সর্বশেষ আপডেট : ৬ মিনিট ২৯ সেকেন্ড আগে
রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯ খ্রীষ্টাব্দ | ২ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ |

DAILYSYLHET

‘শিবগঞ্জে মৌরসি ভূ-সম্পদ আত্মসাতের উদ্দেশে অপপ্রচার করা হচ্ছে’

স্বত্ব-দখলীয় মৌরসি ভূ-সম্পদ আত্মসাতের হীন উদ্দেশে ভূমিদস্যু চক্র অপপ্রচারমূলক চালাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন নগরীর শিবগঞ্জ সেনপাড়া আলপনা-৮৩-এর প্রয়াত মণিপুরি রোহিনী সিংহ’র পুত্র রঞ্জন সিংহ। রোববার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ অভিযোগ করেন।

লিখিত বক্তব্যে রঞ্জন সিংহ বলেন, সিলেট সদর উপজেলার সেটেলমেন্ট জরিপি ছাপা ৯৭ নং রায়নগর মৌজা মহলে আদিত্যপাড়া প্রকাশিত সেনপাড়াস্থিত ১৮৩ নং খতিয়ানের ১৪৩ দাগের বাড়ি রকম ০.৪৮ একর ভূমি আমি রঞ্জন সিংহ ও আমার কাকা সূর্য্য সিংহ দায়ভাগ সূত্রে মালিক স্বত্ববান ও দখলকার রয়েছি। তামাদি মুদ্দতকাল থেকে আমাদের পূর্বসুরীসহ আমরা ওই ভূমি ভোগদখল, ভোগশাসন ও ভোগ-ব্যবহার করে আসছি এবং পৃথক দাগে ওই ভূমি আমাদের নিজ বসত বাড়ির অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ বলে পরিগণিত হয়ে আসছে। কিন্তু ২০১২ সালে এ ভূমি সরকারি ‘ক’-তফসিল গেজেটে ৮০৬৭ নং পৃষ্ঠার ২৪ নং ক্রমিকে অর্পিত সম্পত্তির তালিকাভুক্ত দেখে আমরা বিচলিত হয়ে পড়ি এবং আইনানুসারে ভূমি ফিরে পাওয়ার জন্য সরকার গঠিত ট্রাইব্যুনালে মামলা করি, যা অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যার্পন ট্রাইব্যুনাল, সিলেট-এর মামলা নং-১০৪৩/২০১২। মামলায় সরকার পক্ষে সিলেট জেলা প্রশাসককে বিবাদী করা হয় এবং উভয়পক্ষে সাক্ষ্য-প্রমাণ ও দলিলাদি পর্যালোচনা এবং চূড়ান্ত শুনানি শেষে গত ৬ জানুয়ারি আদালত উল্লেখিত ১৪৩ দাগের বাড়ি রকম ০.৪৮ একর ভূমি অর্পিত সম্পত্তি হতে অবমুক্তির আদেশ প্রদান করেন। আদেশে এ ভূমি আমাদের স্বত্ব-দখলীয় মর্মে আমাদের পক্ষে রায় প্রদান করেন। ট্রাইব্যুনালের এ রায় ঘোষনার পর ভূমিদস্যু চক্র ও তাদের সহযোগী আমাদের মণিপুরি সম্প্রদায়ের কিছু লোক প্রত্রিহিংসা পরায়ন হয়ে আমাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও বিভ্রন্তিমূলক তথ্যপ্রচার করছে।

রঞ্জন সিংহ বলেন, উল্লেখিত ভ’মির মূল মালিক দখলকার ছিলেন আমাদের পূর্বসূরী নদিয়া সিং মণিপুরি ও তার সহোদর আংজাও সিং মণিপুরি। পরবর্তীতে আপোস বাটোয়ারায় আমাদের পূর্বসূরী নদিয়া সিং মণিপুরি’র উত্তরসূরীরা জরিপি ছাপা ১৪৭ দাগে ও আংজাওসিং মণিপুরি’র উত্তরসূরীরা ছাপা ১৪৩ দাগের বাড়িতে বসবাস করেন। পরবর্তী সময়ে আংজও সিং মণিপুরি’র কোন উত্তররসূরী জীবিত না থাকায় তার ত্যাজ্যবিত্তে দায়ভাগ (মৌরসী) সূত্রে আমাদের অর্থাৎ নদিয়া সিং মণিপুরি’র উত্তরাধিকারীগনের স্বত্ব-দখলীয় মালিকানা সাব্যস্ত হলে আমাদের বাড়ির আঙ্গিনা হিসেবে আমরা ওই ভূমি ভোগব্যহার করতে থাকি এবং একটি আধা-পাকা ঘরে আমাদের স্ব-জাতীয় একজন স-পরিবারে বসবাস করছিলেন। একটি ভূমিদস্য চক্র স্থানীয় ভূ-প্রশাসনকে ম্যানেজ করে সম্পূর্ন বেআইনী ও বিধি বহির্ভুতভাবে ২০০০-২০০১ সালে আমাদের ওই ভূ-সম্পত্তি অর্পিত সম্পত্তির তালিকাভুক্ত করে ফেলে। তারা প্রশাসনের কাছ থেকে লীজ মূলে ঐ ভূমি আত্মসাত করার চেষ্ঠায় লিপ্ত। তাই কাল বিলম্ব না করেই আমরা সরকার ঘোষিত অর্পিত সম্পত্তি প্রত্যার্পন আইনে মামলা করি। মামলার দীর্ঘ শুনানীতে সরকার পক্ষের লোকজন আমাদের এ ভূমিকে অর্পিত সম্পত্তি প্রমানে সম্পূর্ন ব্যর্থ হন। সরকার পক্ষ ভূমির মালিকের উত্তরাধিকারীগন দেশের বাইরে বলে প্রমান করতে পারেনি। উপরন্তু সরকার পক্ষ আমাদেরকে ওই ভূমির দায়ভাগে উত্তারিধকারী বলে স্বীকার করতে বাধ্য হয়।

রঞ্জন আরো বলেন, একটি চক্র সমিতি ও তথাকথিত তাঁত শিল্পের নাম ব্যবহার করে আমাদের স্বত্বদখলীয় ভূ-সম্পত্তি আত্মসাত করবে, এটা আমরা আদৌ মেনে নিতে পারি না। রঞ্জন সিংহ ওই স্বার্থান্বেষী চক্রের অপপ্রচার ও বিভিন্ন কর্মসূচিতে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট সকলের প্রতি অনুরোধ জানান।



এ বিভাগের অন্যান্য খবর



নোটিশ : ডেইলি সিলেটে প্রকাশিত/প্রচারিত সংবাদ, আলোকচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও বিনা অনুমতিতে ব্যবহার করা বেআইনি -সম্পাদক

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত

২০১১-২০১৭

সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতি: মকিস মনসুর আহমদ
সম্পাদক ও প্রকাশক: কে. এ. রাহিম. সাবলু, নির্বাহী সম্পাদক: মারুফ হাসান
অফিস: ৯/আই, ব্লু ওয়াটার শপিং সিটি, ৯ম তলা, জিন্দাবাজার, সিলেট।
ফোন: ০৮২১-৭২৬৫২৭, মোবাইল: ০১৭১৭৬৮১২১৪
ই-মেইল: [email protected]

Developed by: