিধিমালা পরিপন্থি কুমনা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী পদে এ নিয়োগ বাতিল করে তার পুত্রকে নিয়োগ দেয়ার জন্য ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী জানান মুক্তিযোদ্ধা অধির চন্দ্র পাল।

এদিকে, নোয়ারাই ইউনিয়নের বাতিরকান্দি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দপ্তরী কাম নৈশ প্রহরী পদে নিয়োগ পেয়েছে ক্যাচম্যান্ট এলাকার বাইরের ইসলামপুর এলাকার স্থায়ী বাসিন্দা মোশারফ হোসেন। ক্যাচমেন্ট এলাকার নিয়োগ প্রত্যাশী বাতিরকান্দি গ্রামের মৃত আব্দুল কাইয়ূমের পুত্র ফরিদ আহমদ এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। অপরদিকে, রাউলী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়েও একইভাবে নিয়োগ দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে দোলারবাজার ইউনিয়নের রাউলী গ্রামের নিয়োগ প্রত্যাশী শংকর দাস।



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে. এ. রাহিম. সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: